অধরা মূল আসামিরা

ঢাকা, শনিবার, ১৯ অক্টোবর ২০১৯ | ৩ কার্তিক ১৪২৬

হাওর আন্দোলন নেতা আজাদ হত্যা

অধরা মূল আসামিরা

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি ৯:৩৭ অপরাহ্ণ, জুন ১৬, ২০১৯

print
অধরা মূল আসামিরা

গত ১৪ মার্চ রাতে দুর্বৃত্তদের হামলায় গুরুতর আহত হন হাওর বাঁচাও সুনামগঞ্জ বাঁচাও আন্দোলন সদর উপজেলা কমিটির যুগ্ম-আহ্বায়ক আজাদ মিয়া। এর তিন দিন পর ১৮ মার্চ সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান তিনি। আজাদ মিয়া হত্যাকাণ্ডের তিন মাস পার হলেও মামলায় এজহারভুক্ত মূল আসামিরা এখনো ধরা ছোঁয়ার বাইরে। মামলার অন্যতম আসামি মোল্লাপাড়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান নুরুল হক এক মাসের জামিন নিয়েছেন হাইকোর্ট থেকে। বাকি আসামিরা এখনো আত্মগোপনে রয়েছে।

আজাদ মিয়ার খুনিদের গ্রেফতার ও শাস্তির দাবি জানিয়েছেন পরিবার ও হাওর আন্দোলনের নেতারা। রোববার দুপুরে আলফাত উদ্দিন স্কয়ারে এ দাবিতে মানববন্ধন করেছে হাওর বাঁচাও সুনামগঞ্জ বাঁচাও আন্দোলন সদর উপজেলা কমিটি। মানববন্ধনে উপস্থিত ছিলেন সদর উপজেলার বিভিন্ন পর্যায়ের শতাধিক মানুষ।

সদর উপজেলা কমিটির আহ্বায়ক চন্দন রায়ের সভাপতিত্বে ও সদস্য সচিব শহীদ নূর আহমেদের সঞ্চালনায় মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন সংগঠনের কেন্দ্রীয় কমিটির সিনিয়র সহ-সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা আবু সুফিয়ান, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক সালেহীন চৌধুরী শুভ, সাংগঠনিক সম্পাদক এমরানুল হক চৌধুরী, এ কে কুদরত পাশা, মোল্লাপাড়া ইউনিয়ন কমিটির সাধারণ সম্পাদক আল-আমিন, সাবেক ইউপি সদস্য হাবিবুর রহমান, নিহত আজাদের ছোট ভাই আফরোজ রায়হান প্রমুখ।

বক্তারা বলেন, আজাদ মিয়া হাওর আন্দোলনের একজন সক্রিয় সদস্য ছিলেন। বিগত সময়ে হাওরে অনিয়ম দুর্নীতির প্রতিবাদ করেছিলেন তিনি। তাই দুর্নীতিবাজ চক্র রাতের আঁধারে ভাড়াটে খুনি দিয়ে আজাদকে নির্মমভাবে হত্যা করে। আন্দোলনকারীরা উদ্বেগ প্রকাশ করে বলেন, আজাদ হত্যাকাণ্ডের তিন মাস পার হয়ে গেল। অথচ মামলার এজহারভুক্ত মূল আসামিদের গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ। আসামিরা আত্মগোপনে থেকে মামলা তুলে নেওয়ার জন্য আজাদের পরিবারকে হুমকি দিয়ে আসছে।

বক্তারা বলেন, মূলহোতা নুরুল হক হাইকোর্ট থেকে এক মাসের জামিন নিয়েছেন। কিছুদিনের মধ্যে নিম্ন আদালতে হাজির হবেন নুরুল হক। ন্যায়বিচার ও আজাদ হত্যাকাণ্ডের রহস্য উদ্ঘাটনের স্বার্থে নুরুল হককে গ্রেফতার দেখিয়ে রিমান্ডে নেওয়ার দাবি জানান বক্তারা। এছাড়া দ্রুত সময়ের মধ্যে এজহারভুক্ত আসামি পাভেল মিয়া ও রিপন মিয়াকে গ্রেফতারের দাবি জানান তারা। নতুবা আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার প্রত্যয় ব্যক্ত করেন।

মানববন্ধনে উপস্থিত ছিলেন, কবি ও সাহিত্যিক ইকবাল কাগজী, হাওর বাঁচাও সুনামগঞ্জ বাঁচাও আন্দোলনের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য অনিমেষ পাল ভানু, আনোয়ারুল হক, সদর উপজেলা কমিটির যুগ্ম-আহ্বায়ক মুক্তিযোদ্ধা মনির উদ্দিন, সোহেল মিয়া, সদস্য শরিফ মিয়া, মুক্তিযোদ্ধা রাসেদ আলী, মোল্লাপাড়া ইউনিয়ন কমিটির সহ-সভাপতি জামাল উদ্দিন প্রমুখ।