ভাষাহীন জাতি

ঢাকা, শনিবার, ২৩ জানুয়ারি ২০২১ | ১০ মাঘ ১৪২৭

ভাষাহীন জাতি

ডেস্ক রিপোর্ট ১০:৩০ পূর্বাহ্ণ, নভেম্বর ২৫, ২০২০

print
ভাষাহীন জাতি

বিচিত্র পৃথিবীতে এমন এক জাতি আছে যারা পাখির ভাষায় কথা বলে। তারা এক পাহাড়ের ওপর থেকে আর এক পাহাড়ে আওয়াজ পাঠায় পাখির ভাষায়। তুরস্ক, স্পেন এবং গ্রিসের প্রত্যন্ত কিছু অঞ্চলে আজও কালের সাক্ষী হয়ে টিকে আছে পাখির ভাষা। এমনকি তাদের কথ্য বা লেখ্য ভাষার সাংকেতিক সংস্করণ হিসেবে পাখির শিসই যোগাযোগের মাধ্যম। এই শিসভাষা যে শুধু বিচ্ছিন্ন কিছু আওয়াজ, তা কিন্তু নয় বরং অনেক বেশি কাঠামোবদ্ধ ও ব্যাকরণসম্মত। পৃথিবীতে এ পর্যন্ত প্রায় ৭০টি স্বীকৃত শিসভাষা নথিভুক্ত আছে। যাদের অধিকাংশই এখন বিলুপ্ত বা বিলুপ্তির পথে।

একদিকে পন্টিক পর্বত, আরেকদিকে কৃষ্ণসাগর। এর মাঝে সানাকসি জেলার এক অনিন্দ্য সুন্দর গ্রাম, নাম কুস্কয়। প্রায় ১০ হাজার মানুষের বাস এখানে। চা আর হ্যাজলনাটের বাগানে ছাওয়া গ্রামের কেন্দ্রে সাদা একটা মিনার আর ছোট্ট গম্বুজওয়ালা একটা মসজিদ। আজানের সুমিষ্ট সুরের সঙ্গে ঘন ঘন আপনার কানে ভেসে আসবে পাখির আওয়াজ। কী দিন, কী রাত! সবটা অবশ্য পাখির আওয়াজ নয়। সেখানকার মানুষই পরস্পরের সঙ্গে যোগাযোগ করে পাখির ভাষা তথা শিসের সাহায্যে। সেখানকার মানুষের কাছে আদুরে এ ভাষাটির নাম ‘কুসদিলি’, যার অর্থও পাখির ভাষা বা শিস।