ঢাকা, সোমবার, ২০ মে ২০২৪ | ৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১

Khola Kagoj BD
Khule Dey Apnar chokh

সাতক্ষীরায় ২২৫ কোটি টাকার আম বিক্রির সম্ভাবনা

ইব্রাহিম খলিল, সাতক্ষীরা
🕐 ১:০০ অপরাহ্ণ, মে ০৪, ২০২৩

সাতক্ষীরায় ২২৫ কোটি টাকার আম বিক্রির সম্ভাবনা

আগামীকাল (৫ মে) থেকে সাতক্ষীরায় বিখ্যাত গোপালভোগ, গোবিন্দভোগ. বোম্বাই, গোলাপখাস, বেশাখী সহ স্থানীয় জাতের আম বাজারজাত করতে পারবেন ব্যাবসায়িরা। সাতক্ষীরার আমের চাহিদা শুধু দেশে নয় এর কদর বিদেশেও রয়েছে। প্রত্যেক বছর কয়েক মেট্রিকটন সুস্বাদু আম ইউরোপের বাজারে বাজারজাত করেন ব্যাবসায়িরা। এবার আশানুরূপ ফলন হওয়ায় ২২৫ কোটি টাকার আম বিক্রির আশার কথা জানিয়েছে কৃষি বিভাগ।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, এ বছর জেলার চার হাজার ১১৫ হেক্টর জমিতে আম চাষ হয়েছে। উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ৪৫ হাজার ৫০০ মেট্রিক টন। দেশের চাহিদা মিটিয়ে বিদেশে রফতানি করা যাবে। এতে আয় হবে ২২৫ কোটি টাকার বেশি।

সাতক্ষীরা কৃষি অধিদপ্তর বিভাগ জানায়, মাটি, বাতাস ও আবহাওয়া ভালো হওয়ায় গত কয়েক বছর ধরে জেলায় হিমসাগর, ল্যাংড়া, আম্রপালি, মল্লিকা, গোপালভোগ, গোবিন্দভোগ, বোম্বাই ও গোপালখাসসহ অন্যান্য জাতের প্রচুর আম উৎপাদন হয়। চাহিদা মিটিয়ে বিদেশেও রফতানি হয়। এ বছর নবমবারের মতো ইংল্যান্ড ও ইউরোপের কয়েকটি দেশে যাবে এই জেলার আম।

আবহাওয়া এবং পরিবেশগত কারণে অন্য জেলার চেয়ে সাতক্ষীরায় আম আগে পাকে। এ জন্য দেশের বাজারে সবার আগে এখানকার আম বিক্রি শুরু হয়। গত কয়েক বছর বিভিন্ন প্রাকৃতিক দুর্যোগের কারণে ক্ষতিগস্ত হয়েছেন চাষিরা। এবার আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় ফলন ভালো হয়েছে। তবে প্রচন্ড দাবদাহের কারণে কিছু গুটি ঝরে পড়ছে।

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের তথ্যমতে, এ বছর সদর উপজেলায় এক হাজার ২৩৫ হেক্টর, কলারোয়ায় ৬৫৫ হেক্টর, তালায় ৭১৫ হেক্টর, দেবহাটায় ৩৭০ হেক্টর, কালিগঞ্জে ৮৩৫ হেক্টর, আশাশুনিতে ১৪৫ হেক্টর ও শ্যামনগরের ১৬০ হেক্টর জমিতে আম চাষ হয়েছে। সবমিলে চার হাজার ১১৫ হেক্টর জমিতে আবাদ হয়েছে। জেলায় সরকারি তালিকাভুক্ত পাঁচ হাজার ২৯৯টি আমবাগান ও ১৩ হাজার ১০০ জন চাষি রয়েছেন।

 
Electronic Paper