কাদা মাখার উৎসব

ঢাকা, রবিবার, ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২১ | ১৫ ফাল্গুন ১৪২৭

কাদা মাখার উৎসব

ডেস্ক রিপোর্ট ১০:৩৪ পূর্বাহ্ণ, জানুয়ারি ২৪, ২০২১

print
কাদা মাখার উৎসব

রোগবালাই থেকে রেহাই পেতে ব্রাজিলের রেড ইন্ডিয়ানরা গায়ে কাদা মাখত। সেই কাদা সারা শরীরে নিয়ে সারা দিন রোদে বসে থাকত। কাদা শুকিয়ে গেলে শরীর থেকে তা তুলে ফেলত। তাদের বিশ্বাস ছিল, কাদা মাখার ফলে কোনো রোগবালাই তাদের শরীরে বাসা বাঁধবে না। সেই ধারণা থেকে ১৯৮৬ সালের দিকে ব্রাজিলের প্যারোটি শহরে ছোট পরিসরে এ উৎসবের আয়োজন করা হয়। পরবর্তী সময়ে সেই উৎসব এখন ব্রাজিলের হাজারো মানুষের সর্বজনীন উৎসবে পরিণত হয়েছে।

উৎসব যখন শুরু হয়, তখন সবাই একসঙ্গে কর্দমাক্ত ভূমিতে ঝাঁপিয়ে পড়েন। গড়াগড়ি খান। একে অন্যের দিকে ছুড়ে মারেন কাদার দলা। কাদায় মাখামাখি হয়ে তখন হারিয়ে যায় সত্যিকারের চেহারা, কিন্তু আনন্দটা এখানেই। কাদা উৎসব এখন আর নির্দিষ্ট জায়গার মানুষের আনন্দ উপলক্ষেই আবদ্ধ নেই, বর্তমানে এটি পরিণত হয়েছে ব্রাজিলের রাষ্ট্রীয় পর্যটন বিনোদনে। প্রকৃতির ছোঁয়ায় সজ্জিত লাতিন আমেরিকার সবচেয়ে বড় অর্থনৈতিক শক্তি ব্রাজিল এমনিতেই সেজে আছে দুরন্ত প্রাকৃতিক সৌন্দর্যে। প্যারেটির কাদা উৎসব যত দিন যাচ্ছে, ততই আকৃষ্ট করছে বিশ্ব পর্যটকদের। বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তের মানুষ এখন অধীর আগ্রহে অপেক্ষায় থাকেন ব্রাজিলে এসে গায়ে কাদা মাখানোর জন্য। আর এ সুযোগে ব্রাজিলের পর্যটন কর্তৃপক্ষ এ উৎসবকে ঘিরে তৈরি রেখেছে পর্যটকদের জন্য নানা ধরনের সুযোগ-সুবিধা।