পুলিশের কাজ সহায়তা

ঢাকা, শনিবার, ৪ জুলাই ২০২০ | ১৯ আষাঢ় ১৪২৭

সবার উপরে মানুষ সত্য

পুলিশের কাজ সহায়তা

আহমেদ রেজা ৮:১৬ পূর্বাহ্ণ, জুন ০৩, ২০২০

print
পুলিশের কাজ সহায়তা

দেশের মানুষ এবার ভিন্নতর ঈদ উদযাপন করছে নিজ নিজ বাসায়। মূলত করোনাভাইরাস বিশ^কে থমকে দিয়েছে। যা মানুষের স্বাভাবিক জীবনযাপনে বিরাট বাধাও।

আর তাই তো দেশের মানুষ নীরবে ঈদ পালন করেছে নিজ গৃহে। যা বিরল ঘটনা। যদিও অনেকে পরিবারের সঙ্গে ঈদ উদযাপন করতে পারেনি এবার। কিন্তু ভাবুন তো, দেশের একশ্রেণির মানুষ আছে যারা দিন-রাত অক্লান্ত পরিশ্রম করে যাচ্ছে প্রতিটি ঈদে, প্রতিদিন। তারা পরিবার ছেড়ে বহুদূরে থেকে প্রায় সব সময় ঈদ পালন করে।

এই মানুষদেরও পরিবার আছে, তারা মা-বাবা, ভাইবোন, স্ত্রী-সন্তানকে রেখেই আনন্দ খুঁজে নেওয়ার চেষ্টা করেন দেশসেবায়। করোনা প্রতিরোধ ও নিরাপদ সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করতে তারা ২৪ ঘণ্টা কাজ করে যাচ্ছেন। অনেকটা ঝুঁকির মধ্যেই। ইতোমধ্যে যারা শহর ছেড়েছেন তাদের ঘর-বাড়ির নিরাপত্তা বিধানেও পুলিশ কাজ করছে নীরবে। মূলত এ পুলিশ সদস্যরা জনগণের সব ধরনের কাজের সঙ্গে ছায়া হয়ে থাকে। রাষ্ট্রের সব নির্দেশনা পুলিশ পালন করে নিষ্ঠার সঙ্গেই।

তাই পুলিশ ঈদের আনন্দ খুব একটা ভোগ করতে পারে না পরিবারের সঙ্গে। কিন্তু পুলিশ প্রকৃত আনন্দ খুঁজে নেয় অপরের আনন্দের সহযোগী হিসেবে। নিজেদের আবেগ লুকিয়ে মানুষের ঘরে ফেরার যাত্রাকে অর্থাৎ প্রিয়জনের কাছে যাওয়ার জন্য যে আকুলতা তা নিরাপদ ভ্রমণের মাধ্যমে নিশ্চিতে নিরলস সেবা দিয়ে যাচ্ছে। অন্যদিকে পুলিশ নিজ পরিবারকে নানাভাবে অবশ্যই বোঝানোর চেষ্টা করে, আমরা দেশের সেবায় আছি, ঈদ পরে হবে। তাছাড়া আমাদের ঈদ মানে সবার জন্য নিরাপদ ঈদ নিশ্চিত করা।

পুলিশ পরিবারের সদস্যদের হয়তো বোঝানো এতটা সহজ হয় না, কারণ পরিবারে তিনি কারো বাবা, কারো সন্তান কিংবা কারও স্বামী। তাই পরিবারে সবার ঈদের পরিপূর্ণ আনন্দ কিছুটা হলেও কমে যায়। আপনি হয়তো পরিবারে অনেক আনন্দ করেন প্রিয়জনের সঙ্গে, তখন পুলিশ ও তার পরিবারে কী অবস্থা হয় ভেবেছেন কখনো? এ বছর একদিকে করোনাভাইরাসের আতঙ্ক, অন্যদিকে নিয়মিত চেকপোস্টসহ নানা ধরনের কার্যক্রম পুলিশ সম্পাদন করছে। শুধুই দেশের মানুষের জন্য। তাছাড়া সড়ক পথে, নৌপথে কার্যক্রম জোরদার আছে। এমনকি ফেরিঘাটে দায়িত্বপালন করছে পুলিশ। প্রতিটি মানুষের জীবনই মহামূল্যবান। এ সময়ে পুলিশ ব্যাপক কাজ করেছেন যা দৃশ্যমান।

সবাইকে সামাজিক দূরত্ব মেনে ঈদের আনন্দ উপভোগ করার কথা বলা হয়েছে ইতিমধ্যে। আশা করা যায়, করোনা শেষে আগামী বছর সম্মিলিতভাবে ঈদ উদযাপন করবে দেশ।

আহমেদ রেজা : উপ-পরিদর্শক, ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ