বঙ্গবন্ধুর কাছে একটি চিঠি

ঢাকা, শনিবার, ১৪ ডিসেম্বর ২০১৯ | ৩০ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

বঙ্গবন্ধুর কাছে একটি চিঠি

বিশেষ আয়োজন ডেস্ক ১:০৫ অপরাহ্ণ, আগস্ট ০৮, ২০১৯

print
বঙ্গবন্ধুর কাছে একটি চিঠি

[পিতা শেখ লুৎফর রহমান টুঙ্গিপাড়া ফরিদপুর থেকে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারের ঠিকানায় বন্দি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে ৩১-০৩-১৯৬২ তারিখে লিখিত বাজেয়াপ্ত চিঠি]

Tungipara
31.3.62

বাবা খোকা

শুরুতেই দোয়া জানিবা। তোমার ২৯/৪/৬২ তারিখের চিঠি একমাস পরে পাইলাম। ঢাকা হইতে ছোট্ট বউ চিঠি লিখিয়াছিল যে, তুমি শীঘ্রই মুক্তি পাইবে এবং কয়েকদিন পরেই সকলকে লইয়া আমাদের দেখিতে আসিবে। কিন্তু আজ ২০/২৫ দিন হইয়াছে আর কোনও সংবাদ পাইতেছি না। ‘‘খোদা তায়ালা বলিয়াছেন তাহার বান্দাকে যে নির্য্যাতন করিবে আমি তাহাকে নির্য্যাতন করিব।’’ ইহা পূর্ব্বপর ঘটনা হইতে সকলেই জানিতেছে এবং দুনিয়ার ইতিহাসও তাহা স্বাক্ষ্য দিতেছে।
বেশি দিন হয় নাই তুমি নিজে ও দেখিতে পাইয়াছ। তোমাকে আটক করিয়া রাখার অর্থ হইতেছে আমাদের মতন বৃদ্ধ পিতা মাতার, নাবালক ছেলে-মেয়েদের এবং স্ত্রীর উপর নানারূপ অত্যাচার করা।
আমরা উপায়হীন সহ্য করিতে বাধ্য কিন্তু খোদাতায়ালা নিশ্চয়ই সহ্য করিবেন না। চিন্তা করিবা না সব কিছু খোদাতায়ালার উপর নির্ভর। তিনি যাহা করেন মানুষের মঙ্গলের জন্যই করেন। সত্যের জয় হইবেই। নানারূপ মিথ্যা মোকদ্দমা চাপাইয়া তাহাতে কোনও ফল না পাইয়া তোমার সততার ছাফাই পাইয়াছে তাহা সত্ত্বেও তুমি কিছু না করিলে তোমাকে কেন যে আটকাইয়া রাখিতে হইবে তাহাই বুঝিতে পারিতেছি না। শুনিয়াছিলাম তোমাকেই সর্ব্বাগ্রে মুক্তি দিবে কিন্তু এখনও তাহার কোনও সম্ভাবনা দেখিতেছি না। দেশবাসী প্রায় সকলেই সরকার গোচরে সকল প্রকার রাজবন্দীদের এবং ছাত্রদের মুক্তির প্রার্থনা দিয়াছে। মনে হয় শীঘ্রই তোমাদের মুক্তি দিবে...।
ঢাকার সকলে ভাল আছে। মীরার মার হাঁফানী উটিয়াছিল, সেটা গোপালগঞ্জে শুনিলাম যে একটু ভাল হইয়াছে। আমরা বাড়ীর সকলেই ভাল আছি। তোমার মেজে বুজির শরীর খুবই খারাপ। সব সময় দোয়া করিতেছি এবং খোদার দরগায় প্রার্থনা যে তিনি তোমাদের মঙ্গল করুক। ৮০ বৎসর বয়সের বৃদ্ধ ব্যক্তির পক্ষে এমন লেখা খুব কঠিন। তাই খুব ধীর লিখিতে হয় এবং লিখিতে একটু দেরি হয়।

তোমার আব্বা
Sheikh Mujibur Rahman
Security Prisoner
Central Jail, Dacca