আকিজ বিড়ির পথ ধরে

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৪ অক্টোবর ২০১৯ | ৯ কার্তিক ১৪২৬

কর্মসংস্থান সৃষ্টির জাদুকর

আকিজ বিড়ির পথ ধরে

আবু বকর সিদ্দিক ও আলতাফ হোসেন ৩:১৬ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ০৭, ২০১৯

print
আকিজ বিড়ির পথ ধরে

ব্যবসা আর বড় হওয়ার স্বপ্ন যার ভেতরে একবার জেগেছে সে সহজে থেমে থাকতে পারে না। আকিজও পারেননি। বাবা-মায়ের মৃত্যুশোক কাটানো ও বিয়ে করার পর তার মাঝের উদ্যোক্তা সত্তাটি আবার জেগে ওঠে। তিনি ভাবতে থাকেন কী করা যায়। তিনি নিজের এলাকায় থেকেই কিছু একটা করতে চাচ্ছিলেন। সেই সময় তার অঞ্চলে বিধু বিড়ি খুব নামকরা ছিল। বিধু বিড়ির মালিক ছিলেন বিধুভূষণ। বিধুভূষণের ছেলে ছিলেন আকিজের কাছের বন্ধু। বিধুভূষণের পরামর্শ ও সহায়তায়ই ১৯৫২ সালে তিনি তার নিজের বিড়ির ব্যবসা শুরু করেন। বিড়ি তৈরি ও বিক্রি করে বেশ লাভ হতে থাকে। বেজেরডাঙ্গা রেল স্টেশনের কাছে তিনি দোকান নেন।

১৯৫৫ সালের দিকে তার মূলধন গিয়ে দাঁড়ায় প্রায় ৬০ হাজার টাকায়। কিন্তু এবারও তার ওপর দুর্ভাগ্য নেমে আসে। এক সাক্ষা?ৎকারে তিনি বলেছিলেন, ‘হঠাৎ এক রাতে আগুন লেগে পুরো দোকান পুড়ে যায়। সারা জীবনের সঞ্চয় হারিয়ে আমি আবার পথের ফকির হয়ে গেলাম!’

তথ্য অনুযায়ী, পুড়ে যাওয়া দোকানে ৩০ হাজার টাকার মালপত্র ও নগদ ৪ হাজার টাকা ছিল। সেইসঙ্গে দোকানের অবকাঠামোও পুরো ছাই হয়ে গিয়েছিল। সেই আমলে প্রায় ৬০ হাজার টাকা মানে অনেক টাকা। তার এক কর্মচারী আহত হয়েছিল এবং তিনিও অল্পের জন্য প্রাণে বেঁচে যান। তবে সব হারিয়েও তিনি ভেঙে পড়েননি। তার বিশ্বাস ছিল চেষ্টা করলে সৃষ্টিকর্তা নিশ্চয়ই সদয় হবেন।

এই প্রসঙ্গে তার ভাষ্য ছিল: ‘সারা জীবনের সঞ্চয় হারিয়ে আমি আবার পথের ফকির হয়ে গেলাম! কিন্তু এক মুহূর্তের জন্যও মনোবল হারাইনি। আমার দৃঢ়বিশ^াস ছিল, আবার শূন্য থেকে শুরু করব, উপরওয়ালা নিশ্চয় সদয় হবেন।’