শোলাকুডায় ভাঙা বাঁধের মাটি বিক্রি

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২১ | ১২ ফাল্গুন ১৪২৭

শোলাকুডায় ভাঙা বাঁধের মাটি বিক্রি

চলনবিল (নাটোর) প্রতিনিধি ৩:৫৯ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ২৫, ২০২১

print
শোলাকুডায় ভাঙা বাঁধের মাটি বিক্রি

পানির স্রোতে ভেসে যাওয়া নাটোরের সিংড়া উপজেলার আলোচিত সেই শোলাকুড়া গ্রাম। বন্যার পানির স্রোতে ভেসে যায় প্রায় অর্ধশত বাড়িঘরসহ স্থাপনা। আজো সেই ভাঙা অংশ করা হয়নি ভরাট বা মেরামত। অথচ শোলাকুড়া এলাকার ভেঙে যাওয়া সেই মাটি এখন বিক্রি হচ্ছে অন্যত্র।

এমন খবর আসলে সরেজমিনে যান খোলা কাগজ প্রতিবেদক। গিয়ে দেখা যায়, ভাঙন থেকে প্রায় ১০০ মিটার দুরে, চলনবিলের কিছু অংশে জমা হওয়া সেই মাটি সত্যিই বিক্রি হচ্ছে। সেই মাটি ভেকু মেশিন দিয়ে খনন করে বিক্রি করছেন স্থানীয় প্রভাবশালীরা। কার স্বার্থে এমনটি হচ্ছে? প্রশ্ন সচেতন মহলের। অথচ এই মাটি দিয়েই ভরাট করা যেতো ক্ষতিগ্রস্ত ভেঙে যাওয়া অংশ।

এলাকাবাসীরা বলছেন, যে স্থান থেকে মাটি সরে গেছে, সেই স্থানেই যদি ভরাট করা যেত তাহলে একদিকে যেমন বিপুল পরিমাণ সরকারের অর্থ সাশ্রয় হত অপরদিকে অতি দ্রুত স্থানীয় বাসিন্দারা ফিরতে পারত তাদের নিজের সম্পত্তির উপরে। আর ট্রাক্টর চলাচলের কারণে সরু সড়কে যাতায়াতে বিঘ্ন ঘটছে পথচারিদের।

ভেকু চালক জসিম জানান, স্থানীয় কাউন্সিলর ও মেয়র তাদের জামালপুর থেকে ভাড়া করে এনেছে। গত প্রায় এক মাস যাবৎ তারা এখান থেকে মাটি কাটছে। সরু রাস্তায় দুইটি ট্রাক্টর পাশাপাশি চলার কারণে বিঘ্নিত হচ্ছে সাধারন মানুষের যাতায়াত।

অপরদিকে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে সরকারের নির্মিত কোটি টাকার সড়ক। সামান্য বৃষ্টি হলেই চলাচলের উপযোগিতা হারাবে এসব সড়ক। ইতিমধ্যে ওভার লোডেড মাটি বাহী ট্রাক্টরের কারণে ভেঙে গেছে সড়কের বিভিন্ন স্থান।

জানা যায়, একটি ভেকু প্রতিদিন গড়ে দুইশ ট্রাক্টর মাটি কাটে যা বিক্রি হচ্ছে বিভিন্ন স্থানে। এসব মাটি প্রায় এক হাজার টাকা গাড়ি বিক্রি করছেন স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতারা। এই কর্মকাণ্ড চলছে প্রায় একমাস যাবত।

পরিসংখ্যানে দেখা যায় দুইটি ভেকু দ্বারা প্রতিদিন প্রায় চারশত ট্রাক্টর মাটি বিক্রি করা হয়েছে। আর দিনে প্রায় চার লাখ টাকা রোজগার হলে এক মাসে প্রায় এক কোটি কুড়ি লাভ টাকার মাটি বিক্রি করা হয়েছে।

জমি মালিক রিয়াজুদ্দিন জানান, আপনি কেনো এখানে এসেছেন আপনাদের জন্য বরাদ্দকৃত অর্থ আপনাদের সংগঠনের পৌঁছে দেওয়া হয়েছে। এ বিষয়ে বিস্তারিত জানতে চাওয়া হলে তিনি আর কিছু জানাননি প্রতিবেদককে।

সিংড়া ইউএনও সামিরুল ইসলাম জানান, সংবাদ কর্মিদের কাছে খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে সত্যতা পেয়েছেন।

তিনি জানান, কাজ বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। ভেকু ব্যাটারি জব্দ করা হয়েছে।