ঢাকা, শনিবার, ২ মার্চ ২০২৪ | ১৯ ফাল্গুন ১৪৩০

Khola Kagoj BD
Khule Dey Apnar chokh

অজ্ঞাত ব্যক্তির লাশ কাঁধে তুলে দাফন করল পুলিশ-সেচ্ছাসেবক

সুজন মাহমুদ, রাজীবপুর (কুড়িগ্রাম)
🕐 ৭:২৯ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ১৪, ২০২৩

অজ্ঞাত ব্যক্তির লাশ কাঁধে তুলে দাফন করল পুলিশ-সেচ্ছাসেবক

কুড়িগ্রামের রাজীবপুরে অজ্ঞাত (৫০) এক ব্যক্তি অসুস্থ হয়ে পড়লে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ভর্তি করান ব্লাড ডোনেশন গ্রুপ রাজীবপুর। শুধু তাই নয়, চিকিৎসাধীন অবস্থায় ওই ব্যক্তি মারা গেলে তার মরদেহ কাঁধে তুলে নেওয়াসহ নামাজে জানাযা ও দাফনে সার্বিক সহযোগিতা করেছেন তারা।

 

সোমবার (১৩ নভেম্বর) বিকেলে উপজেলার সবুজবাগ কবরস্থানে ওই অজ্ঞাত ব্যক্তিকে দাফন করা হয়।

একজন অজ্ঞাত ব্যক্তির চিকিৎসার ব্যবস্থা করা। পরে মারা গেলে তার দাফন কাজ সম্পুর্ন করায় প্রশংশায় ভাসছেন ওই সেচ্ছাসেবী সামাজিক সংগঠন, রাজীবপুর সদর ইউপি চেয়ারম্যান মিরন মোহাম্মদ ইলিয়াস, রাজীবপুর থানার অফিসার্স ইনচার্জ মোজাহারুল ইসলাম, সাবেক ছাত্রলীগ সভাপতি সাইদুর রহমান। এমন কয়েকটি ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়েছে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, গতকাল রোববার রাজীবপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করানো হয় এক অজ্ঞাত অসুস্থ ব্যক্তিকে। পরে সোমবার ভোরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান। ওই ব্যক্তির চিকিৎসা থেকে শুরু করে দাফন সম্পন্ন করা পর্যন্ত ছিলেন ব্লাড ডোনেশন গ্রুপের সাধারণ সম্পাদক হামিদুল সুমন, জুয়েল রানা, সারোয়ার, সাবেক ছাত্রলীগ নেতা হাফিজুর রহমান।

রাজিবপুর উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি মোঃ সাইদুর রহমান বলেন, আমি রাজনীতি করলেও সবসময় সামাজিক কাজের সঙ্গে লেগে থাকি। মানবিকভাবে মনে হয়েছে কাজটি করার দরকার। এখন পর্যন্ত ওই ব্যক্তির নাম পরিচয় পাওয়া যায়নি। আমরা যখন থেকে তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে এসেছি, কথা বলার মতো অবস্থা ছিল না তার।

রাজীবপুর থানার অফিসার্স ইনচার্জ (ওসি) মোজাহারুল ইসলাম বলেন, মোহনগঞ্জ এলাকা থেকে অজ্ঞাত এক ব্যক্তিকে গতকাল উদ্ধার করে নিয়ে আসে সামাজিক সংগঠনের কর্মীরা। পরে বিষয়টি জানার পর আমি, ইউপি চেয়ারম্যান মিরন মোহাম্মদ ইলিয়াস ও ছাত্রলীগের কর্মীরা মিলে তার চিকিৎসার ব্যবস্থা করি। পরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় লোকটি মারা গেছেন।

 
Electronic Paper