ঢাকা, সোমবার, ১৭ জুন ২০২৪ | ৩ আষাঢ় ১৪৩১

Khola Kagoj BD
Khule Dey Apnar chokh

আসছে সাংবাদিক আবু সুফিয়ানের ‘ধর্মযোদ্ধা’

অনলাইন ডেস্ক
🕐 ৫:০০ অপরাহ্ণ, মে ২৯, ২০২৩

আসছে সাংবাদিক আবু সুফিয়ানের ‘ধর্মযোদ্ধা’

প্রকাশিত হতে যাচ্ছে আন্তর্জাতিক খ্যাতি সম্পন্ন অনুসন্ধানী সাংবাদিক আবু সুফিয়ান এর বই ‘ধর্মযোদ্ধা’। যেখানে উঠে এসেছে আমেরিকার কুখ্যাত গুয়ান্তানামো কারাগারে এক বাংলাদেশি তরুণের ৫ বছর বন্দি থাকার লোমহর্ষক ঘটনাবলী। এছাড়া আরও উঠেছে কয়েকজন মুজাহিদের গল্প। যারা আফগানিস্তানের প্রতিরোধ যুদ্ধে অংশ নিয়েছিলেন।

বইটি প্রকাশ করতে যাচ্ছে দেশের অন্যতম ঐতিহ্যবাহী প্রকাশনা সংস্থা আল-হামরা প্রকাশনী।

আবু সুফিয়ান বাংলাদেশের সাংবাদিকতায় অত্যন্ত পরিচিত মুখ। অনুসন্ধানী সাংবাদিকতায় তিনি ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির ‘মানিক মিয়া স্মৃতি অনুসন্ধানী সাংবাদিকতা পুরস্কার’, ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ অ্যাওয়ার্ড অর্জন করেছেন। এছাড়াও ডয়েচে ভ্যালে বেস্ট অব দ্য ব্লগ, রিপোর্টার্স উইদাউট বর্ডার পুরষ্কার অর্জন করেন তিনি।

বইটি সম্পর্কে তিনি বলেন, ‘আমার দীর্ঘ সাংবাদিকতার জীবনে এটা ছিল একটা স্মরণীয় ঘটনা। ২০০৬ সালে ছোট্ট একটা বার্তা পেলাম এক গোয়েন্দা কর্মকর্তার কাছ থেকে। মার্কিন বিমান বাহিনীর একটি বিশেষ ফ্লাইটে করে একজন বাংলাদেশি তরুণকে কুখ্যাত গুয়ান্তানামো কারাগার থেকে বাংলাদেশে ফিরিয়ে আনা হয়েছে। তাঁকে পুলিশের কাছে হস্তান্তর করেই চলে যায় মার্কিন গোয়েন্দা দলটি। সেদিন সৌভাগ্যক্রমে এই নিউজটা আমিই সর্বপ্রথম প্রকাশ করতে সমর্থ হই। কুখ্যাত এই কারাগারে বাংলাদেশি তরুণদের বন্দিত্ব ও ফিরে আসার খবরে সেদিন চমকে উঠেছিলেন অনেকেই।’

আবু সুফিয়ান আরও বলেন, ‘সেই বাংলাদেশি তরুণের ৫ বছর পর ফিরে আসা, কারাগারে নির্যাতন ও বর্তমান অবস্থার চিত্র তুলে ধরা হয়েছে। এছাড়াও আফগানিস্তানে সোভিয়েত ইউনিয়নের আগ্রাসন এবং পরবর্তীতে মার্কিন বাহিনীর বিরুদ্ধে প্রতিরোধ যুদ্ধে অনেক বাংলাদেশি তরুণ অংশগ্রহণ করেছিলেন। তাঁদের কয়েকজনের বর্ণনাও রয়েছে। ভবিষ্যতে যাঁরা এ বিষয়ে বিস্তর অনুসন্ধান করবেন তাঁদের জন্য বইটি একদমই খসড়া হিসেবে দরকারি হলে হতেও পারে।’

বইটি সম্পর্কে প্রকাশক খান মুহাম্মদ মুরসালীন বলেন, ‘বাংলাদেশের অনুসন্ধানী সাংবাদিকতায় এটি একটি অনবদ্য ঘটনা। একজন তরুণ শুধুমাত্র সন্দেহের কারণে বিনা অপরাধে পৃথিবীর নরক খ্যাত কারাগারে ৫ বছর বন্দি ছিলেন। বর্ণনাতীত নির্যাতন তাকে সহ্য করতে হয়েছে। তাঁর প্রতি এমন অন্যায়ের ঘটনা আমাদের সকলের জানা উচিত বলে আমি মনে করি। সেই তাড়নার জায়গা থেকেই আমরা বইটি প্রকাশে উদ্যোগী হয়েছি।’

 
Electronic Paper