ঢাকা, শুক্রবার, ১৯ এপ্রিল ২০২৪ | ৬ বৈশাখ ১৪৩১

Khola Kagoj BD
Khule Dey Apnar chokh

আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমে বেইলি রোডের আগুন

অনলাইন ডেস্ক
🕐 ২:৪০ অপরাহ্ণ, মার্চ ০১, ২০২৪

আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমে বেইলি রোডের আগুন

রাজধানীর বেইলি রোডের কাচ্চি ভাই রেস্টুরেন্টে লাগা আগুনে নারী, পুরুষ ও শিশুসহ ৪৪ জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। দগ্ধ আরও বেশ কয়েকজন শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে চিকিৎসাধীন। ভয়াবহ এ আগুনের খবর গুরুত্ব দিয়ে প্রকাশ করেছে আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমগুলো।

 

বৃহস্পতিবার (২৯ ফেব্রুয়ারি) রাত ৯টা ৫০ মিনিটে আগুন লাগার খবর পাওয়া যায়। এরপর প্রায় দুই ঘণ্টার চেষ্টায় রাত ১১টা ৫০ এর দিকে আগুন নিয়ন্ত্রণে আসে।

স্বাস্থ্যমন্ত্রীর বরাত দিয়ে বার্তা সংস্থা রয়টার্সের খবরে বলা হয়েছে, বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকার একটি ৬ তলা ভবনের আগুনে অন্তত ৪৩ জনের প্রাণহানি হয়েছে। আহত হয়েছেন আরও অনেকে। রয়টার্স আরও বলেছে, একটি জনপ্রিয় বিরিয়ানির দোকান থেকে আগুনের সূত্রপাত হয় যা পরে ভবনের অন্যান্য ফ্লোরে ছড়িয়ে পড়ে।

প্রায় একই ধরনের খবর দিয়েছে বিবিসি। ব্রিটিশ গণমাধ্যমটি লিখেছে, কাচ্চি ভাই নামের একটি রেস্টুরেন্ট থেকে ফায়ার সার্ভিসকে আগুনের খবর দেওয়া হয়। ওই ভবনে আরও রেস্টুরেন্ট ছিল।

বার্তা সংস্থা এএফপিকে দেওয়া ফায়ার সার্ভিসের মহাপরিচালকের বক্তব্য উদ্ধৃত করে বিবিসি আরও লিখেছে, ভবনটি ছিল বিপজ্জনক। প্রতিটি ফ্লোরেই গ্যাসের সিলিন্ডার ছিল। এমনকি সিঁড়িতেও ছিল।

আগুনের এ খবর দিয়ে ইন্ডিপেন্ডেন্ট লিখেছে, গত কয়েক বছরে বাংলাদেশে বহু নতুন ভবন গড়ে উঠেছে। এগুলোর অধিকাংশেই যথাযথ নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেই। ত্রুটিযুক্ত গ্যাসের লাইন, শীতাতপ নিয়ন্ত্রণ যন্ত্র এবং নিম্নমানের বৈদ্যুতিক সংযোগ থেকে ঘটছে এসব অগ্নিকাণ্ড এবং বিস্ফোরণের ঘটনা।

অন্যদিকে জার্মান গণমাধ্যম ডয়চে ভেলে লিখেছে, নিরাপত্তার অভাবে কারখানা এবং বাসভবনে আগুনের ঘটনা বাংলাদেশে নিয়মিত এবং কুখ্যাত হয়ে উঠেছে।

আগুনের সূত্রপাত এবং হতাহতের একই ধরনের খবর দিয়েছে স্কাই নিউজ, নিউইয়র্ক টাইমস, দ্য গার্ডিয়ান, সিবিএস নিউজ, ডেকান হেরাল্ড, এনডিটিভি এবং টাইমস অব ইন্ডিয়া। সবগুলো গণমাধ্যমই হতাহতের বর্ণনা দিয়েছে স্বাস্থ্যমন্ত্রী ডা. সামন্ত লাল সেন এবং ফায়ার সার্ভিসের মহাপরিচালকের বরাতে।

উল্লেখ্য, বৃহস্পতিবার রাত ৯টা ৫০ মিনিটের দিকে রেস্টুরেন্টটিতে এ অগ্নিকাণ্ড ঘটে। পরে ৯টা ৫৬ মিনিটের দিকে ঘটনাস্থলে পৌঁছায় ফায়ার সার্ভিসের প্রথম ইউনিট। পরবর্তীতে ইউনিট বাড়ার পাশাপাশি আগুন নিয়ন্ত্রণে ৩ প্লাটুন সাধারণ আনসার ছাড়াও বিশেষ প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত ১ প্লাটুন আনসার গার্ড ব্যাটালিয়ন (এজিবি) সদস্য মোতায়েন করা হয়।

তারা ফায়ার সার্ভিসের সঙ্গে আগুন নিয়ন্ত্রণ ও আটকে পড়া ব্যক্তিদের উদ্ধার করতে কাজ করে। এ ছাড়াও উদ্ধার কার্যক্রমে যোগ দেয় বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) সদস্যরাও। একপর্যায়ে ১৩ ইউনিটের চেষ্টায় রাত ১১টা ৫০ মিনিটের দিকে নিয়ন্ত্রণে আসে। রাত সোয়া ১টার দিকে ফায়ার সার্ভিসের পক্ষ থেকে এক ব্রিফিংয়ে জানানো হয়, এ ঘটনায় ৭৫ জনকে জীবিত উদ্ধার করা হয়েছে।

 
Electronic Paper