বেড়ায় উচ্ছেদ আতঙ্কে ছিন্নমূল মানুষ

ঢাকা, সোমবার, ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯ | ১ আশ্বিন ১৪২৬

বেড়ায় উচ্ছেদ আতঙ্কে ছিন্নমূল মানুষ

ওসমান গনি, (বেড়া) পাবনা ৪:৫১ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ০১, ২০১৯

print
বেড়ায় উচ্ছেদ আতঙ্কে ছিন্নমূল মানুষ

পাবনা সেচ ও পল্লী উন্নয়ন প্রকল্পের বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধে বসবাসরত হাজার হাজার ছিন্নমূল মানুষ উচ্ছেদ আতঙ্কে রয়েছেন। স্থানীয় প্রভাবশালী ও বিত্তবানদের হাত থেকে পানি উন্নয়ন বোর্ডের জায়গা দখলমুক্ত করাসহ তাদের গড়ে তোলা বিভিন্ন স্থাপনা উচ্ছেদ করার লক্ষ্যে পানি উন্নয়ন বোর্ড অভিযান শুরু করেছে।

এতে বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধে দুই পাশে বসবাসরত নদী ভাঙনকবলিত হাজার হাজার ছিন্নমূল মানুষ কোথায় আশ্রয় পাবে সে চিন্তায় দিশেহারা হয়ে পড়েছেন।

বেড়া পানি উন্নয়ন বোর্ড সূত্রে জানা যায়, পাবনা প্রকল্পাধীন ১৭৫ কিলোমিটার এলাকায় বাঁধের ঢালুতে এবং পাবনা প্রকল্পের খাল-জলাশয়ের ২১২ কিলোমিটার জায়গায় হাজার হাজার মানুষ অবৈধ স্থাপনা গড়ে বছরের পর বছর ধরে ভোগ দখল করছে।

বেড়া পাউবোর নির্বাহী প্রকৌশলী আব্দুল হামিদ বলেন, পাবনা প্রকল্পাধীন ১৭৫ কিলোমিটার বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ ও ২১২ কিলোমিটার খাল-জলাশয়ের জায়গার ওপর স্থানীয় প্রভাবশালী ও বিত্তবানরা বিভিন্ন অবৈধ স্থাপনা গড়ে তুলেছেন। এদের দখল থেকে সরকারি জমি উদ্ধার ও দখলমুক্ত করার জন্য সরকারে নির্দেশে এ উচ্ছেদ অভিযান পরিচালিত হচ্ছে।

নদী ভাঙনকবলিত ছিন্নমূল মানুষগুলো বাঁধে বসবাস করছে- এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, নদী ভাঙনে ক্ষতিগ্রস্ত ছিন্নমূল মানুষ বাঁধের কিছু কিছু জায়গায় আছে। তবে তাদের সংখ্যা খুবই নগণ্য। দীর্ঘদিন ধরে যারা সরকারি জায়গায় পাকা স্থাপনা গড়ে দোকানপাট, ঘরবাড়ি ভাড়া দিয়ে ও নিজেরা অবৈধভাবে বসবাস করছে তারা সবাই বিত্তবান। প্রভাবশালীরা এসব জায়গা হস্তান্তর ও পজিশন বিক্রি করে থাকে বলে অভিযোগ রয়েছে। উচ্ছেদ অভিযান চলবে ও চলমান থাকবে।

নাকালিয়া বাজারের ব্যবসায়ী বৈদ্য কুণ্ডু, সুবোধ সাহা, হীরা ও মিয়া জানান, হাটুরিয়ার লোকমান প্রামাণিকের কাছ থেকে পানি উন্নয়ন বোর্ডের রাস্তার ঢালে নাকালিয়া বাজারে দেড় শতক জায়গা সাত লাখ দুই হাজার টাকায় কিনে নিয়েছি। উচ্ছেদ করলে আমরা সর্বস্বান্ত হয়ে যাব। পরিবারের সদস্যদের মুখে একমুঠো ভাত তুলে দেওয়ার ক্ষমতা থাকবে না। আমাদের কাছ থেকে বিপুল পরিমাণ অর্থ হাতিয়ে নিয়েছিল।