হরিপুরে রাস্তার পাশে লাউ সিম

ঢাকা, শনিবার, ২৩ জানুয়ারি ২০২১ | ৯ মাঘ ১৪২৭

হরিপুরে রাস্তার পাশে লাউ সিম

ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি ৫:২৩ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ০২, ২০২০

print
হরিপুরে রাস্তার পাশে লাউ সিম

করোনা ভাইরাসজনিত উদ্ভুত পরিস্থিতিতে প্রধানমন্ত্রীর সদয় নির্দেশনা প্রতিপালনে খাদ্য উৎপাদন বাড়াতে হবে। বসতবাড়ির আঙিনাসহ সব পতিত জমিতে শাকসবজি, ফলমূল ও অন্য ফসলের চাষ করতে হবে। এ ক্ষেত্রে সরকারি প্রণোদনা অব্যাহত থাকবে। প্রধানমন্ত্রীর শেখ হাসিনা ও কৃষি মন্ত্রণালয়ের করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে সরকার ঘোষিত কৃষি উৎপাদনকে আরো গতিশীল করার লক্ষে ঠাকুরগাঁওয়ের হরিপুর উপজেলার বিভিন্ন রাস্তার ধারে অথবা উঠানে (আঙিনা) দেখা মিলে লাউ সিমসহ বিভিন্ন সবজির মাচা।

বুধবার উপজেলার বিভিন্ন রাস্তা দিয়ে ঘুরে দেখা মিলে এমনি চিত্র। উপজেলা কৃষি অফিসের উদ্যোগে প্রতি ইঞ্চি জমির ব্যবহার এর নতুন উদ্যোগ বাস্তবায়ন কর্মসূচি হাতে নিয়ে কাজ করছেন মাঠ পর্যায়ের কৃষি কর্মকতাসহ কর্মচারীরা।

এমন উদ্যোগে স্বাগত জানিয়ে রাস্তার ধারে সিম চাষি গৃহীনি লুতফা বেগম বলেন, উপজেলা কৃষি অফিসের লোকজন আমাদের বসত ভিটায় লাউ এবং সিম চাষ করার জন্য বিচি দিয়ে সহযোগিতা করে। আমরা সেই বীজ রাস্তার ধারে লাগানোর পর মাচায় তুলে দিয়ে ফলন হওয়ার উপক্রম শুরু করছে।

উপজেলার আমগাঁও কামারপুকুর স্বাগতিক এলাকার এনামুল, সেলিনা, জাহিরুল, মমতাজ, বিউটি, রিয়াজুল, মাজিনা, কদবানু, রনেশাসহ উপজেলার প্রায় অর্ধশতাধিক কৃষক-কৃষাণী জানান, উপজেলা কৃষি বিভাগের উদ্যোগে আমরা রাস্তার ধারে ও বসতভিটার উঠানে লাউ এবং সিম চাষ শুরু করেছি যাতে আমাদের সবজির চাহিদা পূরণ করতে পারি। এতে করে আমাদের সংসারে যে পরিমান অর্থ দিয়ে সবজি ক্রয় করা হত সেটা এখন জমা হয়। তাতে আমাদের সংসারে উন্নতি হয়।

উপজেলার প্রবীন শিক্ষক ও উপজেলা জাতীয়পাটির সভাপতি আলতাবউদ্দীন মন্ডল (রেজা) বলেন, উপজেলা কৃষি কর্মকতা সরকার ঘোষিত নির্দেশনা বাস্তবায়ন করছে বলে আজ উপজেলার বিভিন্ন কৃষকের উপকার হচ্ছে।

উপজেলা কৃষি অফিসকে ধন্যবাদ জানিয়ে উপজেলা দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির সভাপতি বুলবুল তালকদার বলেন, দেশ এখন ডিজিটাল হয়েছে তাই কৃষিখ্যাতকেও সু-দৃষ্টি দিয়ে আমাদের হরিপুর উপজেলার কৃষকদের কৃষি মূখী করতে হবে।

হরিপুর উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অফিসার মারুফ হোসেন বলেন, করোনা ভাইরাসজনিত উদ্ভুত পরিস্থিতিতে প্রধানমন্ত্রীর সদয় নির্দেশনা প্রতিপালনে খাদ্য উৎপাদন বাড়াতে হবে এবং বসতবাড়ির আঙিনাসহ সব পতিত জমিতে শাকসবজি, ফলমূল ও অন্য ফসলের চাষে করতে হবে সেই নির্দেশনা বাস্তবায়ন করার জন্য মাঠ পর্যায়ে কাজ করছে উপজেলা কৃষি অফিস। সরকারি নির্দেশনা অনুযায়ী কৃষক-কৃষাণীদের জন্য প্রনোদণা অব্যাহত রয়েছে।

সরকারি নির্দেশনা পালন করার জন্য উপজেলা কৃষি অধিদপ্তরের সকল কর্মকর্তাকে ধন্যবাদ জানিয়ে উপজেলা চেয়ারম্যান ও দৈনিক হরিপুর এর প্রকাশক অধ্যক্ষ জিয়াউল হাসান মুকুল বলেন, আমরা যদি সরকারের নির্দেশনাগুলি সঠিকভাবে পালন করি তাহলে আর্থিকভাবে কোনদিন দূর্বল হব না। আমাদের গ্রাম অঞ্চলে কৃষি জমিগুলো সঠিকভাবে চাষ করলে এবং উপজেলা কৃষি অফিসের পরামর্শ নিলে অর্থিকভাবে স্বাবলম্বী হব তাড়াতাড়ি।

উপজেলা নিবার্হী অফিসার আব্দুল করিম বলেন, সরকার ঘোষিত কৃষি উৎপাদনকে আরো গতিশীল করার লক্ষে উপজেলা প্রশাসন সবসময় উপজেলা কৃষি অফিসের সাথে কাজ করছে।

এ সময় তিনি আরও বলেন, আমিও চায় হরিপুর উপজেলা কে কৃষি উৎপাদনের দিক থেকে প্রথম উপজেলা হিসাবে গড়ে উঠুক।