বাংলাদেশের জয়ের স্বপ্ন

ঢাকা, বুধবার, ১৬ অক্টোবর ২০১৯ | ১ কার্তিক ১৪২৬

বাংলাদেশের জয়ের স্বপ্ন

ক্রীড়া প্রতিবেদক ১২:৩৩ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ১০, ২০১৯

print
বাংলাদেশের জয়ের স্বপ্ন

শক্তি, সামর্থ্য, ইতিহাস, মুখোমুখি লড়াই, র‌্যাঙ্কিং কিংবা অভিজ্ঞতা- কোনো কিছুতেই কাতারের সঙ্গে তুলনা চলে না বাংলাদেশ ফুটবল দলের। এশিয়ান কাপের বর্তমান চ্যাম্পিয়ন মধ্যপ্রাচ্যের এই দলটি। তবু কাতারকে হারানোর স্বপ্ন দেখছে বাংলাদেশ। ঘরের মাঠ বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে লড়াই বলেই হয়তো আকাশ-কুসুম স্বপ্ন দেখছেন জামালরা। এ জন্য অনুপ্রেরণা হিসেবে বাংলাদেশ পাচ্ছে কাতার অনূর্ধ্ব-২৩ দলের বিরুদ্ধে প্রাপ্ত জয়টা। সঙ্গে জ্বালানি হিসেবে আছে পরপর দুটি প্রস্তুতি ম্যাচে ভুটানকে হারানোর স্মৃতিটা।

বিশ্বকাপ ও এশিয়ান কাপের যৌথ বাছাইয়ে আজ নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে এশিয়ান চ্যাম্পিয়ন কাতারের বিপক্ষে মাঠে নামবে বাংলাদেশ। ম্যাচটি শুরু হবে সন্ধ্যা ৭টায়। এই ম্যাচেই জয়ের দুঃসাহসিক স্বপ্নের কথা জানালেন বাংলাদেশ কোচ জেমি ডে। কাল ম্যাচ পূর্ব সংবাদ সম্মেলনে আত্মবিশ্বাসী কণ্ঠেই ব্রিটিশ কোচ বলেছেন, ‘ম্যাচটা আমাদের জন্য অনেক কঠিন হবে। তবে সবদলই জয়ের জন্য মাঠে নামতে চায়। আমরাও জয়ের চেষ্টা করব।’

বিশ্ব ফুটবল র‌্যাঙ্কিংয়ে বাংলাদেশের সঙ্গে কাতারের তফাৎটা বিস্তর। এই মুহূর্তে তালিকার ৬২ নম্বরে আছে মধ্যপ্রাচ্যের দলটি। কাতারের চেয়ে ১২৫ ধাপ পিছিয়ে থাকা বাংলাদেশের ঠিকানা টেবিলের ১৮৭ নম্বরে! লাল-সবুজের প্রতিনিধিদের সঙ্গে কাতারের শক্তিমত্তা কতটুকু তা বোঝাতে একটা তথ্যই যথেষ্ঠ। বিশ্বকাপ ও এশিয়ান কাপের বাছাইয়ে আফগানিস্তানকে ৬-০ গোলে চূর্ণ করেছে কাতার। সেই আফগানদের কাছে ১-০ গোলে হেরে অভিজান শুরু করেছে বাংলাদেশ। স্বাভাবিকভাবেই আজকের ম্যাচে কাতারের গোলবন্যায় ভেসে যাওয়ার শঙ্কা রয়েছে।

আশঙ্কা ও কাতারের শক্তিমত্তার কথা বাংলাদেশও জানে। তবে হারার আগে হারতে চান না স্বাগতি কোচ জেমি ডে। অতিথিদের হারানোর বার্তা দিলেন তিনি, ‘আমরা জানি ম্যাচটি কঠিন হতে যাচ্ছে। প্রতিটা দলের মতো আমরাও জিততে চাই। ভুটানের বিপক্ষে দুটি ম্যাচ জিতে আমরা খুবই আত্মবিশ্বাসী। আগামীকাল (আজ) আমাদের সেরা খেলাটা খেলতে হবে। তাদের থামানোর জন্য আমরা কঠোর পরিশ্রম করেছি। তাদের দুর্বলতা কাজে লাগাতে হবে।’

হয়তো সংবাদ সম্মেলনে বলার জন্যই কথাগুলো বলেছেন। একই সঙ্গে বাস্তবতাও মেনে নিচ্ছেন বাংলাদেশের প্রধান কোচ। জেমি ডে বলেছেন, ‘তাদের দুর্দান্ত একটা দল আছে। তারা এশিয়ান চ্যাম্পিয়ন। তারা ব্রাজিল, আর্জেন্টিনা, ইংল্যান্ডের মতো দলগুলোর বিপক্ষে খেলার প্রস্তুতি নিচ্ছে। বাস্তবিক অর্থে বাংলাদেশ তাদের সামনে দুর্বল। কিন্তু ফুটবলে সব সময় চমক থাকে। এই ম্যাচে আমাদের দুর্দান্ত খেলতে হবে। অন্য যে কোনো ম্যাচের চেয়ে ভালো খেলতে হবে।’

জেমির কথাগুলো দুঃসাহসিক মনে হওয়াটাই স্বাভাবিক। কিন্তু কাতারের বয়সভিত্তিক দলের সঙ্গে স্বপ্নের একটা জয় আছে লাল-সবুজের প্রতিনিধিদের। গত সেপ্টেম্বরে এশিয়ান গেমসে কাতার অনূর্ধ্ব-২৩ দলকে ১-০ গোলে হারায় বাংলাদেশ। ম্যাচের জয়সূচক গোল করেছিলেন জামাল ভূঁইয়া। প্রায় এক বছরের ব্যবধানে তার কণ্ঠেও কাতারকে আবার হারানোর সাহস।

এ জন্য ভারতকে অনুপ্রেরণা হিসেবে নিচ্ছেন জামাল। সম্প্রতি কাতারে গিয়েই তাদের গোলশূন্য ব্যবধানে রুখে দিয়েছিল ভারত। বাংলাদেশ অধিনায়ক জামালও তাই আশার কথা শোনালেন সংবাদ সম্মেলনে। কাল বাফুফে ভবনে তিনি বলেছেন, ‘কাতার এশিয়ার এক নম্বর দল। আমরা কঠিন একটি ম্যাচ খেলতে যাচ্ছি। সুযোগ পেলে কাজে লাগাতে হবে। ভারত যদি তাদের সঙ্গে ড্র করতে পারে, আমরাও তাদের সঙ্গে ড্র করতে পারি। এমনকি জিতেও যেতে পারি।’

বাংলাদেশ জয়ের আশা করতে পারে। কারণ মাঠে নামার আগে কথার ফুলঝুরি ছড়াতে বাধা নেই। কিন্তু বাস্তবতা কোথায় দাঁড়িয়ে আছে সেটা আজকের ম্যাচের ফলই জানিয়ে দেবে।