ম্যাচ আয়োজনটাই কঠিন চ্যালেঞ্জ

ঢাকা, রবিবার, ৬ ডিসেম্বর ২০২০ | ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৭

ম্যাচ আয়োজনটাই কঠিন চ্যালেঞ্জ

ক্রীড়া প্রতিবেদক ১১:৪২ পূর্বাহ্ণ, অক্টোবর ২২, ২০২০

print
ম্যাচ আয়োজনটাই কঠিন চ্যালেঞ্জ

নির্বাচন শেষ। বাফুফে’র নির্বাচিত কমিটিরা পরিকল্পনা আঁকছেন ফুটবল মাঠে গড়ানো নিয়ে। সম্প্রতি বাফুফে ঘোষনা দিয়েছিলো নেপালের বিপক্ষে দুটি প্রস্তুতি ম্যাচের। আগামী ১৩ ও ১৭ নভেম্বর ঢাকা বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামে তা গড়ানোর কথা। কিন্তু করোনাকালে ম্যাচ আয়োজনে নতুন চ্যালেঞ্জ দেখছেন বাফুফে সহ সভাপতি ও জাতীয় টিমস কমিটির চেয়ারম্যান কাজী নাবিল আহমেদ। গতকাল অনলাইনে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এমনি কথা শুনিয়েছেন সহসভাপতি পদে সর্বাধিক ভোট পাওয়া কাজী নাবিল।

তিনি বলেছেন,‘অবশ্যই ম্যাচ দুটি আয়োজন করা খুব চ্যালেঞ্জিং। ক্রিকেট (আন্তর্জাতিক ম্যাচ) করতে পারলে ভালো হতো। আমরা পরস্পর সকল খেলার সঙ্গে জড়িত। একে অপরের কাছ থেকে আরও বেশি শিক্ষা নিতে পারতাম। যেহেতু আমাদের ওপর দায়িত্ব বেশি পড়ে গেছে, আমরা ক্যাম্প শুরু করতে যাচ্ছি, সেখানে যতদূর সম্ভব আসলে কেউই আমরা সবকিছু জানি না, (কোভিড পরিস্থিতিতে) অন্যদের সাহায্য নেওয়া লাগবে। যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়সহ অন্যদের সঙ্গে আলোচনা করে পুরো বিষয় সম্পর্কে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।’

মাঠের ফুটবল ফিরিয়ে আনতেই কাজ করে চলেছে বাফুফে, ‘এই ঘোষণা দিতে পেরে আমি খুশি যে আমরা ম্যাচ খেলবো। আমাদের ক্যাম্প শুরু হচ্ছে ২৩ অক্টোবর থেকে। বিশ্বকাপ বাছাইপর্ব সামনে রেখে অনুশীলন শুরু করতে চেয়েছিলাম। কিন্তু তা হয়নি সেই সময়ে। আমরা এখন ফটবলকে ফিরিয়ে আনতে চাই। প্রীতি ম্যাচ খেলতে যাচ্ছি। নেপাল ও শ্রীলঙ্কার সঙ্গে যোগাযোগ হয়েছিল। নেপাল এখন খেলতে রাজি হয়েছে। চিঠি দিয়ে জানিয়ে দিয়েছে।’

ফুটবলারদের অনুশীলন নিয়ে তিনি বলেন, ‘সাত মাস ধরে খেলার মধ্যে নেই। তবুও আমাদের কোচরা নিয়মিত অনুশীলন সূচি (ট্রেনিং প্রোগ্রাম) দিয়ে গেছেন, মনিটরিং করে গেছেন নিয়মিত। খেলোয়াড়দের ফিটনেস থেকে শুরু করে সবকিছু। ফুটবল একার খেলা নয়, পুরো টিমের খেলা। আমরা জেতার জন্য খেলবো। তবে জয়ই মুখ্য নয়। এখানে ফুটবলকে মাঠে ফিরিয়ে আনাটাও বড় বিষয়।’

তবে সব কিছুর আগে করোনায় স্বাস্থ্য বিধি’র বিষয়টি উঠে আসে। এ নিয়ে নাবিল বলেন, ‘কোভিড টেস্ট করে ক্যাম্পে আসবে সবাই। কোথায় করাবে তা আমরা অনুমোদন করে দেবো। আসার পরে তারপরে আরও দুই-তিনবার পরীক্ষা হবে তাদের। যতটা পারা যায় আইসোলেটেড রাখতে হবে। নেপাল দলেরও একই অবস্থা হবে। এ নিয়ে আন্তমন্ত্রণালয়ের সভা আছে। সেখানে অনেক নির্দেশনা পাওয়া যাবে। সংশ্লিষ্ট সবাই সেখানে থাকবেন। তারা ভালো বুঝবেন। তখন বাস্তবায়ন করা যাবে সবকিছু।’

মাঠে দর্শক উপস্থিতি নিয়ে কাজী নাবিল বলেন, ‘পৃথিবীর অন্য দেশগুলোতে দেখতে পাচ্ছি খুব বেশি দর্শক থাকে না। আমরা এখানে স্বল্প সংখ্যক দর্শক রাখতে পারি। আন্তঃমন্ত্রনালয় সভায় সিদ্ধান্ত হবে। সেটাই বাস্তবায়ন করবো। একেবারেই দর্শকশূন্য খেলা অন্যরকম লাগবে। আশা করছি অল্পকিছু দর্শক যেন রাখতে পারি। তবে আমাদের সন্ধ্যা বেলায় খেলা হলে কী হবে? ফ্লাড লাইটে খেলা আয়োজন করা যাবে কি না আগেই তা পরীক্ষা করা হবে। যদি লাইটের স্বল্পতা থাকে তাহলে আন্তঃমন্ত্রণালয় সভায় আলোচনা করবো। যদি দেখা যায় লাইটের স্বল্পতা আছে সেভাবেই ব্যবস্থা নেওয়া হবে, যাতে ম্যাচ আয়োজনে সমস্যা না হয়।’