মোবাইল চাওয়ায় মেয়েকে হত্যা করেন বাবা: পুলিশ

ঢাকা, রবিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২১ | ৫ বৈশাখ ১৪২৮

মোবাইল চাওয়ায় মেয়েকে হত্যা করেন বাবা: পুলিশ

নিজস্ব প্রতিবেদক ৯:৩৮ অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ২৭, ২০২১

print
মোবাইল চাওয়ায় মেয়েকে হত্যা করেন বাবা: পুলিশ

কার্টুন দেখার জন্য মোবাইল চাওয়ায় নিজের আট বছরের কন্যাশিশুকে হত্যা করেছেন পাষণ্ড বাবা।
নীলফামারীর সৈয়দপুর উপজেলায় ১০ মাস আগে এ ঘটনা ঘটে। শিশুটির বাবা নুর মোহাম্মদকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। ইতোমধ্যে আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন তিনি। শনিবার রংপুরের পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে এসব তথ্য জানায়।

বিজ্ঞপ্তিতে পিবিআই জানায়, সৈয়দপুরের রসুলপুর রেল কোয়ার্টারে পরিবার নিয়ে থাকতেন নুর মোহাম্মদ। গত বছরের ৩ এপ্রিল জুমার নামাজ শেষে স্ত্রী ও দুই সন্তান নূপুর (৮) ও আবু সোহানকে (৭) নিয়ে বাড়িতে টিভি দেখছিলেন নূর মোহাম্মদ। দুই সন্তানের ঝগড়ার একপর্যায়ে বড় মেয়ে নূপুর কার্টুন দেখতে বাবার মোবাইলটি বারবার চাইলে তা না দেওয়ায় বাবাকে গালি দেয় মেয়ে। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে নিজের মেয়ের গলা চেপে ধরেন নূর মোহাম্মদ। একপর্যায়ে শ্বাসরোধে নূপুর মারা যায়। ঘটনাটি আত্মহত্যা বলে চালিয়ে দিতে ওড়না দিয়ে ফাঁস লাগিয়ে তার লাশ ঝুলিয়ে রাখা হয়েছিল। ওই দিন সৈয়দপুর থানা-পুলিশ অপমৃত্যু মামলা করে ময়নাতদন্তে নামে। অপমৃত্যু মামলাটি ১০ মাস পর রংপুর পিবিআই’কে তদন্তের দায়িত্ব দেওয়া হয়। পিবিআই তদন্ত দায়িত্ব পাওয়ার পর ১১ দিনের মাথায় প্রকৃত মৃত্যুর কারণ উদঘাটন করে।

রংপুর পিবিআইয়ের পুলিশ সুপার এ বি এম জাকির হোসেন বলেন, ‘ঘটনার ১০ মাস পর মামলাটি পিবিআইকে তদন্তের নির্দেশ দেওয়া হলে মাত্র ১১ দিনের মাথায় আমরা মূল রহস্য উদ্‌ঘাটনে সক্ষম হয়েছি।’

এ ঘটনায় গত বৃহস্পতিবার জিজ্ঞাসাবাদের জন্য নূর মোহাম্মদকে আটক করেন। নীলফামারীর সৈয়দপুর আমলি আদালত-২ এ ১৬৪ ধারায় জবানবন্দিতে মেয়ে হত্যার ঘটনা স্বীকার করেন তিনি। পরে নূর মোহাম্মদকে হত্যা মামলায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে নীলফামারী জেলা কারাগারে পাঠানো হয়।