ওয়াশ ব্লক নির্মাণে অনিয়ম

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯ | ৪ আশ্বিন ১৪২৬

ওয়াশ ব্লক নির্মাণে অনিয়ম

ঠিকাদারের পক্ষে সাফাই গাইছেন প্রকৌশলী

পীরগঞ্জ (ঠাকুরগাঁও) প্রতিনিধি ৮:১১ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১১, ২০১৯

print
ওয়াশ ব্লক নির্মাণে অনিয়ম

ঠাকুরগাঁওয়ের পীরগঞ্জে জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদফতরের অধীনে বিভিন্ন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ওয়াশ ব্লক নির্মাণ কাজে নিম্নমানের ইট এবং খোয়া ব্যবহার করাসহ নানা অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। এ বিষয়ে একাধিকবার অভিযোগ করার পরও কোনো কাজ না হওয়ায় বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের মধ্যে ক্ষোভ বিরাজ করছে।

তবে অভিযোগ সঠিক নয় দাবি করে ঠিকাদারের পক্ষে সাফাই গেয়ে উপজেলা জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদফতরের কর্মকতা মেহেদি হাসান বলছেন, কাজ করতে গিয়ে মিস্ত্রির অদক্ষতার কারণে একটু আধটু এদিক সেদিক হতেই পারে। এতে ধরার কিছু নেই।

পীরগঞ্জ জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদফতর সূত্রে জানা যায়, জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদফতরের আওতায় পীরগঞ্জ উপজেলার জসাইপাড়া, নিয়ামতপুর, কিং দলপতিপুর, ঘুঘুয়া এবং দলপতিপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে এ বছর প্রায় ৭২ লাখ টাকা ব্যায়ে একটি করে দ্বিতল ওয়াশ ব্লক নির্মাণ করা হচ্ছে। ফিরোজ নামে ঠাকুরগাঁওয়ের এক ঠিকাদার ওইসব বিদ্যালয়ে ওয়াশ ব্লক নির্মাণকাজ করছেন। এরই মধ্যে জসাইপাড়া এবং নিয়ামতপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ওয়াশ ব্লকের দ্বিতল ছাদ নির্মাণ শেষে দেওয়াল গাথুনির কাজ চলছে। ঘুঘুয়া এবং কিং দলপতিপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ব্যাজ ঢালাইয়ের কাজ চলছে আর একটি বিদ্যালয়ে এখনও কাজ শুরুই করা হয়নি।

নিয়ামতপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক লুৎফা বেগম বলেন, খারাপ ইট দিয়ে কাজ করা, সিমেন্ট কম দেওয়া, পিলার বাকা করে উঠানোসহ বিভিন্ন অসঙ্গতির বিষয়ে অনেকবার তিনি ইঞ্জিনিয়ার ও ঠিকাদারকে বলেছেন। কাজ হয়নি। বিষয়টি তিনি তার ঊর্ধতন কর্মকর্তাকে জানিয়েছেন।

এ বিষয়ে ঠিকাদার ফিরোজ আলম বলেন, অভিযোগের পর নিয়ামতপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে তিনি গিয়েছিলেন এবং দেওয়ালের কিছু খারাপ ইট নিজে তুলে দিয়েছেন এবং কিছু কেটে বের করার জন্য মিস্ত্রিকে বলেছেন। এাছাড়া আর কোনো সমস্যা নেই। নিয়ম মেনেই কাজ করার চেষ্টা করা হচ্ছে।

ঠিকাদারের পক্ষে সাফাই গেয়ে উপজেলা জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদফতরের কর্মকতা মেহেদি হাসান বলেন, ঠিকাদার ভালো কাজ করছেন। ঠিকাদারকে সঙ্গে নিয়ে তিনি নিয়ামতপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে গিয়েছিলেন। তেমন কোনো সমস্যা নেই। হাজার হাজার ইটের মধ্যে কিছু তো খারাপ থাকবেই। তাছাড়া মিস্ত্রির অদক্ষতার কারণে কিছু ত্রুটি হতে পারে।