শরৎচন্দ্রের স্মৃতিবিজড়িত জমিদার বাড়ি

ঢাকা, বুধবার, ১৫ জুলাই ২০২০ | ৩০ আষাঢ় ১৪২৭

ইতিহাস ঐতিহ্যের চুয়াডাঙ্গা

শরৎচন্দ্রের স্মৃতিবিজড়িত জমিদার বাড়ি

আরিফুল ইসলাম ৯:২৩ অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ০৫, ২০২০

print
শরৎচন্দ্রের স্মৃতিবিজড়িত জমিদার বাড়ি

চুয়াডাঙ্গা জেলা শহর অথবা জীবননগর উপজেলা থেকে বাসযোগে উথলী ইউনিয়নের কাশীপুর গ্রামে কাশীপুর জমিদার বাড়িটি অবস্থিত। এই জমিদার বাড়িটি বিশেষভাবে জনপ্রিয় কথাসাহিত্যিক শরৎচন্দ্রের স্মৃতিবিজড়িত বলে। বাড়িটি ছিল শরৎচন্দ্রের মামা বাড়ি।

জমিদার বিনয় কুমার চট্টোপাধ্যায় ছিলেন শরৎচন্দ্রের মামা। শরৎচন্দ্র এক সময় এখানে বেড়াতে এসে রচনা করেন তার জনপ্রিয় ছোট গল্প ‘মহেশ’। গল্পের গফুর, তার পালিত গরু এবং ছোট মেয়ের করুণ দৃশ্য জমিদার প্রথার কলুষিত অধ্যায়কে তুলে ধরেছে।

জমিদার বিনয় কুমার চট্টোপাধ্যায় ছিলেন একজন অত্যাচারী জমিদার। প্রজাদের ওপর নির্মম অত্যাচারে তার দুর্নাম অর্জন করেন। প্রজারা তার অত্যাচারের ভয়ে সব সময়ই আতঙ্কে কাটাতো।

প্রজাদের প্রতি রাজার অত্যাচারের এমন নমুনা আমরা শরৎচন্দ্রের মহেশ গল্পে পেয়ে থাকি। এখানে নিজ জমিদার মামার প্রজাদের প্রতি কঠিন এবং অত্যাচারী রূপ দেখেই তিনি মর্মাহত হন। এবং রচনা করেন এই উল্লেখযোগ্য গল্পটি।

জমিদার বাড়িটি ১৮৬১ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়। ভারত বিভাগের ফলে বাড়িটির বর্তমান বাসিন্দাদের পূর্বপুরুষদের সঙ্গে বিনয় কুমার মজুমদার ভারতের ১২০০ বিঘা জমির বিনিময় করেন। এবং দেশ ছেড়ে সপরিবারে ভারতে চলে যান।

বর্তমানে বাড়িটিতেও এই জমিদারের ব্যবহৃত নানা জিনিসপত্র রয়েছে। রয়েছে খাট পালং, সোফা, টেবিল, ডাইনিং টেবিলসহ আরও নানা জিনিসপত্র। রয়েছে মাটির নিচ থেকে পানি উত্তোলনের বিশেষ মোটরও।