নিশ্বাসে-বিশ্বাসে-অবয়বে

ঢাকা, শুক্রবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৯ | ৫ আশ্বিন ১৪২৬

নিশ্বাসে-বিশ্বাসে-অবয়বে

মোজাম্মেল সুমন ২:১৭ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১২, ২০১৯

print
নিশ্বাসে-বিশ্বাসে-অবয়বে

তুমি যখন দিনশেষে রাত্রিবেলা শোও যথারীতি,
তখন আমার খুব হিংসে হয় বালিশটার প্রতি!
বালিশ পায় তোমার গালদুটি ছোঁবার অনুমতি,
ভাবতেই ফ্যাকাসে হই; বাড়ে দ্বিধান্বিত অনুভূতি।

তুমি যখন আরামে ঘুমাও হয়ে কোমলমতি,
তখন আমার খুব হিংসে হয় বিছানার প্রতি!
তোমার শরীরকে ছুঁয়ে বিছানার হাসি ফোটে,
ভাবতেই নির্বাক হই; মেজাজটা হয় খিটখিটে।

তুমি যখন সকালবেলা চা খাও হয়ে স্বতঃস্ফূর্ত,
তখন আমার খুব হিংসে হয় কাপটার প্রতি।
কাপটি তোমার যুগলঠোঁটে চুম্বন করতে থাকে,
ভাবতেই পাগলাটে হই; যেনো হারাই নিজেকে!

তুমি যখন দুপুরবেলা সাজগোছে হও রূপবতী,
তখন আমার খুব হিংসে হয় প্রসাধনীর প্রতি।
প্রসাধনী তোমায় নিবিড়ভাবে আশেপাশে মশগুল,
ভাবতেই নিস্তেজ হই; সবকিছু লাগে হুলুস্থুল!

তোমার একটু অনুপস্থিতির অনলে হই দগ্ধ,
আমি মানতে নারাজ ভালোবাসার সীমাবদ্ধ।
বাছবিচার না করে তোমাকেই ভালোবেসেছি,
তুমি শুধুই আমার! সব সময়ই চাই কাছাকাছি।

আমার বুকই তোমার বিছানা কিংবা বালিশ,
রবে ঠোঁটেঠোঁটে হাতেহাতে পায়েপায়ে অহর্নিশ।
তুমি থাকবে মনেপ্রাণে কিংবা সমস্ত অনুভবে,
আমি তোমাকে চাই নিশ্বাসে-বিশ্বাসে-অবয়বে।

সদস্য, এগারজন
ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়