দুই জায়ান্টের হোঁচট

ঢাকা, বুধবার, ১৩ নভেম্বর ২০১৯ | ২৯ কার্তিক ১৪২৬

দুই জায়ান্টের হোঁচট

ক্রীড়া ডেস্ক ১০:৫৪ পূর্বাহ্ণ, নভেম্বর ০৮, ২০১৯

print
দুই জায়ান্টের হোঁচট

বায়ার্ন মিউনিখ, রিয়াল মাদ্রিদ, জুভেন্টাস, টটেনহাম হটস্পার, প্যারিস সেন্ট জার্মেই (পিএসজি)- প্রায় সবকটি বড় দলই বুধবার রাতে জয়ের নিশ্চ্রিদ্র পথে হেঁটেছে। উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লিগের চতুর্থ রাউন্ডের দ্বিতীয় রাতে হোঁচট খেয়েছে কেবল দুটি দল- ম্যানচেস্টার সিটি ও অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদ। বায়ার লেভারকুজেনের মাঠে ২-১ গোলে হেরেছে অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদ। আটালান্টার আতিথেয়তা নিতে গিয়ে ১-১ ব্যবধানে পয়েন্ট ভাগাভাগি করেছে সিটি। তবে সব ছাপিয়ে আলোচনায় থাকল ডায়নামো ডাগরেভ ও শাখতার দানেৎস্কর ৬ গোলের থ্রিলার ড্র’টা।

ঘরের মাঠ অ্যালিয়েঞ্জ এরিনায় সহজেই জিতেছে বায়ার্ন মিউনিখ। ক্ষুধার্ত বাঘ কতটা ভয়ঙ্কর হয়ে উঠতে পারে সেটা অলিম্পিয়াকসকে বুঝিয়ে দিয়েছে বাভারিয়ান জায়ান্টরা। গ্রিক ক্লাবের বিরুদ্ধে ২৭টি আক্রমণ করেছে জার্মান ক্লাবটি। কিন্তু প্রাপ্ত গোল সংখ্যা হতাশ করেছে তাদের। তবু জয়টা স্বস্তির। বায়ার্ন জিতেছে ২-০ গোলে।

বুন্দেসলিগায় ইন্ট্র্যাক্ট ফ্র্যাঙ্কফুর্টের মাঠে ৫-১ গোল হারায় বায়ার্নের বলির পাঁঠা হয়েছেন প্রধান কোচ নিকো কোভাক। কোচ হারিয়ে জ্বলে উঠল তারা। সহকারী কোচ হান্স-ডিয়েটের ফ্লিকের অধীনে বায়ার্নের নতুন শুরুটা ভালোই হলো। দ্বিতীয়ার্ধে বাভারিয়ানদের গোল দুটি করেছেন রবার্ট লেভানডফস্কি ও ইভান পেরিসিচ। টুর্নামেন্টে এটা বায়ার্নের চতুর্থ জয়। এই জয়ে ১২ পয়েন্ট নিয়ে শেষ ষোলোতে উঠে গেল বায়ার্ন।

জয় পেয়েছে গ্রুপের আরেক ফেভারিট টটেনহাম হটস্পারও। পরশু রাতে রেড স্টার বেলগ্রেডের মাঠে ৪-০ গোলে জিতেছে উত্তর লন্ডনের ক্লাবটি। স্পার্সদের হয়ে জোড়া গোল করেন সন হিয়ুং মিন। অন্য গোল দুটি লো সেলসো এবং ক্রিশ্চিয়ান এরিকসেনের। ৭ পয়েন্ট নিয়ে নক আউট পর্বের পথে আরেকটু এগোলো টটেনহাম।

তবে পয়েন্ট হারানোর শঙ্কায় পড়েছিল জুভেন্টাস। ম্যাচের শেষ মুহূর্তে ডগলার কস্টার দুর্দান্ত গোলে লকোমোটিভ মস্কোকে ২-১ ব্যবধানে হারিয়েছে তুরিনের বুড়িরা। তিন জয়ে জুভদের পয়েন্ট ১০। যা তাদের এনে দিয়েছে শেষ ষোলোর টিকিট। জুভদের প্রথম গোলে ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদোর অবদানই মুখ্য। তার ফ্রি-কিক ঠেকাতে গিয়ে তালগোল পাকান স্বাগতিক গোলরক্ষক। বল গোললাইনের খুব কাছে পৌঁছাতেই আলতো ছোঁয়ায় জালে পাঠান অ্যারন র‌্যামসে। ৯ মিনিট পর আল মিরানচুকের গোলে সমতায় ফেরে স্বাগতিকরা। এরপর লম্বা সময় গোলখরা। ৭৮ মিনিটে প্রায় গোল পেয়েই যাচ্ছিল লকোমোটিভ মস্কো। কিন্তু হোয়াও মারিওর শট গোললাইন থেকে ফেরান লিওনার্দো বনুচ্চি।

‘সি’ গ্রুপের চার দল- ম্যানচেস্টার সিটি, আটালান্টা, শাখতার দানেৎস্ক ও ডায়নামো জাগরেভ পয়েন্ট ভাগাভাগি করেছে। ৭ মিনিটে রহিম স্টার্লিংয়ের গোলে এগিয়ে যায় সিটি। দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতে আটালান্টাকে ম্যাচে ফেরান প্যাসালিচ। ৮১ মিনিটে সরাসরি লাল কার্ড দেখে মাঠ ছাড়েন গোলরক্ষক ক্লাউদিও ব্রাভো। সিটির জয়ের স্বপ্ন ধূসর হয়ে যায় তাতে। এই ড্রয়ে শেষ ষোলোর অপেক্ষা বাড়ল সিটির। ৪ ম্যাচে ১০ পয়েন্ট তাদের। শাখতার ও ডাগরেভ দুই দলেরই অর্জন সমান ৫ পয়েন্ট।

এই দুই দলের এগিয়ে যাওয়ার সুযোগ ছিল। কিন্তু ৩-৩ গোলের মহানাটকীয় ড্র করেছে তারা। ১৩ মিনিটে অতিথি শাখতার লিড নিয়েছিল। ১২ মিনিট পর সমতায় ফেরে ডাগরেভ। তবে আসল লড়াই জমে উঠেল ম্যাচের শেষ দিকে। ৭৪ মিনিটে জাগরেভ এবং ৫ মিনিট পর শাখতার দশজনের দলে নেমে আসে। ৮৩ ও ৮৯ মিনিটে দুই গোল করে জয়ের সুবাস পাচ্ছিল জাগরেভ। কিন্তু যোগ করা সময়ের তৃতীয় ও অষ্টম মিনিটে তাদের গোল দুটি ফিরিয়ে দিয়ে মহানাটকীয় এক ড্র করে শাখতার।


ফলাফল

বায়ার্ন ২-০ অলিম্পিয়াকস
লকো. মস্কো ১-২ জুভেন্টাস
পিএসজি ০-১ ক্লাব ব্রাগা
রিয়াল মাদ্রিদ ৬-০ গালাতাসারাই
বেলগ্রেড ০-৪ টটেনহাম
আটালান্টা ১-১ ম্যানসিটি
জাগরেভ ৩-৩ শাখতার
লেভারকুজেন ২-১ অ্যাট. মাদ্রিদ
* স্বাগতিক দল আগে