জীর্ণ ভবনে ডাকঘর

ঢাকা, শনিবার, ২৩ নভেম্বর ২০১৯ | ৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

জীর্ণ ভবনে ডাকঘর

আদমদীঘি (বগুড়া) প্রতিনিধি ৫:১৮ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ১৫, ২০১৯

print
জীর্ণ ভবনে ডাকঘর

বগুড়ার আদমদীঘি উপজেলার সদরে অবস্থিত দীর্ঘদিনের পুরাতন প্রধান ডাকঘটি ছাদের পলেস্টার ফেটে, প্রাচীর ভেঙে ও দেয়ালসহ নানা স্থানে বড় ধরনের ফাঁটল ও বাঁক ধরে হেলে ব্যবহারের অযোগ্য হয়ে ঝুঁকিপূর্ণ এই ভবনেই চলছে কার্যক্রম। যে কোন মুহুর্তে ধ্বসে পড়ে বড় ধরনের ক্ষতির আশংকায় আতংকিত রয়েছে সংশ্লিষ্ট ডাকঘরের কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা।

জানা যায়, বগুড়ার আদমদীঘি উপজেলা সদরে ব্রিটিশ আমলে স্থাপিত এই প্রধান ডাকঘরটির অধীনে শালগ্রাম, কালাইকুড়ি, বিশিয়া, ভান্ডারগ্রাম, বিহিগ্রাম, আবাদপুকুরসহ ছয়টি শাখা ডাকঘর রয়েছে। আদমদীঘি প্রধান ডাকঘরে একজন পোস্ট মাস্টার, একজন পোস্টাল অপারেটর, একজন পোস্টম্যান, একজন প্যাকার, একজন রানার ও একজন নৈশ্য প্রহরী রয়েছে।

বৃটিশ আমলে নির্মিত মাটির ঘরের ডাকঘরটি স্থানান্তর করে ১৯৮৪ সালে তিনকক্ষ বিশিষ্ট ডাকঘর ও দুইকক্ষ বিশিস্ট পোস্ট মাস্টারের বাসভবন ও প্রাচীরসহ উপজেলা সদরে এই প্রধান ডাকঘর ভবন নির্মাণ করা হয়। নির্মাণের পর থেকে অদ্যবধি ভবনটিতে কোন রং কিংবা মেরামত করা হয়নি। ফলে ক্রমেই নষ্ট হতে শুরু করে গুরুত্বপূর্ণ এই ডাকঘরটি। বিগত ২০০৮ সাল হতে প্রধান এই ডাকঘরের ছাদের ওপর আবর্জনার স্তুপ, ডাকঘর ভবন ও পোস্ট মাস্টারের বাসভবনে ফাঁটল দেখা দেয়। দেয়াল বেঁকে ছাদের পলেস্টার উঠে প্রাচীর ভেঙে ইট চুরি হয়ে যাচ্ছে।

জরাকীর্ণ ভবনটি অল্প বৃষ্টি হলেই পানি চুঁয়ে পড়ে বিনষ্ট হচ্ছে অনেক মূল্যবান কাগজপত্র। বর্তমানে প্রধান ডাকঘর ও বাসভবন ব্যবহারের অযোগ্য হয়ে পড়লে বিভিন্ন পত্রিকায় এ সংক্রান্ত সংবাদ কয়েক দফায় প্রকাশ করা হলেও দৃষ্টি নেই কর্তৃপক্ষের। প্রায় ১১ বছর যাবত এই ভবনেই ঝুঁকিতে চলছে সকল কার্যক্রম। যে কোন মুহুর্তে ধ্বসে পড়ে বড় ধরণের ক্ষতির আশংকায় আতংকিত রয়েছে সংশ্লিষ্ট ডাকঘরের কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা।

আদমদীঘি উপজেলা পোস্ট মাস্টার সিরাজুল ইসলাম জানান, এই ডাকঘরটি সরজমিনে তদন্ত করে পুনঃনির্মাণের জন্য বেশ কিছুদিন আগে চিঠি প্রদান করা হলে তদন্ত হয়েছে। বগুড়া বিভাগীয় ডেপুটি পোস্ট মাস্টার জেনারেল আনোয়ার হোসেন মোবাইল ফোনে জানান, আদমদীঘির প্রধান ডাকঘরটি ইতোমধ্যে মহাপরিচালক বরাবর আবেদন রয়েছে।