অধিনায়কদের ফটোসেশনে হ য ব র ল

ঢাকা, রবিবার, ২৬ জুন ২০২২ | ১২ আষাঢ় ১৪২৯

Khola Kagoj BD
Khule Dey Apnar chokh

অধিনায়কদের ফটোসেশনে হ য ব র ল

ক্রীড়া প্রতিবেদক
🕐 ১১:৪৮ পূর্বাহ্ণ, ডিসেম্বর ১১, ২০১৯

অধিনায়কদের ফটোসেশনে হ য ব র ল

টুর্নামেন্ট শুরুর আগে অংশ নেওয়া অধিনায়কদের ফটোসেশনে অংশ নেওয়া প্রচলিত একটা নিয়ম। কিন্তু গতানুগতিক বাইরের ধারায় হাঁটল বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। কাল অধিনায়কদের ফটোসেশন পর্বে অনুপস্থিত থাকলেন দুই দলের অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা ও মোহাম্মদ নবি।

ঢাকা প্লাটুন অধিনায়ক তার বদলে প্রতিনিধি হিসেবে পাঠালেন মুমিনুল হককে। রংপুর রেঞ্জার্স অধিনায়ক নবি আটকা পড়েছিলেন ঢাকার জ্যামে। নবি ও রাসেলের জন্য ফটোসেশন পর্বের আগে আধ ঘণ্টা অপেক্ষ করেছিল আয়োজকরা। কিন্তু রাজশাহী অধিনায়ক সন্ধ্যায় ছ’টায় যোগ দিলেও নবিকে আসতে মানা করে দেওয়া হয়েছে দেরি হওয়ার কারণে।

মাশরাফি অনুশীলন শেষে মাঠ ছেড়ে গেছেন। একাডেমি মাঠে দেখা গেল পাঁচ অধিনায়ককে। খুলনার অধিনায়ক মুশফিকুর রহিম, চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্সের মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, সিলেট থান্ডারের মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত, কুমিল্লা ওয়ারিয়র্সের দাসুন শানাকা ও ঢাকার হয়ে মুমিনুল ফটোসেশন করেছেন। অথচ অনুষ্ঠানে ট্রফি উন্মোচনের পর্বই রাখা হলো না। তাতে প্রায়সবার বিস্ময় আকাশ ছুঁয়েছে।

রাসেল ৬টার দিকে এলেও শেষ পর্যন্ত নবী উপস্থিত হতে পারেননি। বিসিবির পক্ষ থেকে জানানো হলো, যানজটে আটকা পড়েছেন রংপুরের আফগান অধিনায়ক। দ্রুত অনুষ্ঠান শেষ করতে তাঁকে পরে আসতে ‘না’ করে দেওয়া হয়েছে। বিচ্ছিন্ন ও ট্রফিবিহীন ফটোসেশন নিয়ে স্বাভাবিকভাবেই প্রশ্নটা উঠল। অনুষ্ঠান কি আরেকটু গুছিয়ে, পরিকল্পিতভাবে করা যেত না?

উত্তরে বিসিবির প্রধান নির্বাহী নিজামউদ্দীন চৌধুরী বললেন, ‘আজ (মঙ্গলবার) প্রতিটি দলের অনুশীলন ছিল। কিছু সীমাবদ্ধতার কারণে অধিনায়কদের কেউ কেউ আসতে পারেনি। তবে আমরা সবাইকে জানিয়েছিলাম। সময় স্বল্পতার কারণে আমরা ফটোসেশনটা দ্রুত শেষ করলাম।’

এবারের বিপিএল বিশেষ টুর্নামেন্ট। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নামে রাখা হয়েছে। বঙ্গবন্ধু বিপিএল স্মরণীয় করে রাখতে প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন আয়োজকরা।

এবারের টুর্নামেন্ট অন্যবারের তুলনায় গোছাল আর সুশৃঙ্খলভাবে করার দাবিটাও ছিল। কিন্তু তেমনটা পারছে না বোর্ড। তবে বোর্ডকর্তারা আশ^স্ত করেছেন, শুরুটা একটু এলোমেলো হলেও দ্রুতই সবকিছু ঠিক হয়ে যাবে বলে অঙ্গীকার করেন তারা।

 
Electronic Paper