মুশফিক ক্যরিয়ারের স্পেশাল ডে ‘নিলাম’

ঢাকা, রবিবার, ৭ জুন ২০২০ | ২৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭

মুশফিক ক্যরিয়ারের স্পেশাল ডে ‘নিলাম’

ক্রীড়া প্রতিবেদক ৪:৩৩ অপরাহ্ণ, মে ১১, ২০২০

print
মুশফিক ক্যরিয়ারের স্পেশাল ডে ‘নিলাম’

মুশফিকের ঐতিহাসিক ডাবল সেঞ্চুরির ব্যাটটি নিলাম চলছে। ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান পিকাবুর অফিসিয়াল সাইটে চলবে তা আগামী ১৪ মে রাত ১০টা পর্যন্ত। নিলামে কত টাকা পর্যন্ত ডাক উঠেছে সেটা যায়নি। তবে ব্যাটটির ভিত্তি মূল্য ধরা হয়েছে ৬ লাখ টাকা। মুশফিক ভক্তদের প্রত্যাশা তা সাকিবের ব্যাটের মূল্যকেও ছাড়িয়ে যাবে। মুশফিকও তেমনটাই প্রত্যাশা করছেন। কারণ বেশি অর্থ পেলে যে বেশি লোককে সাহায্য করা যাবে। এ কথা নিলামে ব্যাট তোলার আগে থেকেই আগ্রহীদের কাছে আবেদন জানিয়েছেন।

মুশফিক জানান, ব্যাটটি যেন অসহায়দের কথা ভেবেই কি-না হয়। 

তবে প্রশ্ন উঠছে প্রিয় জিনিষ বিক্রিতে খারাপ লাগার বিষয়টি। তা একেবারেই তা উড়িয়ে দিলেন মিস্টার ডিফেন্ডবল। জানিয়ে দিলেন, ‘খারাপ লাগার প্রশ্নই ওঠে না। বরং এ ব্যাট নিলাম অন্যরকম ভালো লাগার। এটা আসলে অনেক বড় সৌভাগ্যের বিষয়। কারণ অনেকেই হয়তো অনেকভাবে সাহায্য সহযোগিতা করছেন। তবে তারা চাইলেও এমনভাবে এই ব্যাট দিয়ে কন্ট্রিবিউট করতে পারবে না। আল্লাহর অশেষ রহমত তিনি আমাকে সে সুযোগ দিয়েছেন। এ ক্যারিয়ারে যতটুকু কীর্তিই করেছি, তার মধ্যে আমার কাছে এটা স্পেশাল। আমাদের একটু ছোট্ট ত্যাগের মাধ্যমে যদি কিছু মানুষ সুস্থ থাকে, ভাল থাকে, তাদের একটু উপকার হয়- সেটাই অনেক বড় প্রাপ্তি।

নিলামের রাতে তিনি আরও জানান, ‘আমরা সারাজীবন ক্রিকেট খেলি, বিনোদন দিই। কিন্তু মানুষের বেঁচে থাকার ওপরে আর কিছু হতে পারে না। এই একটা সুযোগ এসেছে। আমি দ্বিধা করিনি। যে যে স্মারক নিলামে তুলেছেন, তা যত বেশি দামে বিক্রি হবে, ততই মানুষের উপকারে আসবে। আমাদের কোনো ছোট্ট সহযোগিতা যদি মানুষের উপকারে আসে, সেটাও অনেক ভালো লাগার।’

সাহায্যের কাজে ব্যয় করা নিয়ে তিনি বলেন, ‘যেটা পরিকল্পনা আছে, তেমন একটা অ্যামাউন্ট পেলে নিজ এলাকার মানুষকে আরও বেশি করে সাহায্য করতে পারব। একটা পরিবার যেন অন্ততপক্ষে ১ মাস ভালোভাবে থাকতে পারে, সেভাবে সাহায্য করব। এছাড়াও নাজমুল ইসলাম অপু নিজ এলাকায় অনেক মানুষকে সাহায্য করছে, তার সঙ্গেও যুক্ত হওয়ার ইচ্ছা আছে।’

যে কারণে মুশফিক এবং খেলোয়াড়রা নিজেদের সরঞ্জামাদি নিলামে তুলছেন সেদিনটা বেশিদিন দেখতে চান না মুশফিক। তিনি বলেন, দীর্ঘ গত ১৫ বছরে আমি এভাবে পরিবারের সঙ্গে থাকতে পারিনি। বিষয়টি যদিও আমার কাছে খুব ভালো লাগার। কিন্তু আমি এমন ছুটিও আবার চাইনি। আমরা হয়তো আল্লাহর রহমতে ভালো আছি। কিন্তু আশপাশের অনেকেই ভালো নেই। শঙ্কায় আছে, কষ্টের ভেতরে দিন যাচ্ছে।

নিলামে মুশফিকের ব্যাট ছাড়াও আকবর আলীর অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপ ফাইনালে ব্যবহৃত জার্সি ও গ্লাভস নিলাম উঠেছে। যার ভিত্তিমূল্য ধরা হয়েছে ১ লাখ টাকা। এ ছাড়াও একই প্ল্যাট ফর্মে মোসাদ্দকে হোসেন সৈকতের ব্যাটের ভিত্তিমূল্য ৩ লাখ টাকা, নাঈম শেখের ব্যাটের ভিত্তিমূল্য ১ লাখ টাকা ধরা হয়েছে।