দেশীয় মালিকানাধীন সিগারেট কোম্পানি বাঁচানোর দাবি

ঢাকা, শুক্রবার, ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২১ | ১৪ ফাল্গুন ১৪২৭

দেশীয় মালিকানাধীন সিগারেট কোম্পানি বাঁচানোর দাবি

রংপুর অফিস ৮:৫৯ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ১৭, ২০২১

print
দেশীয় মালিকানাধীন সিগারেট কোম্পানি বাঁচানোর দাবি

শতভাগ দেশীয় মালিকানাধীন সিগারেট কোম্পানিগুলোর অস্তিত্ব রক্ষাসহ তামাক নির্ভর উত্তরাঞ্চলের কৃষিকে বাঁচানোর দাবি জানিয়েছেন ক্ষতিগ্রস্ত চাষিরা।

রোববার রংপুর প্রেস ক্লাবের সামনে অনুষ্ঠিত মানববন্ধন সমাবেশে এ দাবি জানান তারা।

মানববন্ধনে তামাকচাষি শহিদুল ইসলাম ও তহিদুল ইসলাম বলেন, আমাদের দেশীয় সিগারেট কোম্পানিগুলো দিন দিন বন্ধ হয়ে যাচ্ছে। এভাবে চলতে থাকলে আমাদের ফসল কার কাছে বিক্রি করব। কোম্পানিগুলোর অস্তিত্ব রক্ষা না হলে আমাদের মতো চাষিরাও বাঁচবে না। আমরা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে বাঁচার জন্য আকুতি জানাচ্ছি।

কৃষকরা বলেন, দেশে ব্যবসারত ২৬টি সিগারেট কোম্পানির মধ্যে ২৪টিই শতভাগ দেশীয় মালিকানাধীন। আর দুইটি বিদেশি মালিকানাধীন। বাজেটে সিগারেটের দাম ও করহার নির্ধারণে দেশি ও বিদেশি কোম্পানিগুলোকে একই কাতারে আনা হয়েছে। এতে দেশীয় মালিকানাধীন কোম্পানিগুলোর সুরক্ষা দেওয়া হয়নি। এখন বিদেশিদের সঙ্গে প্রতিযোগিতায় দেশীয় কোম্পানিগুলো টিকে থাকতে হিমশিম খাচ্ছে। এতে মালিকদের পাশাপাশি আমরা ভীষণ ক্ষতির মুখে পড়েছি। লাখ লাখ কৃষক, শ্রমিকের আয়ের পথ বন্ধ হওয়ার পথে।

বক্তারা বলেন, ২০১৭-১৮ অর্থবছরে প্রধানমন্ত্রীর দেশীয় ব্র্যান্ডের বিড়ি সিগারেটের পৃথক মূল্য নির্ধারণের নির্দেশনা বাস্তবায়ন করতে হবে। ২০১৮-১৯ অর্থ বাজেটে শুধুমাত্র দেশীয় মালিকানাধীন কোম্পানিগুলো সংরক্ষিত রাখার জন্য সংসদে অনুমোদন পাওয়ার পর আজও তা বাস্তবায়ন হয়নি।

এ অবস্থায় তামাক শিল্পকে বাঁচাতে নিম্নস্ল্যাবের সিগারেট উৎপাদনে শতভাগ দেশীয় মালিকানাধীন কোম্পানির জন্য রিজার্ভ, কর নির্ধারণ হার কমানোসহ শ্রমিকদের স্বার্থ সংরক্ষণ করা জরুরি হয়ে পড়েছে।

এতে বক্তব্য রাখেন, শ্রমিক ফেডারেশনের সভাপতি আমিনুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক আতিকুল ইসলাম আতিকসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের শ্রমিক ও কর্মচারীরা।

প্রায় পাঁচ শতাধিক কৃষক, শ্রমিক, কর্মকর্তা ও কর্মচারী মানববন্ধন সমাবেশে অংশ নেন।