মমি রহস্য

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৬ জানুয়ারি ২০২১ | ১২ মাঘ ১৪২৭

মমি রহস্য

ডেস্ক রিপোর্ট ১০:৩৩ পূর্বাহ্ণ, নভেম্বর ১৮, ২০২০

print
মমি রহস্য

‘মমি’ শব্দটি শুনলেই নিশ্চয়ই ভয়ঙ্কর এক অনুভূতির সৃষ্টি হয়! পিরামিডের ভিতর অন্ধকার ঘরে একটা বাক্স, তার ভিতর সারা শরীর ব্যান্ডেজের মতো করে প্যাঁচানো একটা লাশ।

এমনকি মিসরের নাম শুনলেও পিরামিডের সঙ্গে সঙ্গে মমির কথা মনে পড়ে যায়। ‘মমি’ শব্দটি এসেছে ফ্রেঞ্চ শব্দ ‘মোমি’ থেকে। কিন্তু শব্দটির মূল উৎস হলো পারস্য শব্দ ‘মোম’। আর এই মোম থেকে এসেছে আরবি ও ল্যাটিন শব্দ ‘মুমিয়া’। মুমিয়া থেকে এখন এই শব্দটি হয়ে গিয়েছে ‘মমি’। 

অনেকের মতে মমি বানানো প্রথম শুরু করে মিসর। তবে ইতিহাস খুঁজলে দেখা যায়, মিসরীয়দের এক হাজার বছর আগেই উত্তর চিলি আর দক্ষিণ পেরুতে মমি বানানো হতো। ব্রিটিশ মিউজিয়ামে তার কিছু ধ্বংসাবশেষও আছে।

প্রাচীন মিসরীয়রা মনে করত মৃত্যুর পর, মানুষ পরকালে তাদের জীবন আবার ফিরে পাবে। আর সেই জীবনে যাওয়ার জন্য তাদের মৃতদেহ সংরক্ষণ করে রাখতে হবে। আর এই সংরক্ষণ করে রাখার জন্য মমি তৈরি করা হতো। তবে মমি কেবল মিসরের ধনী ও উচ্চবর্গীয় ব্যক্তিদেরই করা হতো।