ফেসবুকের সঙ্গে টিকটকের টক্কর!

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০ | ১২ ফাল্গুন ১৪২৬

ফেসবুকের সঙ্গে টিকটকের টক্কর!

ডেস্ক রিপোর্ট ২:৪৩ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ১৯, ২০২০

print
ফেসবুকের সঙ্গে টিকটকের টক্কর!

ফেসবুকের জন্য হুমকি হিসেবে টিকটককে নিয়ে যদি কারো সন্দেহ থাকে তবে গবেষণা প্রতিষ্ঠান সেন্সর টাওয়ারের সাম্প্রতিক অ্যাপ ডাউনলোডের প্রতিবেদন দেখলে সন্দেহ দূর হয়ে যাবে। ঐ প্রতিবেদন অনুযায়ী, গত বছরের সবচেয়ে বেশি ডাউনলোড হওয়া অ্যাপের তালিকায় দ্বিতীয় অবস্থানে ছিল চীনা প্রতিষ্ঠান বাইটড্যানে্সর তৈরি টিকটক অ্যাপটি। বিশ্লেষকরা বলছেন, ফেসবুকের রাজত্বে হানা দিয়ে উঠে এসেছে টিকটক।

 

কয়েক বছর ধরে ফেসবুকের মালিকানায় থাকা বিভিন্ন অ্যাপ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে ডাউনলোডের তালিকার শীর্ষে ছিল। ২০১৬ ও ২০১৭ সালে সবচেয়ে বেশি ডাউনলোড হওয়া অ্যাপের শীর্ষ চারে ছিল ফেসবুকের অ্যাপ। তবে গত বছরে কেবল টিকটককে ছাড়াতে পেরেছে হোয়াটসঅ্যাপ। এ কারণেই ফেসবুকের জন্য হুমকি মনে করা হচ্ছে টিকটককে।

ফেসবুক ও টিকটক দুটিই বিজ্ঞাপনের অর্থে চালিত প্রতিষ্ঠান। বিজ্ঞাপনদাতা জোগাড় করতেই দুটি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে প্রতিযোগিতা চলছে। এখন এ প্রতিযোগিতা তীব্র আকার ধারণ করেছে। ব্যবহারকারী বাড়তে থাকায় ফেসবুকের বিজ্ঞাপনদাতাদের আকৃষ্ট করছে টিকটক। এর বাইরে ফেসবুকের কর্মীদেরও নানা অফার দিয়ে নিয়োগ দিচ্ছে টিকটক। এসব কর্মীর মধ্যে ফেসবুকের বিজ্ঞাপন বিভাগের অভিজ্ঞ কর্মীরা বেশি প্রাধান্য পাচ্ছেন।

বিজ্ঞাপনের বাজারে দর্শক বা পাঠকসংখ্যা গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। ফেসবুক তাদের সব ধরনের সামাজিক যোগাযোগের অ্যাপ মিলিয়ে প্রায় ৬০০ কোটি মানুষের কাছে পৌঁছায়। এতে প্রতিদ্বন্দ্বীদের তুলনায় বিজ্ঞাপন থেকে বেশি আয় করতে পারে প্রতিষ্ঠানটি। ২০১৯ সালের তৃতীয় প্রান্তিকেই ১৭ দশমিক ৪ বিলিয়ন মার্কিন ডলার বিজ্ঞাপন থেকে আয় করেছে প্রতিষ্ঠানটি। এ তুলনায় টুইটার মাত্র ৭০ কোটি ২০ লাখ ডলার আয় করেছে। পিন্টারেস্ট ও স্ন্যাপ তাদের বিজ্ঞাপনের আয় ঘোষণা করেনি। গত বছরের তৃতীয় প্রান্তিকে এ দুটি প্রতিষ্ঠান ২৮ কোটি এবং ৪৪ কোটি ৬০ লাখ ডলার রাজস্ব দেখিয়েছে।

ফেসবুকের তুলনায় টুইটার, পিন্টারেস্ট ও স্ন্যাপের ব্যবহারকারীর সংখ্যা কম। বছরের তৃতীয় প্রান্তিকে দৈনিক টুইটার ব্যবহারকারী ছিলেন মাত্র সাড়ে ১৪ কোটি। এর আগে প্রতি মাসের হিসাবে টুইটার ৩৩ কোটি ব্যবহারকারীর কথা বলেছিল। বছরের তৃতীয় প্রান্তিকে পিন্টারেস্ট মাসিক ২৮ কোটি ব্যবহারকারী থাকার কথা বলেছে। স্ন্যাপ বলেছে তাদের এখন দৈনিক ২১ কোটি ব্যবহারকারী রয়েছে।

অন্যদিকে, শুধু ফেসবুকের মূল নেটওয়ার্ক ব্যবহারকারী ২৪০ কোটি, যার মধ্যে দৈনিক ১৬০ কোটি মানুষ ফেসবুক ব্যবহার করছেন। এর বাইরে ১৫০ কোটি মাসিক হোয়াটসঅ্যাপ ব্যবহারকারী রয়েছেন। মাসিক ইনস্টাগ্রাম ব্যবহারকারী ১০০ কোটি আর দৈনিক ৫০ কোটি ব্যবহারকারী ফেসবুকের এই ফটো শেয়ারিং সেবাটি ব্যবহার করছেন।

ফেসবুক যেহেতু তাদের ব্যাপক ব্যবহারকারী দেখিয়ে বিজ্ঞাপন থেকে আয় করছে, সেখানেই টিকটকের দ্রুত জনপ্রিয়তা বিজ্ঞাপনদাতাদের টেনে আনছে।

ফেসবুকের রুটি-রুজি মূলত বিজ্ঞাপন। গত বছরে ফেসবুকের আয়ের ৯৯ শতাংশই এসেছে এ খাত থেকে। এ বিজ্ঞাপনের বাজারে টিকটকের কাছে হেরে গেলে ফেসবুকের জন্য মারাত্মক দুর্দশা অপেক্ষা করছে। টিকটককে ঠেকাতে নানা ধরনের পরিকল্পনা নিয়ে এগোচ্ছে ফেসবুক। তবে তাদের সেসব পরিকল্পনা ঠিকমতো কাজ করবে কি না, তার নিশ্চয়তা নেই। এশিয়া অঞ্চলে আরো বেশি ব্যবহারকারী বাড়াতে নানা ধরনের কৌশলগত পরিকল্পনা নিয়ে এগোচ্ছে টিকটক। প্রশ্ন উঠছে, ফেসবুক পারবে তো?

সূত্র: মার্কেটরিয়ালিস্ট ডটকম