ঢাকা, শনিবার, ২ মার্চ ২০২৪ | ১৯ ফাল্গুন ১৪৩০

Khola Kagoj BD
Khule Dey Apnar chokh

শীঘ্রই হচ্ছে না কুবি ছাত্রলীগের কমিটি, ধোঁয়াশায় নেতাকর্মীরা

হাছিবুল ইসলাম সবুজ, কুবি
🕐 ৬:০৯ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ২৬, ২০২৩

শীঘ্রই হচ্ছে না কুবি ছাত্রলীগের কমিটি, ধোঁয়াশায় নেতাকর্মীরা

কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের কমিটি বিলুপ্তির ৯ মাসেও নতুন করে কমিটির ঘোষণা করেনি ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদ। কবে গঠন করা হবে এ বিষয়ে স্পষ্ট করে বলতে পারছে না কেন্দ্রীয় সমন্বয়করাও। তবে নেতাকর্মীদের ভাষ্য, জাতীয় নির্বাচনের পরেই হবে শাখা ছাত্রলীগের কমিটি। এদিকে আগামী ৭ জানুয়ারী দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের তারিখ ঘোষণা করেছে ইসি। সংশ্লিষ্টরা বলছেন নির্বাচনের আগে কমিটি হওয়া সম্ভাবনা খুব কম। এদিকে দীর্ঘদিন যাবত ছাত্রলীগের কমিটি না হওয়ায় ধোঁয়াশা বাড়ছে নেতাকর্মীরাদের মাঝে। অনিশ্চয়তায় ক্যাম্পাস ছাড়ছেন অনেকেই। বাড়ছে আন্তঃকোন্দলও। 

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, গত ৬ মার্চ কেন্দ্রীয় শাখা ছাত্রলীগের বর্তমান সভাপতি সাদ্দাম হোসেন ও সাধারণ সম্পাদক শেখ ওয়ালী আসিফ ইনান স্বাক্ষরিত একটি বিজ্ঞপ্তিতে মেয়াদোর্ত্তীণ ও নিষ্ক্রিয়তার অভিযোগ এনে কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণা করা হয়। তারপর থেকেই অনেক পদ-প্রত্যাশীরা কমিটি নিয়ে কেন্দ্রে দৌড়ঝাঁপ শুরু করলে ছাত্রলীগের বিভক্তি বাড়তে শুরু করে। তবে দীর্ঘদিন যাবত কমিটি না হওয়ায় নেতাকর্মীদের মধ্যে কমতে শুরু করেছে কর্ম-উদ্দীপনা।

পদ-প্রত্যাশীদের নেতারা বলছেন, বিএনপি ও সমমনা দলগুলোর ডাকা হরতাল ও অবরোধের কারণে কুবি শাখা ছাত্রলীগের কমিটি গঠন করা হয়নি। কবে গঠন করা হবে সেটিও পরিষ্কার নয়। তবে কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদের কৌশলের অংশ হিসেবে এখনি কমিটি দিচ্ছে না ছাত্রলীগ এটি স্পষ্ট। জাতীয় নির্বাচনের পরেই নতুন কমিটির ঘোষণা আসতে পারে।

তবে এ বিষয়ে মুখ খুলছে না কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদের সমন্বয়করা। কুবি শাখা ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সমন্বয়ক কোহিনূর আকতার রাখি বলেন, দেশের অস্থিতিশীল পরিবেশ হওয়ার কারণে এই মুহূর্তে কমিটি গঠন করা বন্ধ রয়েছে। তফসিল ঘোষণা হয়ে গেছে, নমিনেশন, এমপি ইলেকশন সামনে, এই মুহূর্তে কমিটি কি হবে, নাকি কিছুদিন পরে হবে এটা এখনো সেন্ট্রাল সভাপতি সাধারণ সম্পাদক জানায়নি। কিন্তু উনাদের ইচ্ছা ছিল নির্বাচনের আগেই কমিটি গঠন করার। দেশের এই পরিস্থিতিতে তো আসলে কমিটি গঠন করা সম্ভব হয় না।

আরেক সমন্বয়ক ও কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক আবু ইউনুস বলেন, কমিটি গঠন একটি নিয়মিত প্রক্রিয়া। নির্বাচনের আগে হচ্ছে বা পরে হচ্ছে এটা বলার সুযোগ নেই। যেকোনো সময় কমিটি গঠন হতে পারে।

এদিকে আওয়ামী লীগ ও ছাত্রলীগের কর্মসূচিতে দিন দিন কর্মী সংখ্যা কমতে দেখা গেছে। কর্মীদের মধ্যে নেই উদ্দীপনাও। সবসময় ক্যাম্পাসে অবস্থান করেন না পদ-প্রত্যাশীরাও।

পদ-প্রত্যাশী স্বজন বরণ বিশ্বাস বলেন, কবে কমিটি গঠন করা সে বিষয়ে আসলে সঠিকভাবে বলা যাচ্ছে না। তবে সামনে জাতীয় নির্বাচনকে সামনে রেখে কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদ যদি আমাদের কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের যদি কমিটি দেয় তাহলে গতিশীলতা বৃদ্ধি পাবে। সবাই উৎফুল্লভাবে কাজ করতে পারবে।

আরেক পদ-প্রত্যাশী ২০১৭ সালের বিলুপ্ত কমিটির সাধারণ সম্পাদক রেজা-ই-এলাহী বলেন, কমিটি কখন হবে এটা কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদ বলতে পারবে। কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ যখন ভালো মনে করবে তখনই কমিটি দিবে। এতে আমাদের আসলে কিছু করার নেই। তবে নির্বাচনের আগে হলে ভালো হয়। কারণ সাধারণ কর্মীরা যারা আছে তারা একটু নিষ্ক্রিয় হয়ে গেছে।

এবিষয়ে জানতে চাইলে বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক আবু সাদাত মো. সায়েম বলেন, বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদ কমিটি দেওয়ার বিষয়ে সুনর্দিষ্ট তারিখ না দিলে ও কমিটির বিষয়ে তারা ওয়াকিবহাল। সবাইকে সবার জায়গা থেকে আসন্ন দ্বাদশ জাতীয় নির্বাচনে নৌকার বিজয় নিশ্চিত করতে কাজ করার জন্য সুনির্দিষ্ট নির্দেশনা দিয়েছে।

নজরুল হল শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি (ভারপ্রাপ্ত) নাজমুল হাসান পলাশ বলেন, হয়ত রাজনীতিকে উজ্জীবিত করার স্বার্থে কমিটি হয়নি ছাত্রলীগের। আশাকরি, দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনে বিশাল ব্যবধানে জয়ের পরপরই আমরা ভালো একটি পাব।

শহীদ ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত হলের সাধারণ সম্পাদক এনায়েত উল্লাহ বলেন, নির্বাহী সংসদ যখন ভালো মনে করবেন তখনই কমিটি দিবে। সার্বিক বিষয়ে কথা বলতে গেলে কেন্দ্রীয় সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদককে একাধিকবার কল করাও হলেও যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি।

 
Electronic Paper