ক্ষতিকর মোবাইল অ্যাপ্লিকেশন

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২০ আগস্ট ২০১৯ | ৪ ভাদ্র ১৪২৬

ক্ষতিকর মোবাইল অ্যাপ্লিকেশন

ভারত-যুক্তরাষ্ট্রে বেশি প্রতারণা

ডেস্ক রিপোর্ট ১১:৪৪ পূর্বাহ্ণ, মে ২৫, ২০১৯

print
ক্ষতিকর মোবাইল অ্যাপ্লিকেশন

নিরাপত্তা গবেষণা প্রতিষ্ঠান আরএসের এক গবেষণা প্রতিবেদনে সম্প্রতি বলা হয়েছে-ক্ষতিকর মোবাইল অ্যাপ্লিকেশনের মাধ্যমে প্রতারণামূলক আক্রমণ বেড়েছে। চলতি বছরের প্রথম তিন মাসে গত বছরের শেষ প্রান্তিকের তুলনায় ফ্রড অ্যাটাক বা প্রতারণামূলক আক্রমণ ৩০০ শতাংশ বেড়ে গেছে। এ ধরনের আক্রমণ চালানোর দিক থেকে যুক্তরাষ্ট্র ও ভারতের অবস্থান শীর্ষে।

‘দ্য ফ্রড অ্যাটাক ট্রেন্ডস : কিউ ২০১৯’ শীর্ষক প্রতিবেদনে বলা হয়, প্রতারণামূলক আক্রমণের মধ্যে ২৯ শতাংশ আক্রমণই ‘ফিশিং আক্রমণ’। মানুষকে মেইল বা নানা অনলাইন মাধ্যমে বিভিন্ন প্রলোভন দেখিয়ে ক্ষতিকর প্রোগ্রাম ডাউনলোড করতে বলা হয়। এর মাধ্যমে অর্থসহ গুরুত্বপূর্ণ তথ্য হাতিয়ে নিতে পারে দুর্বৃত্তরা। বিশেষজ্ঞরা বলেন, ফিশিং শুধু অনলাইনে আর্থিক প্রতারণা নয়, নানা ভুয়া লিংক, বার্তা, অ্যাকাউন্ট, ব্যক্তি ও সাইটের অনুকরণ করে এ ধরনের আক্রমণ চালায় সাইবার দুর্বৃত্তরা। ক্ষতিকর মোবাইল অ্যাপ্লিকেশনগুলোর মাধ্যমে আক্রমণ বেড়ে যাওয়ায় ফিশিং আক্রমণ আগের তুলনায় কমেছে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

ফিশিং আক্রমণের লক্ষ্যবস্তু হওয়া দেশের মধ্যে শীর্ষে রয়েছে- কানাডা, স্পেন ও নেদারল্যান্ডস। আক্রমণের ৭৮ শতাংশই এ তিন দেশে ঘটছে। আরএসের শীর্ষ ফিশিং আক্রমণের লক্ষ্যে থাকা দেশের মধ্যে বাংলাদেশও রয়েছে। তবে বাংলাদেশ শীর্ষ দশে নেই। এ তালিকায় ব্রাজিলকে টপকে ওপরে উঠে এসেছে ফিলিপাইন। ২ শতাংশ আক্রমণের লক্ষ্যবস্তু এখন দেশটি। এ ছাড়া দক্ষিণ আফ্রিকা, মেক্সিকো, তুরস্কেও আক্রমণের ঝুঁকি বেড়েছে।

আরএসের প্রতিবেদনে বলা হয়, সাইবার প্রতারণা থেকে সুরক্ষিত থাকতে পুরনো ধাঁচের ইউজার নেম ও পাসওয়ার্ড এখন যথেষ্ট নয়। একাধিক স্তরের অথেনটিকেশন প্রক্রিয়া চালু করে ডিভাইসে ভুয়া আক্রমণ থেকে সুরক্ষিত থাকা সম্ভব।