প্রতারণার নতুন ফাঁদ ক্লিকেই আইডি হ্যাক

ঢাকা, রবিবার, ১৭ জানুয়ারি ২০২১ | ৩ মাঘ ১৪২৭

প্রতারণার নতুন ফাঁদ ক্লিকেই আইডি হ্যাক

প্রীতম সাহা সুদীপ ৯:৩৯ পূর্বাহ্ণ, জানুয়ারি ১৩, ২০২১

print
প্রতারণার নতুন ফাঁদ ক্লিকেই আইডি হ্যাক

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুক ব্যবহার করে প্রতারক চক্রকে অভিনব প্রতারণার ফাঁদ পাততে দেখা গেছে। নিত্যনতুন পন্থা অবলম্বন করে ব্যবহারকারীদের ফাঁদে ফেলে মোটা অঙ্কের টাকা হাতিয়ে নেয় ওই চক্র। সেজন্য ফেসবুক ব্যবহারকারীদের নিরাপত্তা বিষয়ে সতর্ক হওয়ার পরামর্শ দিয়েছে পুলিশ। সম্প্রতি নারী ফেসবুক ব্যবহারকারীদের টার্গেট করে অভিনব কায়দায় প্রতারণা করছিল একটি চক্র। বিভিন্ন লোভনীয় অফার সংবলিত ফিশিং লিংক তৈরি করে নারীদের ইনবক্সে পাঠাত। লোভনীয় ওই অফারে আকৃষ্ট হয়ে যখন ব্যবহারকারীরা লিংকে ক্লিক করত, তখনই তার ফেসবুক আইডিতে প্রতারক চক্রের নিয়ন্ত্রণে চলে যেত।

তখন প্রতারক চক্ররা হ্যাক করা ফেসবুক আইডির তালিকায় থাকা বন্ধুদের মেসেঞ্জারে নক করে বিভিন্ন অজুহাতে টাকা ধার চাইত এবং টাকা পাঠানোর জন্য নিজের বিকাশ নাম্বার দিত। এভাবেই ভুক্তভোগীদের কাছ থেকে মোটা অঙ্কের টাকা হাতিয়ে নিত চক্রটি।

ভুক্তভোগীদের অভিযোগের ভিত্তিতে প্রতারক চক্রের সন্ধানে মাঠে নামে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) গোয়েন্দা সাইবার অ্যান্ড স্পেশাল ক্রাইম বিভাগ। এরই ধারাবাহিকতায় গত রোববার অভিযান চালিয়ে চক্রটির এক সদস্যকে গ্রেফতার করা হয়। গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে এ বিষয়ে জানতে চাইলে গোয়েন্দা ওয়েব বেইজড ক্রাইম ইনভেস্টিগেশন টিমের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার আশরাফ উল্লাহ দৈনিক খোলা কাগজকে জানান, ঠাকুরগাঁও জেলার রাণীশংকৈল থানা এলাকা থেকে চক্রটির এক সদস্য সাইফুল ইসলামকে গ্রেফতার করা হয়। তার কাছ থেকে ফেসবুক হ্যাকিংয়ের কাজে ব্যবহৃত একটি কম্পিউটার, বিকাশে টাকা সংগ্রহ ও দুটি স্মার্টফোন এবং বিভিন্ন অপারেটরের সাতটি সিম উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় তার বিরুদ্ধে লালবাগ থানায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে একটি মামলা করা হয়েছে। চক্রটির অন্য সদস্যদের গ্রেফতারে অভিযান চলবে।

নিরাপত্তা সম্পর্কে সতর্ক হওয়ার পরামর্শ

ডিএমপির অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (ডিবি) এ কে এম হাফিজ আক্তার বলে, একটি চক্র প্রথমে বিভিন্ন লোভনীয় অফার সংবলিত ফিশিং লিংক তৈরি করে টার্গেট করা ফেসবুক আইডির মেসেঞ্জারে (বিশেষ করে নারীদের) পাঠাত। পাঠানো লিংকে ক্লিক করে পাঠানো নির্দেশনা অনুযায়ী তথ্য প্রদান করা মাত্রই ভিকটিমের ফেসবুক আইডিটি এ চক্রের নিয়ন্ত্রণে চলে যেত। এরপর চক্রটির সদস্যরা ভিকটিমের ফেসবুক আইডির বন্ধুদের মেসেঞ্জারে নক করে তাদের কাছে বিভিন্ন অজুহাতে টাকা ধার চাইত এবং টাকা পাঠানোর জন্য নিজের বিকাশ নাম্বার দিত। এভাবে চক্রটি ফেসবুক আইডি হ্যাক করে ভিকটিমদের কাছ থেকে মোটা অঙ্কের টাকা হাতিয়ে নিত। এ চক্রের এক সদস্যকে ঠাকুরগাঁও জেলার রাণীশংকৈল থানা এলাকা থেকে গ্রেফতার করা হয়।

ডিবির এই কর্মকর্তা বলেন, বাংলাদেশের জনগণের মধ্যে ফেসবুক ব্যবহারের প্রবণতা অনেক বেশি। ফেসবুক আইডি নিরাপদ রাখতে সুরক্ষিত পাসওয়ার্ড ব্যবহার ও পরিচিত ব্যক্তি ব্যতীত অপরিচিতদের পাঠানো ফ্রেন্ড রিকয়েস্ট অ্যাকসেপ্ট না করার জন্য অনুরোধ জানান তিনি।

মেয়র তাপসের নামে ফেক আইডি বানিয়ে প্রতারণা

এদিকে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়র শেখ ফজলে নূর তাপসের নামে ভুয়া ফেসবুক আইডি খুলে প্রতারণা করার অভিযোগে আরও দুজনকে গ্রেফতার করেছে গোয়েন্দা সাইবার অ্যান্ড স্পেশাল ক্রাইম বিভাগ।

চক্রটি মেয়র তাপসের নামে ভুয়া ফেসবুক আইডি খুলে নিজেকে মেয়র পরিচয় দিয়ে বিভিন্ন লোকজনের কাছে চাকরি দেওয়ার প্রলোভন দেখিয়ে টাকা দাবি করে বিকাশের মাধ্যমে টাকা গ্রহণ করত। ওই ঘটনায় শাহবাগ থানায় মামলা হলে গত রোববার থেকে ধারাবাহিক অভিযান চালিয়ে রংপুর ও গাজীপুর জেলা থেকে দুজনকে গ্রেফতার করে গোয়েন্দা সাইবার অ্যান্ড স্পেশাল ক্রাইম বিভাগের ওয়েব বেইজড ক্রাইম ইনভেস্টিগেশন টিম। তারা হলো- মো. জাকারিয়া ও মো. একরামুল হক ওরফে রাজু। তাদের কাছ থেকে ফেসবুক ডিভাইস, একটি স্মার্ট ফোন ও টাকা লেনদেন করার কাজে ব্যবহৃত একটি বিকাশ অ্যাকাউন্ট নম্বরের সিম উদ্ধার করা হয়।

তদন্ত সংশ্লিষ্টরা জানান, মেয়র তাপসের নামে ভুয়া আইডি খুলে প্রতারণার অপরাধে মেয়রের এপিএস মনিরুল ইসলামের অভিযোগের ভিত্তিতে গত ১ জানুয়ারি শাহবাগ থানায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা হয়। পরে মামলাটির তদন্ত শুরু করে গোয়েন্দা সাইবার অ্যান্ড স্পেশাল ক্রাইম বিভাগ।

ডিএমপির গোয়েন্দা অফিস কম্পাউন্ডে গতকাল মঙ্গলবার এ বিষয়েও সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন ডিবি কর্মকর্তা এ কে এম হাফিজ আক্তার। তিনি বলেন, মামলাটির তদন্ত করতে গিয়ে রংপুর ও গাজীপুর এলাকা থেকে দুজনকে গ্রেফতার করা হয়। তাদের কাছ থেকে জব্দকৃত মোবাইল ফোনে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়র শেখ ফজলে নূর তাপসের নামে একটি ভুয়া ফেইসবুক আইডি লগইন অবস্থায় পাওয়া যায়।