নারী উদ্যোক্তাদের জন্য যা প্রয়োজন

ঢাকা, শুক্রবার, ১০ এপ্রিল ২০২০ | ২৭ চৈত্র ১৪২৬

পাঠকের চিঠি

নারী উদ্যোক্তাদের জন্য যা প্রয়োজন

মুহাম্মদ শফিকুর রহমান ৯:০৭ অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ০৩, ২০২০

print
নারী উদ্যোক্তাদের জন্য যা প্রয়োজন

গত এক দশকে প্রচুর ক্ষুদ্র নারী উদ্যোক্তা তৈরি হয়েছে। তাদের কেউ শিক্ষার্থী, কেউবা গৃহিণী। পড়াশোনা, সংসার সব সামলান। আবার কিছু টাকা আয়ও করেন। যা দিয়ে সংসারের টুকটাক কেনাকাটা, নিজের পড়াশোনার খরচ, অনান্য ছোটখাটো খরচ চলে যায়। জরুরি প্রয়োজনে স্বামী বা বাবার কাছে হাত পাততে হয় না। বিপদাপদ কিছুটা হলেও নিজে সামাল দিতে পারেন।

মূলত ক্ষুদ্র নারী উদ্যোক্তাদের এ ব্যবসা হয় অনলাইনে। অনলাইনে অর্ডার হয়। কুরিয়ারে পণ্য পৌঁছে দেওয়া হয়। বিকাশ, রকেট এসব মাধ্যমে ক্রেতা মূল্য পরিশোধ করেন। এসব ক্ষুদ্র উদ্যোক্তার প্রধান সমস্য হলো মূলধনের অভাব।

একজন গৃহিণী, ছাত্রী মূলধন পাবেন কোথায়? শুরুতে পরিবার সহযোগিতা করে বটে। কিন্তু পরে এরা ব্যবসা বাড়াতে পারেন না। কারণ বাড়তি টাকা নেই, যা বিনিয়োগ করবেন। ক্ষুদ্র উদ্যোক্তা, তাও আবার নারী। ব্যাংক তাদের লোন দেয় না। আর ব্যাংক লোনের সুদেও যে হার। সেটা ক্ষুদ্র নারী উদ্যোক্তাদের পক্ষে বহন করা অসম্ভব ব্যাপার।

খাজনার চেয়ে বাজনা বেশি। ব্যাপারটা এমনই। অথচ সরকারি, বেসরকারি ব্যাংকগুলো যদি এদের বিনা সুদে লোন দেয়। সুদ নিলেও নামে মাত্র নেয়। তাহলে ক্ষুদ্র নারী উদ্যোক্তারা দ্রুত বড় উদ্যোক্তায় পরিণত হবেন। বিপুলসংখ্যক মানুষের কর্মসংস্থান হবে। অসংখ্য পরিবার অর্থনীতিকভাবে স্বনির্ভর হয়ে উঠবে।

সামাজিক অপরাধ কমবে। কমবে দাম্পত্য কলহসহ নানা রকম বিবাদ। ক্ষুদ্র নারী উদ্যোক্তারা কেবল ঢাকাকেন্দ্রিক নয়। মফস্বলেও তারা ভালো করছেন। কীভাবে অনলাইন ব্যবসায় ভালো করা যাবে। প্রযুক্তিগত টেকনিকসহ কৌশলগত যে ব্যাপারগুলো আছে। সে বিষয়ে ক্ষুদ্র নারী উদ্যোক্তাদের প্রশিক্ষণ দেওয়া প্রয়োজন।

যুব উন্নয়ন মন্ত্রণালয় বিভাগীয় পর্যায়ে ক্ষুদ্র্র নারী উদ্যোক্তাদের প্রশিক্ষণ দিতে পারে। মা, বোন উদ্যোক্তা হলে পরিবারে অন্যরাও উদ্যোক্তা হবে। ছেলে সদস্য বিপদগামী হবে না। পরিবার সচ্ছল হলে সামাজিক, পারিবারিক অশান্তি কমে আসবে। মুখে আমরা নারীর ক্ষমতায়নের কথা বলে ফেনা তুলে ফেলি। নারীর জন্য ভালো হবে, নারী নিজের পায়ে দাঁড়াক, যেন স্বনির্ভর হতে পারে।

অর্থনীতিকভাবে শক্ত ভিত্তির ওপর দাঁড়াতে পারে। সে জন্য প্রকৃত সময়োপযোগী উদ্যোগ নেই। ক্ষুদ্র নারী উদ্যোক্তারা আর যাই হোক রাঘববোয়ালদের মতো ঋণখলাপি হবে না। লোনের টাকা খেয়ে বিদেশ পাড়ি জমাবে না।

এ কথা জোর দিয়েই বলা যায়। ক্ষুদ্র নারী উদ্যোক্তাদের নিয়ে ভাবার সময় এসেছে। কথা নয়। বিনা সুদে ঋণ, প্রশিক্ষণসহ নানা রকম উদ্যোগ চাই। যাতে আজকের ক্ষুদ্র নারী উদ্যোক্তা হয়ে ওঠে আগামীর বড় উদ্যোক্তা।

মুহাম্মদ শফিকুর রহমান, বনানী, ঢাকা ১২১৩
safiq69@gmail.com