ছাত্রলীগকে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করা হোক

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২১ নভেম্বর ২০১৯ | ৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

ছাত্রলীগকে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করা হোক

ববি হাজ্জাজ ১০:০১ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ০৮, ২০১৯

print
ছাত্রলীগকে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করা হোক

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে উপাচার্যবিরোধী আন্দোলনরত শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের ওপর ছাত্রলীগের নব্য হানাদার বাহিনীর মতো আক্রমণের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাই। বুয়েটের ছাত্র শহীদ আবরার হত্যার পর সমগ্র তরুণ ও ছাত্র-জনতার কাছে পরিষ্কার হওয়া আবশ্যক ছিল, ছাত্র রাজনীতিকে অবাঞ্ছিত নয় বরং নব্য হানাদার বাহিনীর মতো সংস্কার না হওয়া পর্যন্ত প্রতিটি ক্যাম্পাসে ছাত্রলীগকে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করা।

বুয়েটের ঘটনা বা ছাত্রলীগের সন্ত্রাস-তা-বের কোনো ঘটনাই বিচ্ছিন্ন নয়। আমাদের তরুণ ও ছাত্রসমাজের জন্য অভিশাপ এই নব্য হানাদার বাহিনী। আর সরকারি দলের পৃষ্ঠপোষকতায় বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর কিছু ‘সম্মানিত উপাচার্য’ মহোদয়গণ এদের নির্লজ্জ সরব সহযোগী।

যখন মূর্তিমান ত্রাসের মতো ছাত্রলীগ জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-শিক্ষকদের ওপর অস্ত্রসহ হামলা করল তখন জাতিকে হতবাক করে এই ঘটনাকে স্বাগত জানালেন ডক্টরেট ডিগ্রিধারী দেশের প্রথম নারী ভিসি, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের বর্তমান উপাচার্য। আমরা তার এই ঘোষণাকে ধিক্কার জানাই। এমনভাবেই হয়তো ১৯৭১ সলের ২৭ মার্চে পাক হানাদার বাহিনীর প্রশংসায় মেতে উঠেছিল ইয়াহিয়া, টিক্কা খান গং।

এই চাটুকার উপাচার্যের কাছে ছাত্রলীগ ব্যতীত বাকি সব ছাত্রছাত্রী যেমন ‘শিবির’ অনুসারী ঠিক তেমনি নিশ্চয় ইয়াহিয়া টিক্কা গংয়ের কাছে বীর মুক্তিযোদ্ধারা ছিল দেশদ্রোহী। শিক্ষাঙ্গন থেকে এই নিকৃষ্ট চাটুকারদের সরানো এবং শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোতে এই নব্য হানাদার বাহিনীকে নিষিদ্ধ ঘোষণা করা আবশ্যক।

দেশের প্রতিটি সরকারি-বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় দলীয় লেজুড়বৃত্তি থেকে মুক্ত হয়ে নৈতিক মূল্যবোধভিত্তিক বুদ্ধিবৃত্তিক চর্চা ও বিজ্ঞানমুখী সমাজ বিনির্মাণের কেন্দ্র হয়ে উঠুক, এই প্রত্যাশা রাখছি।

ববি হাজ্জাজ
চেয়ারম্যান, এনডিএম