শিরক থেকে মুক্ত থাকব কীভাবে?

ঢাকা, শনিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২০ | ৪ আশ্বিন ১৪২৭

শিরক থেকে মুক্ত থাকব কীভাবে?

খোলা কাগজ ডেস্ক ১০:৩০ পূর্বাহ্ণ, জানুয়ারি ১৯, ২০২০

print
শিরক থেকে মুক্ত থাকব কীভাবে?

তানিয়া সুলতানা, ঈশ্বরদী, পাবনা।

শুভেচ্ছা মানে শুভ ইচ্ছা। অর্থাৎ যে বিষয়ের শুভেচ্ছা জানানো হচ্ছে, তার মঙ্গল এবং কল্যাণ কামনা করা। কিন্তু শিরক এমন এক ভয়াবহ গুনাহ, অন্য কোনো গুনাহ যার কাছেও নেই। স্বয়ং আল্লাহ সুবহানাহু ওয়া তাআলার ভাষায় এটি হচ্ছে- মহা অন্যায় (সূরা লোকমান-১৩)। অন্য গুনাহের কাজে সরাসরি আল্লাহতায়ালাকে অপমান করা না হলেও শিরকের মতো গুনাহে সুস্পষ্টভাবে আল্লাহতায়ালাকে অপমান করা হয়। যে উৎসবে মহান আল্লাহকে অপমান করা হয়, সেই উৎসবে মুসলমানদের পক্ষ থেকে শুভেচ্ছা জ্ঞাপন করা কোনোভাবেই বৈধ নয়।

আল্লাহ তায়ালা বলেন, নিশ্চয়ই আল্লাহ তার সঙ্গে শিরক করার গুনাহ ক্ষমা করেন না। এতদ্ব্যতীত অন্য অপরাধ তিনি যাকে ইচ্ছা ক্ষমা করে দেন। আর যে লোক অংশীদার সাব্যস্ত করল আল্লাহর সঙ্গে, সে যেন মহা অপবাদ আরোপ করল (সূরা নিসা-৪৮)।

তবে ইসলামে প্রতিবেশীর অধিকার খুবই গুরুত্বপূর্ণ। তাই শাস্তিপূর্ণ সহাবস্থানের জন্য সংখ্যালঘু হিসেবে তাদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করা আমাদের ধর্মীয় দায়িত্ব। তারা তাদের উৎসব পালন করুন। মুসলমানদের যেমন সেখানে শুভেচ্ছা জানানো জায়েজ নেই, তেমনি কোনো কটুকথা বলারও অনুমতি নেই। কোরআনে নিষেধ এসেছে তাদের প্রতিমাগুলোকে কটূক্তি করতে। কারণ তখন তারা না জেনে আল্লাহতায়ালাকে পাল্টা গালি দেবে। এ ব্যাপারেও আমাদের সতর্কতা কাম্য।

আল্লাহতায়ালা বলেন, আল্লাহকে ছেড়ে যাদের তারা ডাকে তাদের তোমরা গালি দিও না; কারণ এতে তারাও সীমালঙ্ঘন করে অজ্ঞতাবশত আল্লাহকে গালি দেবে। এমনিভাবে আমি প্রত্যেক সম্প্রদায়ের দৃষ্টিতে তাদের কাজ-কর্ম সুশোভিত করে দিয়েছি। অতঃপর স্বীয় পালনকর্তার কাছে তাদের প্রত্যাবর্তন করতে হবে। তখন তিনি তাদের বলে দেবেন, যা কিছু তারা করত। (সূরা আল-আনআম-১০৮)।