আগুন ঝরনা

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৯ জুলাই ২০২১ | ১৪ শ্রাবণ ১৪২৮

Khola Kagoj BD
Khule Dey Apnar chokh

আগুন ঝরনা

ডেস্ক রিপোর্ট
🕐 ১১:৩৬ পূর্বাহ্ণ, নভেম্বর ২১, ২০২০

আগুন ঝরনা

নিকষ কালো পাহাড়, তার উপর সাদা বরফের স্তর। গায়ে আগুনে লাল রঙের আভা, এ যেন স্বর্গীয় দৃশ্য। তবে এমন চমক শুধু দেখা যায় ফেব্রুয়ারি মাসেই। ক্যালিফোর্নিয়ার ইয়সমাইট ভ্যালিতে গেলে দেখা যাবে চোখ জুড়ানো ফায়ারফলস। এমন বিরলতম অভিজ্ঞতার সাক্ষী থাকতে ক্যালিফোর্নিয়ায় ছুটে আসেন পর্যটকরা। শীত থেকে শুরু করে বসন্তের প্রাক্কালে শুরু হয় ফায়ারফলস। সূর্যের আলোয় জলপ্রপাতের জলের রং হয়ে ওঠে উজ্জ্বল কমলা। দূর থেকে মনে হবে পাহাড়ের গাঁ বেয়ে আগ্নেয়গিরির একটি শাখা নেমে যাচ্ছে। মনে হবে পাহাড়ে লাভা যেন পাহাড়ের গাঁ বেয়ে চুইয়ে চুইয়ে পড়ছে।

ক্যালিফোর্নিয়ার সিয়েরা নেভাদায় এই জাতীয় উদ্যান। এটি অত্যন্ত শান্ত প্রাকৃতিক উদ্যান। সবুজ বড় বড় ফার্ণ, পাইন গাছে ভর্তি পার্কের মধ্যেই মাথা উঁচু করে রয়েছে পাহাড়। যেখানে শীতকালে, পাহাড়ের চূড়ায় বরফের স্তর পড়ে থাকে। শীত, বসন্তে পর্যটকদের প্রথম পছন্দ এই উপত্যকার হর্সটেল ফল। যা ফায়ারফল নামেও পরিচিত।

যদিও পুরো বিষয়টিই প্রাকৃতিক। তবে এর পিছনে রয়েছে একটি কাহিনী। ইয়সমাইটের বাসিন্দা মনে করতেন, ওই জলপ্রপাতের নিচে কেউ বনফায়ার করে আনন্দ করছে। প্রতিদিন রাত ৯টা নাগাদ টানা ১০দিন ধরে সেখানে আগুন জ্বেলে রাখে কেউ। তার জন্যই ওই ঝরনাটিও তেমনি আগুন-জলে পরিণত হয়। এমনটা ভাবনার পর থেকে জলপ্রপাতের খুব কাছে গিয়ে আগুন জ্বালিয়ে বসে থাকাটা একটা প্রথা হয়ে দাঁড়ায়। ১৯৬৮ সালের পর থেকে ওই জায়গায় মানুষের যাওয়ার উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়। শত শত বছর ধরে এই উপত্যকায় বসবাসকারী আওয়াহিনীচি ইন্ডিয়ানরা সম্ভবত এর অস্তিত্ব সম্পর্কে জানতেন।

 
Electronic Paper