মহাবিস্ময়ের মহাসাগর

ঢাকা, শুক্রবার, ৭ আগস্ট ২০২০ | ২২ শ্রাবণ ১৪২৭

মহাবিস্ময়ের মহাসাগর

আবিদ আরিফিন ওহী ১২:০৯ অপরাহ্ণ, জুলাই ১১, ২০২০

print
মহাবিস্ময়ের মহাসাগর

পৃথিবী একসময় ছিল জলন্ত আগ্নেয়গিরি। এই আগ্নেয়গিরির বাষ্প থেকে সৃষ্টি মেঘের। মেঘ থেকেই সৃষ্টি বৃষ্টির। এরপর কোটি কোটি বছর বৃষ্টি হতে থাকে।

এভাবেই সৃষ্টি হয় মহাবিস্ময়ের মহাসাগর। পৃথিবীর বুকে রয়েছে প্রশান্ত, আটলান্টিক, ভারত, আর্কটিক ও অ্যান্টার্কটিকা মহাসাগর। পৃথিবীর ৭০ ভাগই এসকল মহাসাগরের দখলে। মহাসাগর কখনো থেমে থাকে না। এর কারণ তরঙ্গ, স্রোত ও জোয়ার ভাটা।

মহাসাগরেই বাস করে বর্তমান বিশ্বের সবচেয়ে বড় প্রাণী নীল তিমি। যার আকার ৩০ মিটারেরও বেশি। সাগরে প্রচুর ছোট্ট প্রাণী ও উদ্ভিদ জন্মে। এদের বলে প্লাঙ্কটন। সমুদ্রপাড়ে প্রচুর সামুদ্রিক শৈবাল জন্মে। যাকে বলে কেল্প। এগুলো অপরূপ সুন্দর। সমুদ্রের নিচে একধরনের সামুদ্রিক বনফুল থাকে। যার নাম সি অ্যানামোনে।

সব শেষে বন্ধুরা, তোমাদের জন্য একটি চমক। সামুদ্রিক মাছের মধ্যে ক্লিনারার রাসে নামের একটি মাছ রয়েছে। যার অর্থ পরিষ্কারক মাছ। মাছটির মুখের সামনে আসা সবকিছুকে সে পরিষ্কার করে দিতে পারে। মহাসাগরগুলো আমাদের বিশ্ব ও আমাদের জন্য উপহারস্বরূপ।

ষষ্ঠ শ্রেণি, শিরোইল সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়, রাজশাহী