ঢাকা, শুক্রবার, ১৪ জুন ২০২৪ | ৩১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১

Khola Kagoj BD
Khule Dey Apnar chokh

আইটি ভিশনের কম্পিউটার প্রশিক্ষণের সনদ বিতরণ

অনলাইন ডেস্ক
🕐 ৫:২২ অপরাহ্ণ, মে ১৯, ২০২৪

আইটি ভিশনের কম্পিউটার প্রশিক্ষণের সনদ বিতরণ

মানব সম্পদ উন্নয়ন কর্মসূচির অংশ হিসেবে, জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের বিকেকেবি (বাংলাদেশ কর্মচারী কল্যাণ বোর্ড) এবং ইসলামিক ফাউন্ডেশন ও যুব উন্নয়ন অধিদপ্তরের যৌথ কার্যক্রমে, ইনফরমেশন ভিশন সোসাইটির পরিচালনায়, আইটি ভিশন সোসাইটি সিলেটের টিলাগড় শাখার আয়োজনে সনদ বিতরণ ২০২৪ অনুষ্ঠিত হয়েছে।

গত শনিবার ১৮ মে আইটি ভিশনে বেসিক কম্পিউটার ও গ্রাফিক্স ডিজাইন কোর্সে প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত শিক্ষার্থীদের সনদ বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে সিলেটের রাগীব-রাবেয়া ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতা এবং লিডিং ইউনিভার্সিটির প্রতিষ্ঠাতা ও ট্রাস্টি বোর্ডের চেয়ারম্যান দানবীর ড. সৈয়দ রাগীব আলী উপস্থিত ছিলেন।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি বলেন, বাংলাদেশের মানব সম্পদ উন্নয়ন ও গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের সকল কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের আর্থ-সামাজিক নিরাপত্তা বিধানসহ তৃণমূল পর্যায়ে অধিকতর কল্যাণ সাধনের লক্ষ্যে আইটি ভিশন সোসাইটি সিলেট শাখা কম্পিউটার প্রশিক্ষণ প্রদানসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে কাজ করে যাচ্ছে যা খুবই প্রশংসনীয়। তিনি আইটি ভিশন সোসাইটির সনদপ্রাপ্ত শিক্ষার্থীদের ভবিষ্যত সুন্দর কর্মজীবন কামনা করেন এবং প্রশিক্ষণ পরিচালনায় নিয়োজিত সবাইকে ধন্যবাদ জানান। সেইসঙ্গে এই ধরনের প্রতিষ্ঠানের সাথে সম্পৃক্ত থাকা সম্মানজনক মনে করে তিনি লিডিং ইউনিভার্সিটির রেজিস্ট্রার মো. মফিজুল ইসলামকে এতে যুক্ত থাকার জন্য ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে লিডিং ইউনিভার্সিটির ট্রেজারার ও আইসিটি অধিদপ্তরের সাবেক মহাপরিচালক শ্রীযুক্ত বনমালী ভৌমিক বলেন, আইটি বিষয়ে জ্ঞানার্জন খুবই গুরুত্বপূর্ণ এবং কর্মক্ষেত্রে দক্ষতা বাড়াতে কম্পিউটার জানতে হবে। তিনি আরও বলেন, চাকরির ইন্টারভিউয়ে নিজেকে অন্যদের চেয়ে যোগ্য প্রমাণ করতে উচ্চশিক্ষা সনদের পাশাপাশি এধরনের যোগ্যতা থাকা খুবই প্রয়োজন।

সভাপতির বক্তব্যে আইটি ভিশন সোসাইটির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান (অবসরপ্রাপ্ত যুগ্ম সচিব) ও লিডিং ইউনিভার্সিটির রেজিস্ট্রার মো. মফিজুল ইসলাম বলেন, আইটি ভিশন সোসাইটির বাংলাদেশের বিভিন্ন শাখা সনদপ্রাপ্তরা ইতোমধ্যে বিভিন্ন জায়গায় সম্মানের সাথে কর্মরত রয়েছে। তিনি আরও বলেন এটি একটি অলাভজনক প্রতিষ্ঠান। এখান থেকে প্রশিক্ষণ নিয়ে কেউ নিজেকে মাস্টার ট্রেইনার হিসেবে গড়ে তুলতে পারবে। এখানে বেসিক ইংরেজি এবং এ্যাডভান্সড ইংরেজি বিষয়েও প্রশিক্ষণ গ্রহণ করার সুযোগ রয়েছে।

তিনি সিলেটের শ্রেষ্ঠ উদ্যোক্তা দানবীর ড. সৈয়দ রাগীব আলীকে সনদ বিতরণ অনুষ্ঠানে এসে শিক্ষার্থীদের উৎসাহ প্রদান করার জন্য ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন এবং এই প্রতিষ্ঠানের প্রতি তাঁর পৃষ্ঠপোষকতা কামনা করেন। স্বাগত বক্তব্যে আইটি ভিশন সোসাইটির প্রকল্প পরিচালক মো. মাহাবুব আলম বলেন, আইটি ভিশন সোসাইটির প্রশিক্ষণ শাখায় বেসিক কম্পিউটার ও গ্রাফিক্স ডিজাইনে প্রশিক্ষণ কোর্সসহ বিভিন্ন কোর্স খুবই অল্প খরচে সম্পন্ন করা যায়।

তিনি আরও জানান, এখানে সরকারি কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের সন্তানদের জন্য নামমাত্র রেজিস্টেশন ফি প্রদানের মাধ্যমে প্রশিক্ষণের সুযোগ রয়েছে। ইতোমধ্যে এখান থেকে ১ লক্ষ ৮০ হাজার শিক্ষার্থী প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত হয়েছে যার শতকরা ৬৪ ভাগ বিভিন্ন জায়গাই কর্মরত রয়েছে। বর্তমানে বাংলাদেশের ২০টি জেলায় এ প্রকল্পের কার্যক্রম চালু রয়েছে। ২০১৭ সালে বাংলাদেশ সরকারের শ্রেষ্ঠ পুরস্কার পেয়েছে আইটি শিক্ষায় প্রশিক্ষণ প্রদানের জন্য আইটি ভিশন সোসাইটি।

লিডিং ইউনিভার্সিটির ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগের বিভাগীয় প্রধান ড. মুহাম্মদ জিয়াউর রহমানের উপস্থাপনায় এতে আরও বক্তব্য রাখেন রাগীব-রাবেয়া ফাউন্ডেশনের সচিব ইঞ্জিনিয়ার মো. লুৎফর রহমান এবং ভলানটেয়্যারী সার্ভিস প্রদানকারী প্রশিক্ষক লিডিং ইউনিভার্সিটি থেকে এলএলবি উত্তীর্ণ শিক্ষার্থী শাহানশাহ চৌধুরী।

উল্লেখ্য, আইটি ভিশন সোসাইটির সিলেট শাখা, সানি মার্কেট টিলাগড় পয়েন্ট, সিলেট থেকে এবার সর্বমোট ৩০ জনকে বেসিক কম্পিউটার এবং গ্রাফিক্স ডিজাইনের উপর সনদ প্রদান করা হয়।

 
Electronic Paper