গোয়াইনঘাটে পর্যটকের ঢল

ঢাকা, সোমবার, ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯ | ১ আশ্বিন ১৪২৬

গোয়াইনঘাটে পর্যটকের ঢল

শাহ আলম, গোয়াইনঘাট (সিলেট) ৪:০৪ অপরাহ্ণ, আগস্ট ১৭, ২০১৯

print
গোয়াইনঘাটে পর্যটকের ঢল

ঈদের টানা ছুটিতে প্রতিকূল আবহাওয়া উপেক্ষা করেও পর্যটকদের ঢল নেমেছে সিলেটের গোয়াইনঘাট উপজেলার পর্যটন স্পট জাফলং ও বিছনাকান্দিতে। ঈদের পরদিন থেকেই ভ্রমণপিপাসুরা ভিড় করছেন এ পর্যটন কেন্দ্রগুলোতে। সরকার এখানকার পর্যটনের দিকে নানা উন্নয়ন করার ফলে দেশের অপরাপর পর্যটন কেন্দ্রগুলোর মতো এখানকার প্রকৃতি সেজেছে বিভিন্ন সাজে। প্রাকৃতিক সম্পদে ভরপুর এসব সৌন্দর্য উপভোগ করতে ছুটে এসেছেন দেশের নানা প্রান্ত থেকে প্রায় লক্ষাধিক ভ্রমণপিপাসু। প্রকৃতিকন্যা জাফলংয়ে সারা বছর পর্যটক লেগেই থাকে। ঈদ মৌসুম এলে যেন এখানে পর্যটকদের সমাগম থাকে চোখে পড়ার মতো। দেশি পর্যটকদের পাশাপাশি এখানে বিদেশি পর্যটকদেরও কমতি থাকে না। আর এসব পর্যটকের থেমে নেই তাদের বাঁধভাঙা উল্লাসের।

পাশাপাশি জাফলংয়ের মায়াবী ঝর্ণা, প্রকৃতির অপ্সরাখ্যাত বিছনাকান্দি, রাতারগুল, পান্তুমাইয়ের ফাটাছড়ায়ও অনেক পর্যটক লক্ষ করা যাচ্ছে। প্রাকৃতিক এই পর্যটন কেন্দ্রগুলোর সৌন্দর্য খুব সহজেই আকৃষ্ট করে ভ্রমণপিয়াসী পর্যটকদের।

এর মধ্যে অন্যতম হচ্ছে দেশ-বিদেশের বিভিন্ন জায়গায় পরিচিতি পাওয়া প্রকৃতিকন্যা বিছনাকান্দি। প্রকৃতি এখানে যেন প্রতিনিয়ত হাতছানি দিয়ে ডাকে পর্যটকদের। কিন্তু এখানকার বেহাল সড়কের কারণে পর্যটকদের ভ্রমণ যেন কিছুটা বিঘ্নিত হয়।

গতকাল শুক্রবার জাফলং পরিদর্শনে গিয়ে দেখা যায়, জাফলং জিরো পয়েন্টে দাঁড়িয়ে কেউ কেউ ভারতের ঝুলন্ত ব্রিজ দেখছেন আর সেলফি তুলছেন। পিয়াইনের স্বচ্ছ জলে গা ভিজিয়ে সাঁতার কাটছেন অনেকেই।

ময়মনসিংহ থেকে আসা আলাউদ্দিন জানান, ঈদের ছুটি কাটাতে পরিবার নিয়ে এবারও তিনি জাফলংয়ে এসেছেন। তবে এর আগে অনেকবার এলেও এখানকার প্রাকৃতিক মায়া যেন তাকে ঘাপটে রেখেছে। তবে আগেরবারের চেয়ে এবার রাস্তাঘাটের উন্নতি এবং পর্যটনের উন্নয়নে তার কাছে স্বস্তি ফিরে এসেছে।

মায়াবী ঝর্ণায় কথা হয় শ্রীমঙ্গল থেকে আসা ঝুমা বৈদ্য নামে এক তরুণীর সঙ্গে। তিনি বলেন, জাফলংয়ে তিনি অনেকবার এসেছেন। এখানকার প্রাকৃতিক সৌন্দর্য তার হৃদয় কেড়েছে। ঝর্ণার শীতল জলে গা ভেজানো, সবুজ পাহাড় আর নুড়ি পাথরসহ সব কিছুরই প্রেমে পড়ে গেছেন তিনি।

গোয়াইনঘাট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) বিশ্বজিৎ কুমার পাল জানান, সরকার পর্যটনের প্রতি বিশেষ গুরুত্ব দেওয়ার কারণে সারা বছরই গোয়াইনঘাটের পর্যটন কেন্দ্রগুলোতে পর্যটকদের উপচেপড়া ভিড় থাকে।

ঈদে পর্যটকরা যাতে স্বাচ্ছন্দ্যে ও নিরাপদে ভ্রমণ করতে পারেন সে লক্ষ্যে পর্যটন কেন্দ্রগুলোতে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে। পাশাপাশি এখানে টুরিস্ট পুলিশ, থানা পুলিশ, বিজিবি, আনসার ও রোভার স্কাউটের সদস্যরা নিয়মিত দায়িত্ব পালন করছেন।