দেশেই ট্রাভেল বিষয়ক ওয়েবসাইট দিচ্ছে ‘এ ফোর অ্যারো’

ঢাকা, বুধবার, ১৯ জুন ২০১৯ | ৫ আষাঢ় ১৪২৬

দেশেই ট্রাভেল বিষয়ক ওয়েবসাইট দিচ্ছে ‘এ ফোর অ্যারো’

নিজস্ব প্রতিবেদক ১১:০৪ পূর্বাহ্ণ, মার্চ ০৬, ২০১৯

print
দেশেই ট্রাভেল বিষয়ক ওয়েবসাইট দিচ্ছে ‘এ ফোর অ্যারো’

তীব্র যানজটের শহর ঢাকা। সারা বছরই যানজটের এই তীব্রতা থাকে রাজধানীর এই শহরে। একদিকে যেমন যানজট অন্যদিকে মানুষের ভিড় আর সময়ের অভাব। ব্যস্ত শহরের ব্যস্ত মানুষদের সব থেকে বড় সমস্যাগুলোর মধ্যে ভ্রমনের জন্য টিকিট কেনা অন্যতম।

দিন দিন তথ্য-প্রযুক্তির উন্নয়নে ব্যস্ত মানুষের এ টিকিট কেনার সব ঝামেলা দূর করে দিয়েছে বহুগুণ। ফলে তথ্য-প্রযুক্তির এ সেবাগুলো ব্যবহার করে সস্তিও ফিরেছে সব শ্রেণির মানুষের। কাউন্টারে প্রায়ই টিকেট থাকে না বা টিকেট কাটার মত পরিস্থিতি থাকে না। তাই ঝটপট কোনো ঝামেলা ছাড়াই ঘরে বসেই মানুষ সেরে ফেলেন টিকিট কেনার কাজটি।

অন্যদিকে তরুণ সমাজে অনলাইন বা ই-বিজনেস খুবই জনপ্রিয়। ফলে বিমানের টিকিট বিক্রিসহ বিভিন্ন ট্রাভেল বিষয়ক ওয়েবসাইটের ব্যবসা বদলে দিতে পারে তরুণ সমাজের ভাগ্য। কিন্তু একজন তরুণের কাছে এ রকম একটা উদ্যোগ নেয়া এত সহজ না। কারণ ব্যবসা করতে গেলে নানা প্রতিবন্ধকতার সম্মুখীন হতে হয়।

তার মধ্যে যদি ভ্রমণ বিষয়ক কোন অনলাইন ব্যবসা করতে চায় তাহলে তাদের প্রথমেই দরকার একটি ওয়েবসাইট। বিমানের টিকিট বিক্রির ওয়েবসাইট দেখতে অনেক সহজ ও সুন্দর হলেও তা সঠিকভাবে বাস্তবায়ন করা অনেক কঠিন একটি কাজ। দরকার হয় দক্ষ আইটি টিম।

অনেক তরুণের কাছে ভালো কোনো বিজনেস আইডিয়া থাকলেও দক্ষ আইটি টিম না থাকার কারণে তা বাস্তবায়ন করা সম্ভব হয় না।
বাংলাদেশে বিভিন্ন এয়ারলাইন্স বা বড় বড় ট্রাভেল কোম্পানি ওয়েবসাইটগুলো বেশিরভাগই পূর্বে দেশের বাইরের বিভিন্ন সফটওয়্যার কোম্পানি থেকে করা হতো।

কিন্তু সময় বদলেছে; আর ডিজিটাল বাংলাদেশের অগ্রগতির ধারায় বাংলাদেশেও গড়ে উঠেছে বিশ্বমানের প্রতিষ্ঠান। বর্তমানে ভ্রমণ বিষয়ক বিভিন্ন সফটওয়্যার, ওয়েবসাইট, ডাটা সেবা নিয়ে হাজির হয়েছে তেমনি একটি দেশীয় কোম্পানি ‘এ ফোর অ্যারো’ (A4aero)। তাদের তৈরী করা ভ্রমণ বিষয়ক ওয়েবসাইট দেশে-বিদেশে সুনাম কুড়াচ্ছে।

প্রতিষ্ঠানটির শুরু, সফলতা ও এগিয়ে চলা গল্পটি জানতে কথা হলো প্রতিষ্ঠানটির প্রতিষ্ঠাতা ও সিইও আশরাফ আহমেদ, ভাইস চেয়ারম্যান পারভেজ আলম ও সিওও আশিকুজ্জামানের সাথে।

আশরাফ জানালেন, ২০০৫ সালে ইস্টার্ন ইউনিভার্সিটি থেকে কম্পিউটার সায়েন্স এন্ড টেকনোলজি নিয়ে পড়াশোনা করে বের হন তারা কয়েকজন বন্ধু। তারা একসাথে কিছু একটা শুরু করার পরিকল্পনা করতে থাকেন। শুরুতে তারা বিভিন্ন ফ্রিল্যান্সিং সাইটগুলোতে নিজেদের দক্ষতা যাচাই করতে শুরু করেন এবং আপওয়ার্কসহ বিভিন্ন ফ্রিল্যান্সিং সাইটে নিজেদের কাজের মাধ্যমে তারা সেরাদের কাতারে চলে আসেন। ফলে নিজেদের উপরে কনফিডেন্স বেড়ে গিয়েছিল অনেক বেশি। স্বপ্ন দেখতে শুরু করেন নিজেদের প্রতিষ্ঠান তৈরীর। ২০১০ সালে এসে প্রথম নিজেদের কোম্পানি প্রতিষ্ঠান করার চিন্তা আসে বন্ধুদের মাঝে। একসাথে মিলে কাজ শুরুও করেন। তবে নিজেদের চাকরি ছেড়ে বা ফ্রিল্যান্সিং ছেড়ে কোম্পানিতে তারা ভ্রমণ ও অন্যান্য বড় কাজ শুরু করেন ২০১৪ সাল থেকে। এ ফোর অ্যারোর অফিশিয়াল বয়স তাই একবছর হলেও এই টিমের অভিজ্ঞতা ১০-১২ বছরের, ভ্রমণ বিষয়ক কাজের অভিজ্ঞতাও ৫ বছরের।

ভ্রমণ বিষয়ক কাজে সাথে যুক্ত হওয়া কিভাবে জানাতে গিয়ে ভাইস চেয়ারম্যান পারভেজ আলম জানালেন, ফ্রিল্যান্সিং করার সুবাদে বিভিন্ন দেশে তাদের সকলেরই বড় বড় প্রতিষ্ঠানগুলোর সাথে কমিউনিকেশন ছিল। ২০১৪ সালে তারা ফিলিপাইন থেকে একটি ট্রাভেল বিষয়ক কাজ পান। সেখান থেকে শুরু। এরপর একের পর এক ভ্রমণ বিষয়ক নানা ওয়েবসাইট, সফটওয়্যার তৈরী করার কাজের সুবাদে দক্ষতা অর্জন করতে থাকেন তারা। বাংলাদেশের ট্রাভেল সেক্টরে যেহেতু দেশীয় কোন কোম্পানি তেমন ভাল কাজ করতে পারছে না; তাই ক্রমে ক্রমে দেশীয় বিভিন্ন কোম্পানির কাজও করতে শুরু করেন তারা এবং সফলতার সাথে বাংলাদেশ বিমানের হলিডে উইং বিমান হলিডেজের ওয়েবসাইটের কাজ করেন তারা। ক্রমে ক্রমে ট্রাভেল শপ সহ বিভিন্ন ভ্রমণ বিষয়ক প্রতিষ্ঠানকে সেবা প্রদান করেছে এ ফোর অ্যারো। এছাড়া স্টার হলিডেজ, ২৪ টিকেটস, সেঞ্চুরি ট্রাভেলস (লেবানন), ইয়াআতা (সুলেমানিয়া) সহ আরও ২ টি ভ্রমণ বিষয়ক প্রতিষ্ঠানের ডেভেলপমেন্টের কাজ প্রক্রিয়াধীন আছে।

বিভিন্ন এয়ারলাইন যেমন- বাংলাদেশ বিমানের SITA, মালিন্দো এয়ারলাইন্সের GoQuo, ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্সের Zenith, রিজেন্ট এয়ারওয়েজের VRS হোস্ট ইঞ্জিন এবং হোটেল ও ফ্লাইট অ্যাগ্রিগেটর যেমন মিস্টিফ্লাই, ভায়া, ডিওটিডব্লিও, সাথে কাজ করার সুবাদের ভ্রমণ বিষয়ক সল্যুশন প্রদানে দক্ষতা অনেক বেড়েছে বলে মানে করেন তারা।

এছাড়া বিভিন্ন জিডিএস যেমন Sabre, Travel Port এবং Amadeus ইন্টিগ্রেশনেও আছে তাদের অভিজ্ঞতা। ফলে এখন দেশে ও দেশের বাইরে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানগুলোকে ট্রাভেল পোর্টাল, অ্যাপ সল্যুশন সহ বিভিন্ন সেবা প্রদান করছে এ ফোর অ্যারো।

নিজেদের সেবা সম্পর্কে বলতে গিয়ে প্রতিষ্ঠানে সিওও আশিকুজ্জামান জানান, বর্তমানে ভ্রমণ সেক্টরের অনলাইন সল্যুশনের ক্ষেত্রে এদেশেই আন্তর্জাতিক মানের সেবা পাওয়া যাচ্ছে এবং সেই সেবা দিচ্ছে এ ফোর অ্যারো (A4aero)। এই প্রতিষ্ঠানটি এখন এয়ারলাইন্স বিষয়ক সকল ধরনের সল্যুশন, ট্রাভেল পোর্টাল ডেভেলপমেন্ট, বিটুবি অনলাইন ট্রাভেল পোর্টাল, বিটুসি ট্রাভেল পোর্টাল, পেমেন্ট গেটওয়ে ইন্টিগ্রেশন, ডাটা এনালাইসিস, এপিআই ডেভেলপমেন্ট ও এন্টিগ্রেশন, ট্রাভেল অ্যাপ তৈরীসহ সবধরনের ভ্রমণ বিষয়ক সেরা সেবা প্রদান করছে প্রতিষ্ঠানটি।

তাদের মতে, বিভিন্ন দেশীয় প্রতিষ্ঠান অন্যদেশ থেকে এই সেবাগুলো নিয়ে পরবর্তীতে তা বাস্তবায়ন করতে পারছে না অনেকাংশে, নানা সমস্যার সম্মুখীন হচ্ছে বিজনেস কালচার গ্যাপের কারণে। এ ফোর অ্যারো একটি দেশীয় প্রতিষ্ঠান এবং বিভিন্ন দেশীয় ও আন্তর্জাতিক কাজ করে তারা আন্তর্জাতিক মানের কাজ করার দক্ষতা অর্জন করেছে, ফলে দেশের ট্রাভেল সেক্টরটিকে ডিজিটাল করার ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে চায় প্রতিষ্ঠানটি দেশীয় ভ্রমণ প্রতিষ্ঠানগুলোকে টেকনিকাল সাপোর্ট দেওয়ার মাধ্যমে।

ভবিষ্যৎ পরিকল্পনার কথা জানতে চাইলে সিইও আশরাফ আহমেদ বলেন, ট্রাভেল সেক্টরে পেমেন্ট বিষয়টি এখনও জটিল অবস্থায় আছে; এই জটিলতা কমাতে নতুন সল্যুশন তৈরী করছে এ ফোর অ্যারো। যা কিছুদিনের মধ্যেই বাজারে নিয়ে আসা হবে। ট্রাভেল সেক্টরে সঠিক দামে আন্তর্জাতিক মানের সেবা প্রদান করে বিভিন্ন ভ্রমণ বিষয়ক প্রতিষ্ঠান ও উদ্যোগকে সহায়তা প্রদান করতে চায় এই প্রতিষ্ঠানটি।

আপনারও যদি ভ্রমণ বিষয়ক প্রতিষ্ঠান থাকে বা ভ্রমণ বিষয়ক কোন অনলাইন কোম্পানি বা স্টার্টআপের কথা ভাবছেন তাহলে এ ফোর অ্যারো (A4aero) হতে পারে আপনার সেরা অপশন। প্রতিষ্ঠানটি সম্পর্কে আরও জানতে পারেন তাদের ওয়েবসাইট https://a4aero.com ও ফেসবুক পেইজ https://www.facebook.com/a4aero থেকে।