ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০২৪ | ২ শ্রাবণ ১৪৩১

Khola Kagoj BD
Khule Dey Apnar chokh

চমক দেখালেন ‘চা-কন্যা’ খায়রুন

অনলাইন ডেস্ক
🕐 ২:১৬ অপরাহ্ণ, জুন ০৬, ২০২৪

চমক দেখালেন ‘চা-কন্যা’ খায়রুন

চুনারুঘাট উপজেলায় মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে বিজয়ী হয়ে চমক দেখালেন আলোচিত ‘চা-কন্যা’ খাইরুন আক্তার। গতকাল বুধবার অনুষ্ঠিত উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে কলস প্রতীকে প্রায় ৬৪ হাজার ভোটের ব্যবধানে তিনি বিজয়ী হন। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী চারজন প্রার্থী জামানত হারিয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী কাজী সাফিয়া আক্তার হাঁস প্রতীকে ১২ হাজার ২১ ভোট, আবিদা খাতুন ফুটবল প্রতীকে ৮ হাজার ৮৭৩ ভোট, পারুল আক্তার পদ্মফুল প্রতীকে পান ৩ হাজার ১৩৮ ভোট, ইয়াসিন আক্তার মুক্তা বৈদ্যুতিক পাকা প্রতীকে ৪ হাজার ১৬৮ ভোট পেয়েছেন।

 

খায়রুন আক্তার এ বিজয়ে আনন্দ এবং সবার প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে লেখেন, ‘আলহামদুলিল্লাহ, আপনাদের ভালোবাসা ও দোয়ায় আমি চুনারুঘাট উপজেলা নির্বাচনে মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে নির্বাচিত হয়েছি। নির্বাচনের এই বিজয় আমার একার নয়, এই বিজয় পুরো চুনারুঘাট উপজেলাবাসীর। আপনাদের পরিশ্রম বৃথা যায়নি, আপনারা সবাই যে যেখান থেকে যেভাবে নিজ অবস্থান থেকে আমাকে সাহায্য, সহযোগিতা ও পরামর্শ দিয়েছেন, সবার প্রতি চিরকৃতজ্ঞ আমি। সবাই আমার জন্য দোয়া করবেন, আপনাদের দেওয়া কথা যেন রাখতে পারি।’

স্থানীয়রা জানান, চা বাগানের শ্রমিকরা সভা ডেকে তাকে প্রার্থী করেছেন। মনোনয়ন ফরম কেনা, প্রচারণার কাজসহ সব ব্যয় মিটিয়েছেন তারা। ১০ টাকা করে গণচাঁদা তুলে, নানাজনের কাছ থেকে সহায়তা নিয়ে সেই খরচের ধাক্কা সামলানো হয়েছে। খায়রুনের বিজয়ে চা বাগানগুলোতে রীতিমতো উৎসব বিরাজ করছে।

খায়রুন আক্তার উপজেলার চান্দপুর চা বাগানের পাশে মা মল্লিকা খাতুনকে নিয়ে থাকেন তিনি। মা হাঁস-মুরগি বিক্রি করে ১০ হাজার টাকা দিয়েছেন নির্বাচনের জন্য। স্থানীয় একটি এনজিও থেকে ৫০ হাজার টাকা ঋণ নিয়েছেন।

উল্লেখ্য, চুনারুঘাট উপজেলার ‘চা-কন্যা’ খায়রুন আক্তার। চা শ্রমিকদের বিভিন্ন আন্দোলন-সংগ্রামে নেতৃত্ব দিয়ে সব মহলেই পরিচিত। স্থানীয় লোকজনের কাছে খায়রুন ‘চা-কন্যা’, ‘অগ্নিকন্যা’, ‘স্লোগানকন্যা’সহ বিভিন্ন নামে পরিচিত। চা বাগানে ছোট থেকে বড় সবাই তাকে ‘দিদি’ বলে ডাকে। এ পরিচিতিকে কাজে লাগিয়ে এবারের উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে অংশ নেন খায়রুন। প্রতীক পান ‘কলস’। শুরু থেকেই আলোচনার কেন্দ্রে থাকা খায়রুন শেষ পর্যন্ত বাজিমাত করেছেন।

 
Electronic Paper