দুর্যোগ সহনীয় ঘর পেল ৩২ পরিবার

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২১ নভেম্বর ২০১৯ | ৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

দুর্যোগ সহনীয় ঘর পেল ৩২ পরিবার

কিশোরগঞ্জ (নীলফামারী) প্রতিনিধি ১২:৫৫ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ০৬, ২০১৯

print
দুর্যোগ সহনীয় ঘর পেল ৩২ পরিবার

নীলফামারীর কিশোরগঞ্জ উপজেলার পুঁটিমারী ইউনিয়নের ৭ নম্বর ওয়ার্ডের বিনোদ মাষ্টারের পাড়ার বাসিন্দা শ্রী দেবেন্দ্রনাথ বর্মন। পেশায় ছিলেন একজন ভিক্ষুক। ভিক্ষাবৃত্তি করে চলত তার সংসার। এক ছেলে ও স্ত্রীকে নিয়ে অনেক কষ্টে জীবন যাপন করতেন।

গত ২০১৪ সালে কিশোরগঞ্জ উপজেলাকে ভিক্ষুকমুক্ত করা হয়। সে সময় পুর্ণবাসিত ভিক্ষুকের তালিকায় তার নাম আসে। তালিকায় নাম থাকায় তিনি অন্যান্য সহযোগীতার পাশাপাশি সমাজসেবা অধিদপ্তর থেকে বয়স্ক ভাতার তালিকাভুক্ত হন।

শ্রী দেবেন্দ্রনাথ বলেন, ভিক্ষুকের তালিকায় নাম আসায় আমার তিনবেলা খাওয়ার চিন্তা দুর হয়। কিন্তু থাকার কোন জায়গা ছিল না। ছেলে ও স্ত্রীকে নিয়ে অন্যের জমিতে একটি খুপড়ি ঘরে বসবাস করে আসছিলাম।

স্বপ্ন ছিল একটি টিনের ঘর নির্মাণ করে সেই বাড়িতে থাকব। কিন্তু পুটিমারী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আবু সায়েম লিটনের সহযোগিতায় ও উপজেলা নিবার্হী অফিসার আবুল কালাম আজাদ স্যারের দয়ায় আজকে আমি একটি পাকা বাড়ির মালিক। আমি স্বপ্নেও ভাবিনি জীবনের শেষ প্রান্তে এসে বাকি জীবনটুকু পাকা বাড়িতে কাটাতে পারব।

এছাড়াও উপজেলার বড়ভিটা ইউনিয়নের লাইলী বেগম, মাগুড়া ইউনিয়নের আলেয়া খাতুন, গাড়াগ্রাম ইউনিয়নের লাভলী খাতুনসহ সকলেই খুশিতে আত্মহারা হয়েছেন।

এ ব্যাপারে উপজেলা নিবার্হী অফিসার আবুল কালাম আজাদ বলেন, প্রধানমন্ত্রীর গৃহহীনদের জন্য দুর্যোগ সহনীয় বাসগৃহ নির্মাণ প্রকল্প থেকে যারা পাকা ঘর পেয়েছেন তারা সকলেই খুব গরিব।

তাদের ঘরগুলো আলোকিত করার জন্য প্রতিটি বাড়িতে একটি করে সোলার ষ্ট্রীট লাইট স্থাপন করা হবে বলেও জানান তিনি।