ধ্রুবতারার মায়েদের আনন্দঅশ্রু

ঢাকা, শুক্রবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৯ | ৫ আশ্বিন ১৪২৬

ধ্রুবতারার মায়েদের আনন্দঅশ্রু

বাতিঘর ডেস্ক ১:২২ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ০২, ২০১৯

print
ধ্রুবতারার মায়েদের আনন্দঅশ্রু

যৌনকর্মী মাজেদা বেগম, ঝর্ণা বেগম, বিউটি বেগম, শাহানা মর্জিনা ও মুক্তা বেগমের সন্তানরা বর্তমানে এসএসসি পরীক্ষার্থী। তাদের সবাই পারদর্শী নাচ, গান, অভিনয় আর মার্শাল আর্টে। তাদের মায়েদের সঙ্গে কথা হয় প্রতিবেদকের।

তারা জানান, আমাদের ছেলেমেয়েরা আর কয়েকদিন পরেই কলেজে পড়াশোনা করবে। বিষয়টি ভাবলে এমনি এমনিই চোখে পানি আসে।

এসএসএস এমন উদ্যোগ না নিলে মেয়েরা হয়তো আমাদের পেশা বেছে নিত। ছেলেরা মাদকসেবনসহ অপরাধী হয়ে সমাজে বেঁচে থাকত। মায়েরা জানান, সবচেয়ে বড় বিড়ম্বনা ছিল ওদের পিতৃপরিচয়। স্কুল-কলেজে ভর্তি করতে গেলে পিতৃ পরিচয় নিয়ে আমাদের সবচেয়ে ঝামেলায় পড়তে হয়। এক্ষেত্রে অনেক সময় সোসাইটি ফর সোসাল সার্ভিসের প্রধান ব্যক্তিসহ অনেক বড় বড় কর্মকর্তার নাম পরিচয়ে আমাদের সন্তানদের স্কুল-কলেজে ভর্তি করতে হয়। এটা যে তাদের কত বড় মহত্ব তা ভাষায় বোঝানো যাবে না। আমাদের অনেকে যৌনপল্লীর বেড়াজাল থেকে বের হয়ে আসতে চাইলেও তা সম্ভব হয়ে উঠে না।

আমাদের জীবনের এখন আর কোনো দাম নেই। বাকি জীবনটা হয়তো যৌনকর্মী পরিচয়েই বাঁচতে হবে। কিন্তু পরবর্তী প্রজন্ম যেন সামাজিক স্বীকৃতি নিয়ে বাঁচতে পারে সেই ব্যবস্থা করে দিয়েছে সোনার বাংলা চিলড্রেন হোম। পড়ালেখার পাশাপাশি শিশুরা ধর্মীয় শিক্ষায় শিক্ষিত হতে পারছে। এটাও একটা বড় পাওয়া বলে মনে করেন মায়েরা। এত কিছুর জন্য একটি পয়সাও ব্যয় করতে হয় না তাদের। সন্তানদের পেছনে সব অর্থ ব্যয় করে এসএসএস।