ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০২৪ | ১১ আষাঢ় ১৪৩১

Khola Kagoj BD
Khule Dey Apnar chokh

‘অতৃতীয়’ অ্যালবাম এখন উন্মুক্ত

বিনোদন প্রতিবেদক
🕐 ২:১০ পূর্বাহ্ণ, মার্চ ১২, ২০২৩

‘অতৃতীয়’ অ্যালবাম এখন উন্মুক্ত

১৯৯৯ সালের আগস্টে দল বাঁধেন কয়েকজন সংগীতপ্রেমী যুবক। গড়ে তোলেন ‘আর্টসেল’ নামের একটি ব্যান্ড। এরপর ২০০২ সালে তারা উপহার দেন প্রথম একক অ্যালবাম ‘অন্য সময়’। চার বছর পর ২০০৬ সালে আসে তাদের দ্বিতীয় অ্যালবাম ‘অনিকেত প্রান্তর’। ততদিনে শ্রোতাসমাজে তাদের পরিচিতি ছড়িয়ে গেছে। তাদের হেভি মেটাল গান-মিউজিক ভাসিয়ে নিচ্ছে তারুণ্যকে। ক্রমশ সেই জনপ্রিয়তার স্রোত আরও বেগবান হয়েছে।

কনসার্ট মাতানোর অন্যতম আকর্ষণে পরিণত হয় ‘আর্টসেল’। কিন্তু দীর্ঘ ১৭ বছর তাদের নতুন কোনও অ্যালবাম আসেনি বাজারে। ফলে শ্রোতাদের মনে আক্ষেপের বালুচর জেগে উঠেছিলো। সেই চর ধুয়েমুছে দিলো সম্প্রতি প্রকাশ হওয়া নতুন অ্যালবাম। যেটার নাম ‘অতৃতীয়’। ব্যান্ডটির তৃতীয় একক অ্যালবাম।

গত ২৩ ফেব্রুয়ারি ‘গান’ অ্যাপে মুক্তি পায় অ্যালবামটি। সেখানে একেকজন শ্রোতা ৩০০ টাকা সাবস্ক্রিপশনের বিনিময়ে এর গানগুলো শুনেছেন। ‘আর্টসেল’ সদস্যদের দাবি, ইউটিউবে আসবে শুনেও অনেক শ্রোতা টাকা দিয়েই অ্যালবামটি শুনেছেন। এটা তাদের নিখাদ ভালোবাসারই প্রমাণ। যদিও টাকার সঠিক অংকটি পাওয়া যায়নি আর্টসেল থেকে।

গত ৯ মার্চ জি সিরিজের ইউটিউব চ্যানেলে উন্মুক্ত করা হয়েছে ‘অতৃতীয়’র সবগুলো গান। এতে ছয়টি গান রয়েছে। এগুলো হলো- ‘প্রতীতি’, ‘বাক্স বন্দি’, ‘বিপ্রতীপ’, ‘স্মৃতির আয়না’, ‘অসমাপ্ত সান্ত্বনা’ ও ‘অতৃতীয়’।

ইউটিউবে উন্মুক্ত হওয়ার আগে যারা অ্যালবামটি টাকা দিয়ে শুনেছেন, তাদের প্রতি ভালোবাসা ও কৃতজ্ঞতা জানিয়েছে ব্যান্ড ‘আর্টসেল’। তারা বলেছেন, “আমাদের অ্যালবামটি বিক্রির জন্য প্রকাশ করা হয়েছিলো এবং আপনারা যে বিস্ময়কর সাড়া দেখিয়েছেন, তাতে শুধু ‘আর্টসেল’র জন্য নয়, বাংলা ব্যান্ড মিউজিকের ক্ষেত্রেই একটা উদাহরণ হয়ে থাকবে। এটা এমন এক সময়, যখন সবার অভিযোগ, শ্রোতারা টাকা দিয়ে গান শুনতে চায় না; কিন্তু ‘অতৃতীয়’র সাফল্য মিউজিক ইন্ডাস্ট্রির জন্য অনেকগুলো আশার দরজা খুলে দিচ্ছে। আমরা আপনাদের নিয়ে গর্বিত। এটা ‘আর্টসেল’র জয়, বাংলা মিউজিকের জয়।”

এদিকে নতুন অ্যালবামটি নিয়ে ‘আর্টসেল’র ভোকাল লিংকন ডি’কস্তা বলেছেন, ‘মিউজিক এমন একটা জায়গা, যেখানে কেউ কখনও সন্তুষ্টি পায় কিনা সন্দেহ। কারণ গানের নতুনত্বে তো শেষ নেই। একজন শিল্পীর জন্য তৃষ্ণা মিটে যায়, তাহলে তো নতুন গান করতে পারবে না। আমাদের তৃষ্ণা এখনও আছে। তো নতুন অ্যালবামের গানগুলো শুনে শ্রোতারা কী বলছেন এবং আমাদের নিজেদের দৃষ্টিভঙ্গি থেকে আগামীতে কীভাবে আরও জটিল গান বানানো যায়, সেদিকে খেয়াল রাখবো।’

উল্লেখ্য, একাধিকবার ভাঙনের ধাক্কা সামলাতে হয়েছে ‘আর্টসেল’কে। বর্তমানে এই ব্যান্ডের লাইনআপে রয়েছেন- লিংকন ডি কস্তা (ভোকাল ও গিটার), ইকবাল আসিফ জুয়েল (লিড গিটার), কাজী ফয়সাল আহমেদ (লিড গিটার), কাজী সাজ্জাদুল আশেকীন (ড্রামস) ও সাইফ আল নাজি (বেজ গিটার)।

 
Electronic Paper