ঢাকা, রবিবার, ১৪ এপ্রিল ২০২৪ | ১ বৈশাখ ১৪৩১

Khola Kagoj BD
Khule Dey Apnar chokh

বাড়তি দামে ডলার বিক্রি

৭ মানি চেঞ্জারের লাইসেন্স স্থগিত

অনলাইন ডেস্ক
🕐 ১০:২০ পূর্বাহ্ণ, আগস্ট ৩১, ২০২৩

৭ মানি চেঞ্জারের লাইসেন্স স্থগিত

দেশে ডলারের তীব্র সংকট সৃষ্টি হয়েছে। যার সুযোগ নিচ্ছে কিছু মুনাফা লোভী মহল। ফলে নানা পদক্ষেপ নিয়েও দাম নিয়ন্ত্রণে আনতে পারছে না কেন্দ্রীয় ব্যাংক। বেঁধে দেওয়া দামের চেয়ে ৫ থেকে ৬ টাকা বেশিতে বিক্রি হচ্ছে ডলার। এমন অভিযোগ প্রমাণ হওয়ায় ৭টি মানি চেঞ্জারের ব্যবসার লাইসেন্স স্থগিত করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক।

একই সঙ্গে বেশি দামে ডলার লেনদেন করায় আরও ১০ মানি চেঞ্জারের কাছে ব্যাখ্যা তলব করা হয়েছে। যদি সন্তোষজনক উত্তর না পাওয়া যায় তাদের বিষয়েও সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

বুধবার (৩০ আগস্ট) বাংলাদেশ ব্যাংকের বৈদেশিক মুদ্রানীতি বিভাগ এসব বিষয় সিদ্ধান্ত নিয়েছে। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক ও মুখপাত্র মো. মেজবাউল হক।

তিনি বলেন, কয়েকটি মানিচেঞ্জার দীর্ঘদিন ধরে নির্ধারিত দামের চেয়ে বেশি মূল্যে ডলার বিক্রি করছে। কিন্তু তারা বরাবরই বিষয়টি গোপন করে ভুল তথ্য দিয়ে যাচ্ছে। এমন তথ্যের প্রমাণ পাওয়ায় ৭টি মানি চেঞ্জারের ব্যবসার লাইসেন্স স্থগিত করা হয়েছে। একই সঙ্গে বেশি দামে ডলার লেনদেন অভিযোগ ওঠায় আরও ১০ মানি চেঞ্জারের কাছে ব্যাখ্যা চাওয়া হয়েছে।

লাইসেন্স স্থগিত করা মানিচেঞ্জার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলো হলো—ইয়র্ক মানি এক্সচেঞ্জ, জামান মানি চেঞ্জিং হাউস, জেনি মানি এক্সচেঞ্জ লিমিটেড, স্ট্যান্ডার্ড মানি এক্সচেঞ্জ, মার্সি মানি এক্সচেঞ্জ, জেবি মানি এক্সচেঞ্জ ও বেঙ্গল মানি এক্সচেঞ্জ।

অপরদিক ব্যাখ্যা তলব করা ১০ মানি চেঞ্জার হলো– নিউ প্রাইম মানি চেঞ্জার, উত্তরা মানি চেঞ্জার, মিসা মানি এক্সচেঞ্জ, যমুনা মানি এক্সচেঞ্জ, পাইওনিয়ার মানি এক্সচেঞ্জ, বুড়িগঙ্গা মানি এক্সচেঞ্জ, স্কাফ মানি চেঞ্জার, হযরত খাজা বাবা মুদ্রা বিনিময় কেন্দ্র, গ্লোরি মানি এক্সচেঞ্জ ও মাতৃক মানি চেঞ্জার। এছাড়া মতিঝিলের নিয়ন মানি চেঞ্জার এবং পল্টনের জনী ট্রেডার্সের বিষয়ে যাচাই–বাছাই করা হচ্ছে।

বেশিরভাগ ব্যাংক ও মানি চেঞ্জারে ডলার মিলছে না। ফলে নগদ ডলারের দাম আবারও বেড়ে গেছে। রাজধানীতে খোলাবাজারে প্রতি ডলার ১১৭ থেকে ১১৮ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। বাংলাদেশ ব্যাংকের বেঁধে দেওয়া নিয়ম অনুযায়ী, এখন নগদে প্রতি ডলারের দাম ১১২ টাকা ৫০ পয়সার মধ্যে থাকার কথা। কিন্তু চিকিৎসা, শিক্ষা বা ভ্রমণের জন্য যারা বিদেশে যাচ্ছেন তাদের প্রতি ডলার কিনতে নগদ খরচ করতে হচ্ছে ১১৮ টাকা পর্যন্ত।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে মানি চেঞ্জার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের মহাসচিব সেখ মো. হেলাল সিকদার বলেন, ডলারের চাহিদা বাড়ার সুযোগে কেউ বাজার অস্থির করার অপচেষ্টা চালাতে পারে। যারা নিয়ম না মেনে ব্যবসা করছে তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া দরকার। আর বাংলাদেশ ব্যাংক সেই কাজটি করছে। অতি মুনাফাখোরদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা না নিলে সৎ ব্যবসায়ীরা টিকতে পারবে না বলে দাবি করেন তিনি।

রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ শুরুর পর গত বছরের মার্চ থেকে দেশে ডলার-সংকট প্রকট আকার ধারণ করে। এ সংকট মোকাবিলায় শুরুতে ডলারের দাম বেঁধে দেয় বাংলাদেশ ব্যাংক। কিন্তু এতে সংকট আরও বেড়ে যায়। পরে গত সেপ্টেম্বরে বাংলাদেশ ব্যাংক ডলারের দাম নির্ধারণের দায়িত্ব থেকে সরে দাঁড়ায়। এ দায়িত্ব দেওয়া হয় ব্যাংকের শীর্ষ নির্বাহীদের সংগঠন অ্যাসোসিয়েশন অব ব্যাংকার্স বাংলাদেশ (এবিবি) ও বাংলাদেশ ফরেন এক্সচেঞ্জ ডিলারস অ্যাসোসিয়েশনের (বাফেদা) ওপর। এই দুই সংগঠন মিলে রপ্তানি ও প্রবাসী আয় এবং আমদানি দায় পরিশোধের ক্ষেত্রে ডলারের দাম নির্ধারণ করে আসছে।

সবশেষ নির্ধারিত দাম অনুযায়ী, গত ১ আগস্ট থেকে রপ্তানিকারকদের প্রতি ডলারের দাম ১০৮ টাকা ৫০ পয়সা, রেমিট্যান্স বা প্রবাসী ডলার ১০৯ টাকা। এছাড়া আমদানিতে ডলারের সর্বোচ্চ দর ১০৯ টাকা ৫০ পয়সা।

বাংলাদেশ ব্যাংকের সবশেষ তথ্য অনুযায়ী, আন্তঃব্যাংকে ডলার লেনদেন হচ্ছে ১০৯ টাকা ৫০ পয়সা।

 
Electronic Paper