ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ৩০ মে ২০২৪ | ১৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১

Khola Kagoj BD
Khule Dey Apnar chokh

তিন ভাইয়ের দুই বিঘা জমির ভুট্টা কেটে নিলো দুর্বৃত্তরা

নওগাঁ প্রতিনিধি
🕐 ৩:৩৩ অপরাহ্ণ, মে ১৫, ২০২৪

তিন ভাইয়ের দুই বিঘা জমির ভুট্টা কেটে নিলো দুর্বৃত্তরা

নওগাঁর মান্দায় খোর্দ্দবান্দাইখাড়া এলাকার মশিউর রহমান, তোফাজ্জল হোসেন ও জিয়াউর রহমানের দুই বিঘা জমির ভুট্টা কেটে নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। ওই তিন সহোদরের বাড়ি নওগাঁর আত্রাই উপজেলার হাটকালুপাড়া ইউনিয়নের উত্তর বিলদরগাহপাড়া গ্রামে।

এই ঘটনায় জিয়াউর রহমান বলেন, দীর্ঘদিন ধরে তাঁর ভগ্নিপতি উত্তর বিল দরগাহপাড়া গ্রামের মোজাহারুল ইসলামের সঙ্গে পারিবারিক বিরোধ চলে আসছে। মোজাহার দীর্ঘদিন ধরে তাঁদেরকে হয়রানিসহ আর্থিক ক্ষতি ও তাদের জমি দখল করার জন্য পায়তারা করে আসছে। তাদের ক্ষতি সাধনের উদ্দেশ্যে গত রোববার সকালে মোজাহারুল ইসলাম ও তার ভাই নজরুল ইসলাম এবং বান্দাইখাড়া গ্রামের বাসিন্দা আব্দুল খালেক বিশার নেতৃত্বে ২০-২৫জন দূর্বৃত্ত হাতে কাস্তে, লোহার রড ও বাঁশের লাঠিসহ দেশীয় অস্ত্র নিয়ে খোর্দ্দবান্দাইখাড়া মাঠে লাগানো খেতের ভুট্টা কাটতে আসেন।

এ সময় জিয়াউর ও তার ভাইয়েরা এবং বর্গাদার সোহরাব হোসেন ঘটনাস্থলে গিয়ে ভুট্টা কাটতে নিষেধ করলে মোজাহার ও তাঁর ভাড়াটিয়ারা ভয়ভীতি ও প্রাণনাশের হুমকি প্রদান করেন। প্রাণভয়ে তারা সেখান থেকে চলে আসেন। ওইদিন সকাল ৬টা থেকে বেলা ১১টা পর্যন্ত দূর্বৃত্তরা।

তাদের খেতের সব ভুট্টা কেটে নিয়ে যায়। বিষয়টি তাৎক্ষনিকভাবে মান্দা থানা পুলিশকে জানালে পুলিশের একটি দল ঘটনাস্থলে আসার আগেই তারা খেতের ভুট্টা কেটে নিয়ে যায়। এ ঘটনায় জিয়াউর রহমানের বড় ভাই মশিউর রহমান ওইদিনই মান্দা থানায় ২৮জনের রাম উল্লেখ করে একটি লিখিত অভিযোগ করেন।

জমির আরেক মালিক মশিউর রহমান বলেন, আইন অনুযায়ী আমার বড় বোন যেখানে যতটুকু সম্পত্তি পাবেন সব বুঝে দেওয়া হয়েছে। তারপরেও আমার ভগ্নিপতি মোজাহারুল আরও সম্পদ পাবেন বলে দাবি করে আসছে। তিনি বিভিন্নভাবে আমাদের আর্থিক ক্ষতিসাধন করেছেন এবং এখনও চেষ্টা করে যাচ্ছেন। তার বিরুদ্ধে একাধিকবার মামলা করেও প্রতিকার পাওয়া যায়নি।

ঘটনার বর্ণনা দিয়ে ক্ষতিগ্রস্থ বর্গাচাষী সোহরাব হোসেন বলেন, আর ১০-১২ দিন পরেই জমির ভুট্টা তোলার পরিকল্পনা ছিল আমার। ভুট্টা তোলার জন্য দিন গুনছিলাম। কিন্তু গত রোববার উত্তর বিল দরগাহপাড়া গ্রামের মোজাহার, নজরুল, বান্দাইখাড়ার আব্দুল খালেক বিশা দলবল নিয়ে এসে তাঁর খেতের সব ভুট্টা কেটে নিয়ে যায়। তাঁরা ২০-২৫ জন লোক ছিলো। তাঁদের হাতে লোহার রড ও বাঁশের লাঠি ছিল। আমি বাঁধা দিতে গেলে
তাঁরা লাঠি উঁচিয়ে আসাবে প্রাণে মেরে ফেলার হুমকি দেন। খেতের ভুট্টা কেটে নিয়ে যাওয়া শুধু চেয়ে চেয়ে দেখতে হয়েছে। ওই জমির ফসল দিয়েই আমার সংসার চলে। ভুট্টা কেটে নেওয়ায় এখন আমার নিঃস্ব অবস্থা।

তার দাবি, তার ক্ষেত থেকে প্রায় ৯০ মণ ভুট্টা কেটে নিয়ে গেছে। এতে তার প্রায় ৯৫ হাজার টাকার ক্ষতি হয়েছে। অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে মোজাহারুল ইসলাম বলেন, খোর্দ্দবান্দাইখাড়া মাঠে আমার স্ত্রী ওয়ারিশ সূত্রে দেড় বিঘা জমি ও আমার ছোট ভাই নজরুল ইসলামের ক্রয় সূত্রেদেড় বিঘা জমি রয়েছে। কিন্তু ওইসব জমি আমার শ্যালকেরা জোর করে ভোগদখল করার চেষ্টা করছে। আমাদের জমিতে লাগানো ভুট্টা আমরা কেটে নিয়েছি। শুধু ওই জমি নয় আমার শ্যালকেরা আমার স্ত্রীর সই জাল করে মিথ্যা দলিল করে তাঁকে বাবার সম্পত্তি থেকে বঞ্চিত করার চেষ্টা করছে। এটা নিয়ে বিভিন্ন সময় প্রতিবাদ করায় এবং স্ত্রীর জমি বুঝে নেওয়ার চেষ্টা করায় আমার বিরুদ্ধে বিভিন্ন সময় আটটি মিথ্যা মামলা করেছে। এবারের অভিযোগও মিথ্যা।

মান্দা থানার ওসি মোজাম্মেল হক কাজী বলেন, খোর্দ্দবান্দাইখাড়া এলাকায় জোর করে দুই বিঘা জমির ভুট্টা কেটে নেওয়ার ঘটনায় মশিউর রহমান নামে এক ব্যক্তি গত রোববার একটি থানায় একটি অভিযোগ করেছেন। লিখিত অভিযোগে মোট ২৮জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ করা হয়েছে। বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। ঘটনার সত্যতা পেলে দায়ী ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

 
Electronic Paper