প্রধানমন্ত্রিত্ব এবং মাতৃত্ব

ঢাকা, বুধবার, ১৯ জুন ২০১৯ | ৫ আষাঢ় ১৪২৬

প্রধানমন্ত্রিত্ব এবং মাতৃত্ব

রোকেয়া ডেস্ক ৩:১১ অপরাহ্ণ, মে ১৫, ২০১৯

print
প্রধানমন্ত্রিত্ব এবং মাতৃত্ব

এ পর্যন্ত রাষ্ট্রের সর্বোচ্চ ক্ষমতার স্বাদ এবং একজন নারীর সর্বোচ্চ আকাক্সিক্ষত ‘মাতৃত্বে’র স্বাদ একই সঙ্গে আস্বাদন করেছেন দুজন মাত্র নারী। পৃথিবীর হাজারো রেকর্ডের ভিড়ে এটি নিশ্চয়ই আলাদা তাৎপর্য বহন করে। এই দুই নারী প্রমাণ করেছেন, একজন নারী রাষ্ট্রের সর্বোচ্চ অবস্থানে থেকে নানা চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করার পরও সন্তানের জন্ম যেমন দিতে পারেন তেমনি নিজের কাজেরও আঞ্জাম দিতে পারেন সুচারূরূপে।

প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্বে থাকা অবস্থায় সন্তানের জন্ম দিয়ে বিশ্বজুড়ে গণমাধ্যমের শিরোনাম হয়েছেন নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী জাসিন্ডা আরডার্ন। বিবৃতিতে নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘ক্লার্ক (জাসিন্ডা আরডার্নের স্বামী) ও আমি খুবই উচ্ছ্বসিত।’

জাসিন্ডা আরডার্ন হচ্ছেন দ্বিতীয় সরকারপ্রধান যিনি দায়িত্বে থাকা অবস্থায় সন্তানের মা হলেন। জাসিন্ডার আগে এই সৌভাগ্যের অংশীদার ছিলেন পাকিস্তানের প্রয়াত প্রধানমন্ত্রী বেনজির ভুট্টো, যিনি প্রধানমন্ত্রী থাকা অবস্থায় সন্তানের জন্ম দিয়েছিলেন। এখানে কিছু কাকতালীয় পাওয়া যায়। নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী জাসিন্ডা আরডার্ন যেদিন সন্তানের জন্ম দিয়েছেন অর্থাৎ ২১ জুন পাকিস্তানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেনজির ভুট্টোরও জন্মদিন। ৬৫ বছর আগে এ দিনটিতে জন্মগ্রহণ করেছিলেন বেনজির ভুট্টোও।

নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী ৩৭ বছর বয়সে সন্তানের জন্ম দিয়েছেন। বেনজির ভুট্টোও ৩৭ বছর বয়সে অর্থাৎ ১৯৯০ সালে তার কন্যা বখতাওয়ার ভুট্টো জারদারিকে জন্ম দিয়েছিলেন। নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রীর মা হওয়ার খবরে তাকে অভিনন্দন জানিয়েছেন বর্তমানে ২৮ বছর বয়সী সেই কন্যা বখতাওয়ার ভুট্টো। বখতাওয়ার ভুট্টো জারদারি তার টুইট বার্তায় লিখেছেন, ‘বেনজির ভুট্টো দেখিয়েছিলেন, আপনি একই সঙ্গে মা হতে পারেন এবং প্রধানমন্ত্রীও থাকতে পারেন।’

মিস আরডার্নের সন্তান ভূমিষ্ঠ হওয়ার ছয় মাস আগেই ঘোষণা দিয়েছিলেন, তিনি সন্তানসম্ভবা। তিনি ছয় সপ্তাহের মাতৃত্বকালীন ছুটি নিয়েছিলেন এবং তার সহকারীর কাছে সাময়িক সময়ের জন্য দায়িত্ব হস্তান্তর করেছেন। কিন্তু বেনজির ভুট্টো তার গর্ভবতী হওয়ার বিষয়টি গোপন রেখেছিলেন এবং ডাক্তারের পরামর্শে দ্রুত কাজে ফিরে আসেন।