গণবিজ্ঞপ্তি দিয়ে ভাবী শিক্ষকদের বেকারত্ব ঘোচান

ঢাকা, বুধবার, ৮ জুলাই ২০২০ | ২৩ আষাঢ় ১৪২৭

গণবিজ্ঞপ্তি দিয়ে ভাবী শিক্ষকদের বেকারত্ব ঘোচান

আজিনুর রহমান লিমন ৮:৩১ অপরাহ্ণ, জুন ০৩, ২০২০

print
গণবিজ্ঞপ্তি দিয়ে ভাবী শিক্ষকদের বেকারত্ব ঘোচান

শিক্ষকরা মানুষ গড়ার কারিগর। যাদের মেধা, মনন ও প্রচেষ্টায় সৃষ্টি হয় আগামীর প্রজন্ম। সেই শিক্ষকদের অনাদর আর অবহেলার চোখে দেখা হচ্ছে। বাবা মায়ের মাথার ঘাম পায়ে ফেলা অর্থ দিয়ে লেখাপড়া করে, জীবনের প্রায় অর্ধেক সময় ব্যয় করে, দিনরাত পরিশ্রম করে কয়েকশ’পরীক্ষার মাধ্যমে মহামূল্যবান সনদ অর্জন করার পরেও হাজারো দুশ্চিন্তায় জড়িয়ে পড়েছেন দেশের ভাবী শিক্ষকরা।

শিক্ষক হওয়ার জন্য নির্ধারিত পরীক্ষার সনদ অর্জনের পরেও শিক্ষক হতে পারছেন না দেশের অসংখ্য নিবন্ধনধারী বেকার যুবক। হাজার হাজার শূন্যপদ থাকা সত্ত্বেও এনটিআরসিএ কর্তৃপক্ষ গণবিজ্ঞপ্তি না দিয়ে অযথা সময় অতিবাহিত করে যাচ্ছেন। দেশের করোনা পরিস্থিতির কারণে অফিস আদালত বন্ধ থাকায় এনটিআরসিএর সকল কার্যক্রম একেবারেই থেমে যায়। ভাবী শিক্ষকদের তাদের সময় কেটেছেন উদ্বেগ্নে।

যে শিক্ষকদের মেধা আর মনন দিয়ে সৃষ্টি হবে আগামী প্রজন্ম সেই শিক্ষকদের আর দুশ্চিন্তায় রাখবেন না। নিয়োগের দুশ্চিন্তা করতে করতে মেধাবী শিক্ষকরা তাদের মেধা হারিয়ে ফেলবেন। ফলে আগামীর প্রজন্ম পাবে মেধাহীন শিক্ষক। যা দেশের জন্য হবে বিরাট ক্ষতির কারণ। দীর্ঘদিন ধরে শূন্য পদের চাহিদা গ্রহণ করা হল। অথচ শূন্য পদ পূরণের জন্য নিয়োগ কিংবা গণবিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করার কোনো প্রক্রিয়া দেখা যাচ্ছে না।

এখন অফিস আদালত খোলার অনুমতি দেওয়া হয়েছে। আর কালক্ষেপন না করে গণবিজ্ঞপ্তি দিয়ে ভাবী শিক্ষকদের ভাঙা মনকে চাঙ্গা করুন। এতে দেশ এবং দশের উভয়েরই মঙ্গল হবে। বিষয়টি এনটিআরসিএ কর্তৃপক্ষের নজরে নিয়ে ব্যবস্থা গ্রহণের বিনীত অনুরোধ জানাচ্ছি।

আজিনুর রহমান লিমন, মিয়াপাড়া, নীলফামারী

azinurlimon@gmail.com