সিরাজগঞ্জে চোর সন্দেহে গাছের সঙ্গে বেঁধে নির্যাতন

ঢাকা, শনিবার, ২৪ অক্টোবর ২০২০ | ৯ কার্তিক ১৪২৭

সিরাজগঞ্জে চোর সন্দেহে গাছের সঙ্গে বেঁধে নির্যাতন

সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি ১২:০০ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ২৬, ২০২০

print
সিরাজগঞ্জে চোর সন্দেহে গাছের সঙ্গে বেঁধে নির্যাতন

ছাগল ছোর সন্দেহে সিরাজগঞ্জের কামারখন্দে মধ্যযুগীয় কায়দায় অজ্ঞাতপরিচয় এক যুবককে (২৫) গাছের সঙ্গে বেঁধে নির্যাতন করা হয়েছে। শুক্রবার রাতে এই নির্যাতনের ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল হয়েছে।

ভাইরাল হওয়া ভিডিও’র বিষয়ে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, শুক্রবার বিকেলে কামারখন্দ উপজেলার জামতৈল কলেজ পাড়ায় এ ঘটনাটি ঘটে। ওই গ্রামের মাছের হ্যাচারি ব্যবসায়ী হ্যাপি অজ্ঞাতপরিচয় যুবকটিকে দেখে ছাগল চোর হিসেবে সন্দেহ করেন এবং তাকে ধরে গাছের সঙ্গে বেঁধে অমানুষিক নির্যাতন চালান।

ভিডিওটিতে দেখা যায়, হাত-পা বাঁধা যুবকটির হাতের নখগুলো প্লাস দিয়ে ভেঙ্গে ফেলছেন ব্যবসায়ী হ্যাপি। এ সময় হ্যাপিকে বলতে শোনা যায়, ওর আঙ্গুল দুইটা ভাঙ্গছি। ওর সাথে কে কে আছে তাদের নাম না বলা পর্যন্ত ওর আঙ্গুল সবগুলো ভেঙ্গে দেওয়া হবে, তার আগে ছাড়বো না। আমি ওকে মেরে ফেলবো না, ওর হাত-পা ভাঙবো, তারপর ছেড়ে দেব।

স্থানীয়রা জানান, অজ্ঞাতপরিচয় ওই ব্যক্তিকে ছাগল চোর সন্দেহে গাছের সঙ্গে বেঁধে মধ্যযুগীয় কায়দায় বেদম মারপিট করেন হ্যাপি ও তার ছেলে। গ্রামের লোকজন না পিটিয়ে ওই যুবককে পুলিশে দেওয়ার কথা বললেও হ্যাপি কারও কথা শোনেননি। প্রায় দুই ঘণ্টা নির্যাতনের পর ওই যুবককে ছেড়ে দেওয়া হয়।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে হ্যাপি বলেন, কয়েকদিন আগে একটি ছাগল চুরি হয়েছে। আবার আরেকটি ছাগল নিয়ে যাওয়ার সময় চোরকে ছাগলসহ হাতেনাতে ধরে দু-একটা চড় থাপ্পর দিয়ে ছেড়ে দিয়েছি।

কামারখন্দ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রফিকুল ইসলাম জানান, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছিল। নির্যাতিত যুবক ও নির্যাতনকারী কাউকেই পাওয়া যায়নি। তবে চোরকে আটক করে পুলিশের নিকট না দিয়ে নিজেই নির্যাতন করার জন্য নির্যাতনকারীদের দ্রুত আইনের আওতায় আনার প্রক্রিয়া চলছে।