হালাল উপার্জনের প্রয়োজনীয়তা

ঢাকা, বুধবার, ১৭ জুলাই ২০১৯ | ২ শ্রাবণ ১৪২৬

হালাল উপার্জনের প্রয়োজনীয়তা

খোলা কাগজ ডেস্ক ৯:৩৪ পূর্বাহ্ণ, জুলাই ১০, ২০১৯

print
হালাল উপার্জনের প্রয়োজনীয়তা

বিষয়টি জানতে চেয়েছেন তাহমিনা, দিনাজপুর থেকে।

হালাল উপার্জন ইবাদত কবুলের পূর্বশর্ত। উপার্জন হালাল না হলে বান্দার দোয়া ও ইবাদত কোনো কিছুই কবুল হয় না। তাই মুমিনের প্রধান দায়িত্ব হালাল উপার্জন করা এবং হারাম বর্জন করা। কিন্তু যথাযথ জ্ঞান না থাকায় অনেকেই জড়িয়ে পড়েন হারামের সঙ্গে। ফলে নষ্ট হয় সারা জীবনের আমল ও ইবাদত। পবিত্র কোরআনে ইরশাদ হয়েছে, ‘তিনিই সেই মহান সত্তা, যিনি পৃথিবীর সবকিছু তোমাদের (ব্যবহারের জন্য) তৈরি করেছেন (সূরা বাকারা-২৯)।

হাদিসে এসেছে, হজরত রাফে ইবনে খাদিজা (রা.) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, রসুল (সা.)কে জিজ্ঞেস করা হয়েছিল, সর্বোত্তম উপার্জন কোনটি? জবাবে তিনি বলেন, ব্যক্তির নিজস্ব শ্রমলব্ধ উপার্জন ও সততার ভিত্তিতে ক্রয়-বিক্রয় (মুসনাদে আহমাদ, খণ্ড-৪ ১৪১)।

নবী-রসুলগণের ইতিহাস পর্যালোচনা করলে দেখা যায়, তারা নিজ হাতে কর্ম সম্পাদনকে অধিক পছন্দ করতেন। আমাদের প্রিয়নবী (সা.) জীবনে প্রাথমিক সময়ে ছাগল চরানো ও পরবর্তীতে খাদিজা (রা.)-এর ব্যবসায়িক দায়িত্ব পালনের বর্ণনা পাওয়া যায়, যা নিজ হাতে জীবিকা নির্বাহে উৎকৃষ্ট প্রমাণ বহন করে।