মজুরি বৈষম্যের শিকার আদিবাসী নারীরা

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০১৯ | ৩ শ্রাবণ ১৪২৬

মজুরি বৈষম্যের শিকার আদিবাসী নারীরা

মাধবপুর (হবিগঞ্জ) প্রতিনিধি ৪:২৩ অপরাহ্ণ, জুন ২৯, ২০১৯

print
মজুরি বৈষম্যের শিকার আদিবাসী নারীরা

হবিগঞ্জের মাধবপুর উপজেলার চা বাগানের আদিবাসী নারী শ্রমিকরা ন্যায্য মজুরি থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন। বাগানের ভিতরে শ্রমিকদের কাজ না থাকায় বেকার শ্রমিকরা বাগানের বাইরে কৃষিকাজ করে জীবিকা নির্বাহ করছেন।

উপজেলার জগদীশপুর, শাহজাহানপুর, নোয়াপাড়া ইউনিয়নে বিভিন্ন মৌসুমে সবজি ও কৃষি ক্ষেতে সকাল সন্ধ্যা নারী শ্রমিকরা কঠোর শ্রম দিয়ে থাকেন। তারা পুরুষ শ্রমিকের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে দক্ষতার সঙ্গে সবজি ক্ষেতে কাজ করতে পারদর্শি। কিন্তু তারা নারী বলে পুরুষের চেয়ে কমপক্ষে ৫০ টাকা কম মজুরি পেয়ে থাকেন।

মাধবপুর উপজেলার সুরমা, তেলিয়াপাড়া, জগদীশপুর, বৈকুণ্ঠপুর, নোয়াপাড়া ও চুনারুঘাট চা বাগানের আদিবাসী নারী শ্রমিকরা জীবন জীবিকার জন্য এসব সবজি ক্ষেতে মাথার ঘাম পায়ে ফেলে শ্রম দিয়ে থাকে। কিন্তু এসব আদিবাসী নারী শ্রমিক ন্যায্য মজুরি পাচ্ছেন না। স্বল্প মজুরি দিয়ে তাদের জীবন জীবিকা নির্বাহ করা কঠিন হয়ে পড়েছে। কিন্তু অন্য কোনো কাজ না থাকায় এ স্বল্প মজুরিতেই তারা কাজ করে যাচ্ছেন।

এ ব্যাপারে মাধবপুর উপজেলার মহিলাবিষয়ক কর্মকর্তা জান্নাত সুলতানা বলেন, নারী-পুরুষ সবাই সমান। নারী হিসেবে তাদের কম মজুরি দেওয়া এটা ঠিক নয়। যাতে কোনো নারী শ্রমিক মজুরি অধিকার থেকে বঞ্চিত না হয় এ ব্যাপারে সচেতনতা সৃষ্টি করা হচ্ছে। নারীদের বিভিন্ন অধিকারে সচেতনতা সৃষ্টি করতে চা বাগানে সুবিধা বঞ্চিত নারীদের নিয়ে প্রতি সপ্তাহে বিভিন্ন সভা করা হচ্ছে।