মেছোবাঘ আতঙ্কে কেরানীগঞ্জ

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২১ | ১২ ফাল্গুন ১৪২৭

মেছোবাঘ আতঙ্কে কেরানীগঞ্জ

এম. আশিক নূর, কেরানীগঞ্জ (ঢাকা) ৯:৫৮ পূর্বাহ্ণ, জানুয়ারি ২০, ২০২১

print
মেছোবাঘ আতঙ্কে কেরানীগঞ্জ

কয়েকদিন ধরে খামার থেকে হারিয়ে যাচ্ছিল মুরগি। শেয়ালে নিয়ে যাচ্ছে ভেবে সতর্কতা অবলম্বন করেছিল এলাকাবাসী। কিন্তু কাজে দেয়নি। একের পর এক ঘটছিল ঘটনা। শেয়ালের উপদ্রব থেকে বাঁচতে হোসেন ঢালি নামে এক খামারি শেয়াল ধরার ফাঁদ পাতে। একটি খাঁচায় মুরগি রেখে তৈরি করা হয় ফাঁদ। গতকাল সকালে সেই ফাঁদে আটকে থাকা শেয়ালকে শায়েস্তা করতেই এগোলেন হোসেন। কাছে গিয়ে তার চোখ চড়কগাছ। যেনতেন ঘটনা হলে ঠিক ছিল। কিন্তু ফাঁদে আটকে আছে রীতিমতো এক মেছোবাঘ। বড় এবং দাঁত খিঁচিয়ে দিচ্ছিল হুঙ্কারও। এরপর থেকেই এলাকায় চলছে হৈচৈ। কেরানীগঞ্জের কাঁঠালতলী এখন মেছোবাঘ আতঙ্কে। এ ধরনের আরও থাকতে পারে বলে মনে করছেন এলাকাবাসী।

গতকাল ধরাপড়া মেছোবাঘ এখন ঢাকা চিড়িয়াখানায়। এর আগে বাঘ ধরা পড়তে দেখে খবর দেওয়া হয় উপজেলা প্রশাসনকে। তখন উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা তার হেফাজতে নেন বাঘটি। পরে বাঘটিকে ঢাকা চিড়িয়াখানা কর্তৃপক্ষের কাছে হস্তান্তর করেন।

উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা জহির উদ্দিন জানান, সকালে আমরা খবর পেয়ে উপজেলার তারানগর ইউনিয়নের কাঁঠালতলী এলাকায় যাই। সেখানে গিয়ে ৩ ফুট লম্বা আটক ওই বিলুপ্তপ্রায় মেছোবাঘটিকে দেখি। খামারি হোসেন ঢালির ফাঁদে ধরা পড়ে বাঘটি। সেখান থেকে বাঘটিকে উদ্ধার করে নিয়ে আসি। তিনি আরও জানান, এই এলাকায় এসব প্রাণী থাকাটা অস্বাভাবিক নয়। উদ্ধারকৃত বাঘটি পুরুষ নাকি স্ত্রী, তা জানা যায়নি। এই প্রজাতির বাঘ গাছেও উঠতে পারে বলে জানান তিনি।

এর আগে কখনো এলাকায় বাঘ আটকের ঘটনা ঘটেনি উল্লেখ করে এলাকাবাসী জানান, হোসেন ঢালির শিয়াল ধরার ফাঁদে বড় একটি মেছোবাঘ দেখতে পান। পরে কেরানীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা অমিত দেবনাথকে খবর দিলে তিনি উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তার মাধ্যমে উপজেলায় নিয়ে যান।

খামারি হোসেন ঢালি জানান, কয়েকদিনে আমার প্রায় ১০টি হাঁস খোয়া গেলে তা শেয়ালে নিচ্ছে বলে আমার মনে হয়। এরপর শিয়াল ধরতে একটি বড় খাঁচা তৈরি করে ফাঁদ পাতি। সকালে উঠে দেখি বড় এক মেছোবাঘ খাঁচায় আটকে আছে। তিনিসহ অনেকে জানান, এখানে আরও বাঘ আছে বলে আমাদের মনে হচ্ছে। মেছোবাঘটি ধরা পড়ার পর থেকে আমরা আতঙ্কে আছি।

কেরানীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার অমিত দেবনাথ বলেন, আমরা বাঘটি উদ্ধার করেছি। বাঘটিকে চিড়িয়াখানায় হস্তান্তরের জন্য কর্তৃপক্ষকে অবগত করেছি।