উপজেলা চেয়ারম্যানসহ চারজনের বিরুদ্ধে ঘুষ গ্রহণের অভিযোগ

ঢাকা, শুক্রবার, ৫ মার্চ ২০২১ | ২১ ফাল্গুন ১৪২৭

উপজেলা চেয়ারম্যানসহ চারজনের বিরুদ্ধে ঘুষ গ্রহণের অভিযোগ

পীরগঞ্জ (ঠাকুরগাঁও) প্রতিনিধি ৬:১৮ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ২০, ২০২১

print
উপজেলা চেয়ারম্যানসহ চারজনের বিরুদ্ধে ঘুষ গ্রহণের অভিযোগ

সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে এক মুক্তিযোদ্ধার সন্তানকে নৈশ্য প্রহরী পদে চাকরি পাইয়ে দেওয়ার নামে টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে পীরগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যানসহ ৪ জনের বিরুদ্ধে। টাকা ফেরত চাইতে গেলে গালিগালাজসহ নানা প্রকার হুমকি দেওয়া হচ্ছে ঐ মুক্তিযোদ্ধার সন্তানকে। উপায়ন্তর না পেয়ে গত মঙ্গলবার জেলা প্রশাসক ও উপজেলা নির্বাহী অফিসারসহ বিভিন্ন দফতরে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন মুক্তিযোদ্ধার সন্তান কামাল হোসেন। তবে অভিযোগ সত্য নয়।

অভিযোগে জানা যায়, উপজেলার জাবরহাট ইউনিয়নের চন্দরিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দফতরি, কাম-নৈশ্য প্রহরী পদে চাকরি পাইয়ে দেওয়ার কথা বলে ২০১৫ সালে করনাই গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা আব্দুর রহমানের ছেলে কামাল হোসেনের কাছ থেকে বর্তমান উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আখতারুল ইসলাম ৩৭ হাজার, বিদ্যালয়ের তৎকালিন সভাপতি নজরুল ইসলাম ৫০ হাজার, সভাপতির ছেলে নাজমুল হক ২০ হাজার এবং স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা ডাক্তার মতিউর রহমান ১ লাখ ৩ হাজার টাকা গ্রহণ করেন। কিন্তু ঐ বিদ্যালয়ে মুক্তিযোদ্ধার সন্তান কামালের চাকরি হয়নি। সেখানে নিয়োগ পান জনৈক আফসার আলী নামে এক ব্যক্তি।

পরে টাকা ফেরত চাইলে উপজেলা চেয়ারম্যান এবং ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি সহ অন্যরা একজোট হয়ে কামালকে অশ্লীল গালিগালাজ করে এবং বিভিন্ন ভয় ভীতি দেখায়। প্রাণ ভয়ে কামাল তাদের কাছে টাকা ফেরত চাইতে পারছেন না।

কামাল হোসেন অভিযোগ করে বলেন, যারা টাকা নিয়েছেন, তারা প্রভাবশালী। তাদের হুমকি ধামকিতে আমি ভয়ে আছি। পাওনা টাকা চাওয়ার সাহস পাচ্ছি না। দেশে কি কোন আইন কানুন নাই। এ জন্যই লিখিত অভিযোগ দিয়েছি।

এ বিষয়ে গতকাল বুধবার বিকালে উপজেলা চেয়ারম্যান আখতারুল ইসলাম বলেন, ‘এ বিষয়ে আমি কিছুই জানি না, স্কুলে চাকরি পাইয়ে দিতে কারো কাছে টাকাও নেইনি, চ্যালেঞ্জ থাকল- কেউ প্রমাণ করতে পারবে না।’

উপজেলা নির্বাহী অফিসার রেজাউল করিম বলেন, এ রকম একটি অভিযোগ পাওয়া গেছে। তবে এটি উপজেলা চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে কিনা তা বলতে পারছেন না। অভিযোগ যার বিরুদ্ধেই হোক তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।